সেপ্টেম্বরে কাতার থেকে রেমিটেন্স এসেছে ১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা



তাইফুর রহমান, বার্তা২৪.কম কাতার
সেপ্টেম্বরে কাতার থেকে রেমিটেন্স এসেছে ১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা

সেপ্টেম্বরে কাতার থেকে রেমিটেন্স এসেছে ১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা

  • Font increase
  • Font Decrease

কাতার থেকে গত সেপ্টেম্বর মাসে মাত্র মাত্র ১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে প্রবাসীরা, যা অন্যান্য সময়ের তুলনায় অনেক কম।

দেশে ডলার সংকট সমাধানে ব্যাংকগুলোতে ডলারের দর বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এতে করেই বৈধ পথে অর্থ পাঠাতে উৎসাহ হারাচ্ছেন অনেক প্রবাসীরা।

ফলে গত সেপ্টেম্বর মাসে রেমিট্যান্স ব্যাপকহারে কমে গেছে, যা ছিলো গত সাত মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন।

এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রকাশিত হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সেপ্টেম্বরে রেমিট্যান্স ব্যাপকহারে কমে গেছে, যা ছিলো তার আগের সাত মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। তবে সেপ্টেম্বর মাসে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে সৌদি আরবের প্রবাসীরা। সৌদি আরব থেকে প্রায় ৩০ কোটি ৭৬ লাখ টাকা এসেছে বাংলাদেশে।

কারণ হিসেবে প্রবাসীদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলছেন, কদিন আগেও যখন সরকার ডলারের দাম বেঁধে দেয় নাই তখন কাতারের ব্যাংকগুলোতে বা মানি এক্সচেঞ্জ গুলোতে টাকার রেট অনেক ভালো ছিলো। এখন বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ডলারের দর নির্ধারণ করে দেওয়াতে রিয়ালের দাম কমেছে বাংলাদেশের টাকায়। আর সে কারনেই বৈধভাবে রেমিটেন্স পাঠাতে নিরুৎসাহিত হচ্ছে অনেক প্রবাসীরা।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ পাওয়া তথ্যমতে গত কয়েক মাসেউ কাতারের রিয়াল বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৩১ টাকার বেশি পাওয়া যেতো যা বর্তমানে কমে ২৯ টাকার মতো হয়েছে।

লিড্ ব্যাংক হিসেবে সাউথইস্ট ব্যাংকের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
লিড্ ব্যাংক হিসেবে সাউথইস্ট ব্যাংকের  দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা

লিড্ ব্যাংক হিসেবে সাউথইস্ট ব্যাংকের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা

  • Font increase
  • Font Decrease

সম্প্রতি সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় অবস্থিত বিভিন্ন ব্যাংকের কর্মকর্তাদের নিয়ে লিড্ ব্যাংক হিসেবে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) এর নির্দেশনায় “মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ” শীর্ষক দিনব্যাপী একটি প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করেছে।

উক্ত কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) এর অতিরিক্ত পরিচালক মোঃ মাসুদ রানা এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার এ এইচ এম আবদুর রকিব। কর্মশালাটি সভাপতিত্ব করেন সাউথইস্ট ব্যাংকের ইভিপি এবং ডেপুটি প্রধান মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ পরিপালন কর্মকর্তা খোরশেদ আলম চৌধুরী।

উক্ত প্রশিক্ষণ কর্মশালায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ৩৫ টি তালিকাভূক্ত ব্যাংকের ৭৬ জন কর্মকর্তা অংশগ্রহণ করেন।

মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধের উপর ওভারভিউ, মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধের জন্য নিয়ন্ত্রক সংস্থার চাহিদা, ক্রেডিট ব্যাকড্ মানি লন্ডারিং, ট্রেড বেসড্ মানি লন্ডারিং, এএমএল রেটিং এর পদ্ধতি ইত্যাদি বিষয়ের উপর ০৫ (পাঁচটি) অংশগ্রহণমূলক সেশন বিএফআইইউ এর কর্মকর্তাবৃন্দ পরিচালনা করেন। সবশেষে, মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ বিষয়ক মুক্ত আলোচনা ও প্রশ্নোত্তর পর্ব, কুইজ ও অংশগ্রহণার্থীদের মূল্যায়ন গ্রহণের মাধ্যমে কর্মশালাটির সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।

;

