ইতিহাসের ঢাকা নগর: পৌরসভা থেকে সিটি করপোরেশন



ড. মাহফুজ পারভেজ, অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম
শিল্পীর তুলিতে ইতিহাসের প্রাচীন ঢাকা, ছবি: সংগৃহীত

শিল্পীর তুলিতে ইতিহাসের প্রাচীন ঢাকা, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মুঘলদের হাতে নগর কাঠামো পাওয়া ঢাকার বয়স ৪০০ পেরিয়ে গেলেও এর নগর প্রশাসনের বয়স খুব বেশি নয়। ১৮৬৪ সালে ঢাকায় পৌরসভা এবং ১৯৯৩ সালে সিটি করপোরেশন স্থাপিত হয়। আর ২০১১ সালে ঢাকার নগর প্রশাসন দু'টি করপোরেশনের অধীনে আসে।  

১৬০৮ সালে মুঘল সুবেদার ইসলাম খাঁ সুবা বাংলার রাজধানী প্রতিষ্ঠা করেন ঢাকায়, যদিও জনপদ হিসাবে ঢাকার প্রাচীনত্ব আরও অনেক বেশি। ঢাকার পাশেই ছিল সুলতানি বাংলার রাজধানী সোনারগাঁও। কয়েক শত বছর সেখানে সমৃদ্ধ নগর, টাকশাল, সেনানিবাস ছিল। তারও আগে বাংলার স্বাধীন বারো ভূঁইয়া শাসনকাল আবর্তিত হয়েছে ঢাকার আশে-পাশে।

ফলে ঢাকা কোনও অজ্ঞাত ও অজানা জনপদ ছিলনা। ছিল বুড়িগঙ্গা নদী তীরের প্রসিদ্ধ বাণিজ্যকেন্দ্র, যা মুঘলদের হাতে রাজধানীর মর্যাদা ও প্রশাসনিক নগর বিন্যাস লাভ করে। মুঘল সুবেদার নিজে সরাসরি ও কোতয়ালের মাধ্যমে নগর শাসন করতেন এবং বিভিন্ন মহল্লার প্রবীণ ও প্রভাবশালী সর্দারগণ সামাজিকভাবে প্রশাসনকে সহযোগিতা করতেন, যাদের নিয়ে গঠিত হতো 'পঞ্চায়েত কমিটি'। 'পঞ্চায়েত কমিটি'কে বলা যেতে পারে ঢাকা পৌরসভার পূর্বসূরি  আর পৌরসভা হলো সিটি করপোরেশনের পূর্বসূরি।   

ইংরেজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির আমলে ঢাকায় কুঠি, বাণিজ্যকেন্দ্র, প্রশাসনিক বুনিয়াদ থাকলেও পলাশীর যুদ্ধের শতবর্ষ পরেও ঢাকার নগর প্রশাসনের প্রাতিষ্ঠানিক অবয়ব তৈরি হয়নি। ১৮৫৭ সালে সিপাহী বিদ্রোহের পর বাংলা তথা ভারত ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির নিজস্ব শাসনের বদলে সরাসরি ব্রিটিশ শাসনে আসে। আর তখন ১৮৬৪ সালে পৌরসভা গঠনের মাধ্যমে ঢাকার আধুনিক নগর প্রশাসনের গোড়াপত্তন সূচিত হয়।

১৮৬৪ সালের ১ আগস্ট প্রতিষ্ঠিত ঢাকা পৌরসভায় (মিউনিসিপ্যালিটি) সর্বমোট ১৭ জন চেয়ারম্যান দায়িত্ব পালন করেন। এর মধ্যে প্রথম তিনজন বাদে বাকি ১৪ জন ছিলেন কমিশনারদের ভোটে নির্বাচিত। পৌরসভার প্রথম চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তখনকার জেলা ম্যাজিস্ট্রেট স্কিনার। ১৮৮৪ সাল পর্যন্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট পদাধিকার বলে এ পদে নিয়োগ পেতেন। প্রথম তিন চেয়ারম্যান, স্কিনার, ড. লাইএ্যল ও জে ব্রাডব্যারিকে নিয়োগ দেন ব্রিটিশ বাংলার গভর্নর। একটি কমিটির মাধ্যমে তারা ঢাকার সেবা ও প্রশাসন ব্যবস্থা তদারক করতেন।

১৮৮৪ সালে ওয়ার্ড কমিশনারদের দ্বারা মেয়র নির্বাচনের প্রথম সভা বসে। সে সভাই পৌরসভার চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচন করে। ১৮৮৫ সালে ঢাকা পৌরসভার প্রথম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন রায় বাহাদুর আনন্দ চন্দ্র রায়। ঢাকা পৌরসভার প্রথম নির্বাচিত মুসলমান চেয়ারম্যান খাজা মোহাম্মদ আসগর। ব্রিটিশ আমলের শেষ পৌরচেয়ারম্যান ছিলেন বিমলা নন্দ দাসগুপ্ত।

