অর্থ সংকটে পেমেন্ট দিতে পারছে না হোমল্যান্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গত মার্চ-এপ্রিলের পেমেন্ট এখনো ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে, নতুন করে কেউ গেলেই পাঁচ-ছয় মাসের লম্বা তারিখ বলা হচ্ছে। হোমল্যান্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি অর্থ সংকটে, নাকি কৃত্রিম সংকট তৈরি করে গ্রাহকদের হয়রানি করা হচ্ছে- এমন প্রশ্ন তুলেছেন বিমা কোম্পানিটির গ্রাহকরা।

সোমবার (১৫ জুন) মতিঝিল প্রধান কার্যালয় ঘুরে গ্রাহকদের এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এম. ইসলাম নামের এক গ্রাহক অভিযোগ করেছেন, তার বিমার প্রফিট বোনাস দেওয়ার কথা ছিল ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে। সেই প্রফিট বোনাস তুলতে গেলে তাকে বলা হয়েছে, চলতি বছরের নভেম্বর মাসের শেষ দিকে যোগাযোগ করতে। কেন এতোদিন অপেক্ষা করতে হবে জানতে চাইলে কোম্পানির হিসাব বিভাগ থেকে বলা হয়েছে, অর্থ সংকট রয়েছে, এখন টাকা দেওয়া সম্ভব না।

এম ইসলাম অভিযোগ করেছেন, এখানে একজন কর্মচারী তাকে জানিয়েছেন যে তদবির করলে দ্রুত পেতে পারেন। না হলে নভেম্বরে যোগাযোগ করা ছাড়া কোনো উপায় নেই।

এ বিষয়ে সিনিয়র সহকারী ম্যানেজার (অর্থ ও হিসাব) রাম কৃষ্ণ বার্তা২৪.কমকে বলেন, অবস্থাতো বুঝতেই পারছেন। এখন কালেকশন নেই, টাকা দেব কোথা থেকে। মার্চ-এপ্রিলে যাদের চেক ইস্যু করার কথা ছিল, তাদেরগুলো দেওয়া হচ্ছে। এখন এলেইতো তাদের দেওয়া সম্ভব না। তাই তাকে নভেম্বরে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। তাকে কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেছি, বসরা চাইলে হয়তো ওনাকে আরও আগেই দিতে পারেন। কিন্তু আমাকে যেভাবে বলা হয়েছে, আমি সেইভাবে তাকে বলেছি।
সিনিয়র ডিজিএম মাসুদ করীম বার্তা২৪.কমকে বলেন, হ্যাঁ এ কথা সত্যি, আমাদের অর্থ সংকট যাচ্ছে। করোনার কারণে কোনো কালেকশন হচ্ছে না, আমরা দেব কোথা থেকে। যাদের চেক ইস্যু করার জন্য তারিখ দেওয়া হয়েছিল, সেই সময়ে দেওয়া যায় নি, তাদেরগুলো পর্যায়ক্রমে দেওয়া হচ্ছে। শুধু আমাদের কোম্পানির না, আরও অনেক কোম্পানি অর্থ সংকটে রয়েছে। এ নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় নিউজও হয়েছে।