সবচেয়ে বড় রেস্টুরেন্ট কোম্পানি ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেডের ৫০তম আউটলেট উদ্বোধন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সবচেয়ে বড় রেস্টুরেন্ট কোম্পানি ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেডের ৫০তম আউটলেট উদ্বোধন

সবচেয়ে বড় রেস্টুরেন্ট কোম্পানি ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেডের ৫০তম আউটলেট উদ্বোধন

  • Font increase
  • Font Decrease

মজাদার খাবারের স্বাদে মন জয় করে, ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেড এবার মাইলফলক ছুঁয়ে দিলো কেএফসি’র উত্তরা ৬ আউটলেট উদ্বোধন করে। গত ২১নভেম্বর, বাংলাদেশে ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেড –এর ৫০তম আউটলেটের যাত্রা শুরু হয়, উত্তরার ৬নং সেক্টরে কেএফসি-র নতুন আউটলেট ওপেনিংয়ের মাধ্যমে।

বাংলাদেশে ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেড-এর এই যাত্রা শুরু হয় ২০০৩ সালে। আর এই নতুন আউটলেট উদ্বোধন তাদের জন্য এক নতুন অর্জন।

২১ নভেম্বর ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেড এবং কেএফসি উত্তরা ৬নং আউটলেটের কর্মীদের সৌজন্যে সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিলো, যেনো ওরা কেএফসি-র মজাদার খাবার উপভোগ করতে পারে। কেএফসি এবং ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেডের ছোট শিশুদের জন্য বিশেষ এই আয়োজন দিনটিকে আরো স্মরণীয় করে তোলে।

বড় পরিসরে, আরও উন্নত পরিষেবা নিয়ে উত্তরার ৬নং সেক্টরে কেএফসি-র এই আউটলেটটি চালু করা হয়েছে। কেএফসি অ্যাপ চালু হওয়ার কারণে অর্ডার করার প্রক্রিয়াাটি অনেক সহজ হয়ে গেছে। এখন ট্র্যাডিশনাল ডাইন-ইন ছাড়াও, ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ডেলিভারি এবং সরাসরি কল করে ও খাবার অর্ডার করা যাচ্ছে।

ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেড-এর সিইও, মিঃ অমিত দেব থাপা বলেন, “বাংলাদেশে এই দীর্ঘ যাত্রায় আমরা আমাদের খাবার এবং পরিষেবা দিয়ে লক্ষ লক্ষ লোকের মুখে হাসি ফোটাতে পেরেছি। তবে এই সুযোগ তৈরি করে দেওয়ার জন্য আমারা গ্রাহকদের এবং আমাদের নিবেদিত প্রাণ কর্মীদের ধন্যবাদ জানাতে চাই। কারণ আপনাদের হাত ধরেই সম্ভব হয়েছে ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেড-এর ৫০তম আউটলেট এবং কেএফসি-র ২৮ তম আউটলেটের এই মাইল ফলক অর্জন। এই পথচলায় আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাদের জানাই অসংখ্য ধন্যবাদ।“

;

ব্যাংকের অবস্থা কোথায় খারাপ, প্রশ্ন অর্থমন্ত্রীর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের সার্বিক ব্যাংকিং ব্যবস্থার বিষয়ে বিভিন্ন মহল থেকে নানা বক্তব্য আসছে, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ‘ব্যাংকের অবস্থা কোথায় খারাপ’ তা লিখিত চাইলেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) সচিবালয়ে ‍গৃহনির্মাণ ঋণ ব্যবস্থাপনা মডিউলের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ইসলামী ব্যাংকসহ কয়েকটি ব্যাংকের ঋণ জালিয়াতি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে উত্তরে তিনি বলেন, ব্যাংকের অবস্থা কোথায় খারাপ লিখিত দিয়ে যান, আমরা খতিয়ে দেখবো।

এদিকে গৃহনির্মাণ ঋণ ব্যবস্থাপনা মডিউলের উদ্বোধন উপলক্ষে মন্ত্রী বলেন, সরকার সার্বজনীন পেনশনের যে স্কিম করেছে, তা দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা সব কিছুতেই পরিবর্তন নিয়ে এসেছি। এমনকি আমরা আগে যেভাবে বাজেট পেশ করতাম সেখানেও পরিবর্তন আনা হয়েছে। সব কিছুতে ডিজিটাল করা হয়েছে।

