বাবার ‘কোথাও কেউ নেই’ ও ‘বহুব্রীহি’ দেখে মুগ্ধ নুহাশ

বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
‘কোথাও কেউ নেই’র সেট ও নুহাশ

‘কোথাও কেউ নেই’র সেট ও নুহাশ

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের করোনা পরিস্থিতিতে ঘরবন্দি দর্শকদের জন্য ৬ এপ্রিল (সোমবার) থেকে হুমায়ূন আহমেদের ‘কোথাও কেউ নেই’ ও ‌‘বহুব্রীহি’ শিরোনামের নব্বই দশকের নন্দিত ধারাবাহিক নাটক প্রচার করছে রাষ্ট্রীয় টিভি চ্যানেল বাংলাদেশ টেলিভিশন।

সম্প্রতি ধারাবাহিক দুটি বিটিভিতে দেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন হুমায়ূন আহমেদের ছেলে তরুণ নির্মাতা নুহাশ হুমায়ূন।

এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে নুহাশ হুমায়ূন জানিয়েছেন, প্রথমবারের মতো দেখছি ‘কোথাও কেউ নেই’। এই অস্থির সময়েও নাটকটি দেখে মনে হচ্ছে, গল্প ও শিল্প একটা ব্যাপার বটে। বাবা ও তাঁর সৃষ্টি এখনো জীবন্ত, এখনো সেগুলো আমাদের স্বস্তি দিচ্ছে, অনুপ্রাণিত করছে। তোমার কথাই ভাবছি বাবা।

নুহাশ হুমায়ূন আরও জানিয়েছেন জানিয়েছেন, ‘বহুব্রীহি’ নাটকটি দেখছি আর ইতিমধ্যে এর প্রেমে পড়ে গিয়েছি। ‘পাবলিকের মুখ তো বন্ধ করে রাখতে পারবেন না, দুলাভাই’ সংলাপটি আজও প্রাসঙ্গিক।

বাংলাদেশ টেলিভিশন জানিয়েছে, মাসজুড়ে রাত ৮টার বিটিভির সংবাদের পর ‘কোথাও কেউ নেই’ প্রচার শুরু হবে, শেষ হওয়ার পরপরই ‘বহুব্রীহি’র প্রচার করা হবে। ‘কোথাও কেউ নেই’ ও ‌‘বহুব্রীহি’ নাটক দুটি প্রযোজনা করেছিলেন বরকত উল্লাহ ও নওয়াজিশ আলি খান।

বাংলাদেশের সর্বকালের অন্যতম সেরা ‘কোথাও কেউ নেই’ ধারাবাহিকটি ১৯৯২-৯৩ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত হয়। যেখানে তুমুল জনপ্রিয়তা পায় ‘বাকের ভাই’। এ চরিত্রে অভিনয় করেন আসাদুজ্জামান নূর। এছাড়া এতে মুনা চরিত্রে সুবর্ণা মুস্তফা, বদি চরিত্রে আবদুল কাদের, মজনু চরিত্রে লুৎফর রহমান জর্জ, মতি চরিত্রে মাহফুজ আহমেদ, বকুল চরিত্রে আফসানা মিমি, উকিল চরিত্রে হুমায়ুন ফরিদীসহ আরো অনেকে অভিনয় করেন।

এর আগে ১৯৮৮-৮৯ সালে বিটিভিতে প্রচারিত হয় পারিবারিক গল্পে ‘বহুব্রীহি’ ধারাবাহিকটি। এ নাটকের বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন আবুল হায়াত, আসাদুজ্জামান নূর, আলী যাকের, আফজাল হোসেন, লুৎফরনাহার লতা, লাকী ইনাম, আবুল খায়ের, আফজাল শরীফসহ আরো অনেকে। ধারাবাহিকটি সে সময় দর্শকদের মাঝে দারুণ সাড়া ফেলেছিল।

আপনার মতামত লিখুন :