১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ শাসনের অবসানে ঢাকা পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশের রাজধানী হয়।তখন (১৯৪৭) থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত ঢাকা পৌরসভার চেয়ারম্যান পদে  মনোনীত বা অনির্বাচিতরাই বসেন। পাকিস্তান আমলে পৌরসভার প্রথম চেয়ারম্যান নিযুক্ত হন পানাউল্লাহ আহমেদ। পাকিস্তান আমলের (১৯৪৭-১৯৭১) সময়কালে ঢাকা নগর প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন ১১ জন চেয়ারম্যান, দুইজন প্রশাসক ও একজন অফিসার ইনচার্জ।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর প্রথমে পৌর করপোরেশন ও সর্বশষ সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত হয় ঢাকা পৌরসভা। ১৯৭১ সালের রাষ্ট্রপতির ৭ নং আদেশ অনুসারে এগুলোর প্রতিটিতে সরকারি প্রশাসক নিয়োগ করা হয়। ১৯৭৩ সালে রাষ্ট্রপতির ২২ নং আদেশ অনুসারে পৌরসভাসমূহে সামান্য পরিবর্তন আনা হলেও এগুলোর কার্যাবলি প্রায় আগের মতোই থাকে। স্বাধীনতার পর ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত চার জন প্রশাসক দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৭ সালের ৩১ অক্টোবর ঢাকা পৌরসভার প্রথম নির্বাচিত মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পান ব্যারিস্টার আবুল হাসনাত।

ঢাকার ক্রমবর্ধমান প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক গুরুত্ব, স্থানীয় সরকার প্রশাসনে জনপ্রতিনিধিত্ব ও করারোপের ব্যাপারে পৌরসভার প্রশাসনিক কাঠামো বিস্তৃত করার  প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। ফলে ঢাকা মিউনিসিপ্যালিটিকে উন্নত করার দাবি উত্থাপিত হওয়ার বাস্তবতায় ১৯৭৮ সালের অক্টোবরে ঢাকা মিউনিসিপ্যালিটিকে মিউনিসিপ্যাল করপোরেশনে উন্নীত করা হয় এবং ১৯৮৩ সালে ‘ঢাকা মিউনিসিপ্যাল করপোরেশন অর্ডিন্যান্স’ নামে একটি স্বতন্ত্র অর্ডিন্যান্স জারি করে সরকার।

১৯৯০ সালে মিউনিসিপ্যাল করপোরেশন থেকে ঢাকা সিটি করপোরেশনে উন্নীত হলে ব্যারিস্টার আবুল হাসনাত প্রথম মেয়র (মনোনীত) হিসেবে দায়িত্ব পান। পরে এক্স-অফিসিও মেয়র হিসেবে অলিউল ইসলাম ও বদিউর রহমান দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯১ সালের ১৯ মে থেকে ১৯৯৩ সালের ২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত মনোনীত মেয়র ছিলেন মির্জা আব্বাস।

১৯৯৩ সালে ‘ঢাকা সিটি করপোরেশন (সংশোধনী) আইন, ১৯৯৩’ জারি করা হয়। এ আইনে মেয়র এবং কমিশনারগণ প্রাপ্ত বয়স্কদের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত হবেন। নতুন আইনে প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯৪ সালে এবং ভোটারদের প্রত্যক্ষ ভোটে একজন মেয়র ও অন্য কমিশনাররা নির্বাচিত হন। ১৯৯৯ সালে সংরক্ষিত ৩০টি আসনে মহিলা কমিশনারদের প্রত্যক্ষ নির্বাচনের বিধান প্রবর্তন এবং মহানগরের ওয়ার্ড সংখ্যা ৯০টিতে উন্নীত করা হয়। অবিভক্ত ঢাকায় মোহাম্মদ হানিফ ও সাদেক হোসেন খোকা জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন।

২০১১ সালের ২৯ নভেম্বর স্থানীয় সরকার সংশোধনী বিল ২০১১ অনুসারে সরকার পূর্ববর্তী ঢাকা সিটি করপোরেশনকে বিলুপ্ত ঘোষণা করে। এ আইন অনুযায়ী ৪ ডিসেম্বর ২০১১ থেকে ঢাকা সিটি করপোরেশনকে দুইটি প্রশাসনিক অঞ্চলে বিভক্ত করার ঘোষণা দেয়া হয়। ২০১২ সালের ১ ফেব্রুয়ারি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন যাত্রা শুরু করে।