সাংবাদিকদের ‍উদ্দেশে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমি নিজেও একজন অডিটর ছিলাম। তখন আমরা একটাই অভিযোগ পেতাম, সেটি হলো সরকার থেকে আমরা যে সমস্ত টাকা-পয়সা পাই, বিশেষ করে পেনশনের টাকার জন্য মাস শেষে লাইন ধরে সারাদিন বসে থাকতে হয়। তারপরও পেনশন পাওয়া যেত না। তখন আমি ভাবতাম এটা কী করে সম্ভব। কেন পেনশন পাওয়া যাবে না। কারণ তখন সব কিছু ছিল ম্যানুয়াল। অটোমেশন না থাকায় এটি হতো আমরা পেনশনের বিল পেতাম না। এখন সেটা হচ্ছে না। এজন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুসারে সরকারি কর্মচারীদের জন্য আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে ২০১৮ সালের ৩০ জুলাই ‘সরকারি কর্মচারীদের জন্য ব্যাংকিং ব্যবস্থার মাধ্যমে গৃহনির্মাণ ঋণ প্রদান নীতিমালা’ প্রণয়ন করা হয়। বর্তমানে সরকারি কর্মচারী, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের শিক্ষক বা কর্মচারী এবং প্রধান বিচারপতি ও সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের জন্য গৃহনির্মাণ ঋণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব ফাতিমা ইয়াসমিনের সভাপতিত্বে হাউস বিল্ডিং লোন ম্যানেজমেন্ট মডিউলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব শেখ মোহাম্মদ সলীম উল্লাহ, হিসাব মহানিয়ন্ত্রক মো. নুরুল ইসলাম এবং অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুরশেদুল কবীর।

;

বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় ক্রীড়ার বিজয়ীরা পুরস্কারের অর্থ পেলেন বিকাশে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় ক্রীড়ার বিজয়ীরা পুরস্কারের অর্থ পেলেন বিকাশে

বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় ক্রীড়ার বিজয়ীরা পুরস্কারের অর্থ পেলেন বিকাশে

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রথমবারের মতো ডিজিটাল পেমেন্টেরে মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপের পুরস্কারের অর্থ বিজয়ীদের মধ্যে বিতরণ করা হলো। সম্প্রতি রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে প্রতিযোগিতার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিজয়ীদেরকে বিকাশের মাধ্যমে দেয়া পুরস্কারের অর্থের স্মারক, পদক ও ট্রফি তুলে দেন।

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় আয়োজিত এই চ্যাম্পিয়নশিপে দেশজুড়ে ১২৫ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৭০০০ ক্রীড়াবিদ দেশের ১৩টি ভেন্যুতে বিভিন্ন ক্রীড়া ইভেন্টে অংশগ্রহণ করেন। মাসব্যাপী এ আয়োজনে ডিজিটাল পেমেন্ট পার্টনার হিসেবে পুরস্কারের অর্থ সরাসরি বিজয়ীদের বিকাশ অ্যাকাউন্টে প্রদান করা হয়।

আন্তঃস্কুল, আন্তঃকলেজ, আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় প্রতিযোগিতার মাধ্যমে আমাদের ছেলেমেয়েরা আরও বিকশিত হচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশা ব্যক্ত করেন যে, এভাবেই তারা একদিন চূড়ান্ত উৎকর্ষ অর্জন করে বিশ্বকাপে প্রতিযোগিতা করতে সক্ষম হবে। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এবং যুব ও ক্রীড়া সচিব মেজবাহ উদ্দিন।

‘বঙ্গবন্ধুর সোনার দেশ, তারুণ্যের বাংলাদেশ’-কে প্রতিপাদ্য হিসেবে সারাদেশের পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মিলিত অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় এবারের বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপের তৃতীয় আসর। ফুটবল, ক্রিকেট, সুইমিং, অ্যাথলেটিক্স, টেবিল টেনিস, বাস্কেটবল, ভলিবল, হ্যান্ডবল, সাইক্লিং, দাবা, কাবাডি ও ব্যাডমিন্টনসহ ১২টি ইভেন্টের সমন্বয়ে নারী, পুরুষ উভয় বিভাগে অনুষ্ঠিত হয় এবারের আয়োজন। আসরের প্রত্যেক ইভেন্টে অংশ নেয়া প্রথম তিনজন বিজয়ীকে স্বর্ণ, রৌপ্য ও ব্রোঞ্জপদক প্রদান করা হয়।

;