এমপিদের প্রচারণা বন্ধে মাহবুব তালুকদারের ‘ইউ নোট’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি ও ডিএসসিসি) নির্বাচনের কার্যক্রম ও প্রচারকার্যে সংসদ সদস্যরা অংশ নিলে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নষ্ট হবে বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মাহবুব তালুকদার। বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) এ বিষয়ে তিনি প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও দুই রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম (উত্তর) ও আব্দুল বাতেনের (দক্ষিণ) কাছে ইউ নোট (আন-অফিসিয়াল নোট) দিয়েছেন।

এতে মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘সরকারি সুবিধাভোগী অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি এই নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করলে নির্বাচন কমিশনের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। নির্বাচন আচরণ বিধিমালা কঠোরভাবে পরিপালন করা একান্ত আবশ্যক।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করেছি যে, আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের কার্যক্রম ও প্রচারকার্যে সংসদ সদস্যরা অংশগ্রহণ করছেন। এটি সিটি করপোরেশন (নির্বাচন আচরণ) বিধিমালা, ২০১৬-এর লঙ্ঘন। উক্ত বিধিমালায় উল্লেখ করা হয়েছে অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ‘নির্বাচন-পূর্ব সময়ে নির্বাচনী এলাকায় প্রচারণা বা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। এমতাবস্থায় তারা কীভাবে এই নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করছেন, তা বোধগম্য নয়।’

তিনি আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সংসদ সদস্যরা যাতে অংশগ্রহণ না করেন, সে বিষয়ে জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান।

নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা শুরুর আগে গত ৫ জানুয়ারি সংসদ সদস্য সাহারা খাতুনকে নিয়ে উত্তরায় নির্বাচনী ক্যাম্প উদ্বোধন করেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) আওয়ামী লীগ প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। এ কারণে দুটি ধারায় আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে ৬ জানুয়ারি রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ দিয়েছিলেন।

জবাবে আতিকুল ইসলাম বলেছেন, ‘মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছিল, তাই আচরণবিধি লঙ্ঘন হয়নি।’ জবাবে নির্বাচনী ক্যাম্প উদ্বোধনের বিষয়টি উল্লেখ করেননি তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :