মহামারি পেরিয়ে খুলছে আকাশপথ



ড. মাহফুজ পারভেজ, অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম
মহামারি পেরিয়ে খুলছে আকাশপথ

মহামারি পেরিয়ে খুলছে আকাশপথ

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রায়-দুই বছরের করোনা মহামারি পেরিয়ে ধীরে ধীরে খুলছে আকাশপথ। পরিচিত গন্তব্যগুলো আবার চলে আসছে হাতের মুঠোয়। পর্যটন, কেনাকাটা, চিকিৎসার জন্য দ্রুত চলে যাওয়ার সুযোগ উন্মোচিত হয়েছে। ফলে সহজেই সম্ভব হবে আশেপাশের সুবিধাজনক জায়গায় নানা প্রয়োজনে যাওয়া-আসা করা।

চূড়ান্ত খামখেয়ালির প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস কোথাও আক্রমণ শানাচ্ছে, আবার কোথাও মৃত্য ও আক্রান্ত শূন্যের কোঠায়। এশিয়া, আফ্রিকায় মহামারির গতিবেগ যথেষ্ট স্থিমিত হলেও ইউরোপের কোনও কোনও দেশে শোনা যাচ্ছে সতর্কবার্তা।

এমনই দোলাচলের মধ্যে সরকারি ও বেসরকারি বিমানগুলো পাখা মেলতে চলেছে দিগন্তে। যারা ঘরবন্দির গুমোট পরিস্থিতিতে থাকতে থাকতে আড়ষ্ট হয়ে গিয়েছিলেন, তারা মুক্তির স্বাদ পেতে চলেছেন। দুই ডোজ টিকা আর আনুষঙ্গিক সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়ে আকাশে উড়াল দেওয়ার অপেক্ষায় ভ্রমণপ্রিয় মানুষেরা।

এদিকে পায়ে পায়ে শীত এসে কড়া নাড়ছে প্রকৃতির দরোজায়। হেমন্তের শরীর জুড়ে বাড়ছে শীতের বিস্তার। হিমেল বাতাসের টান রেশমি দোলায় আলোড়িত করছে চরাচর। এমন পরিস্থিতি ভ্রমণের জন্য সর্বোৎকৃষ্ট। 

লকডাউনের পর পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হতেই অনেকে ট্রেনের টিকিট কেটে পাড়ি দিয়েছেন নানা জায়গায়। বাসে ঘুরে এসেছেন নিকট-দূরত্বের দর্শনীয় স্থান থেকে। ছুঁয়েছেন ঐতিহাসিক ও নৈসর্গিক স্থাপনা ও ভূমিতট।

আকাশপথ উন্মুক্ত হওয়ায় ভ্রমণের সুযোগ যেমন বেড়েছে, তেমনি দূরত্বও কমেছে। বিশেষত, ভারতের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে পৌঁছানো সহজতর হয়েছে। ভারতে ভ্রমণের হটস্পট 'গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গল' নামে খ্যাত দিল্লি-আগ্রা-জয়পুর। অনেকে আরও উত্তরে হিমালয়ের কোলে সিমলা, কুলু, মানালি, নৈনিতাল, ডালহৌসি ঘুরে আসেন। বিশেষ পরিস্থিতিগত কারণে ভূস্বর্গ কাশ্মীর ভ্রমণ তালিকা থেকে বাদ দিতে হচ্ছে বলে অন্যান্য স্থানগুলোতেই বাড়ছে পর্যটকদের সমাগম।

তবে অধুনা পর্যটকদের প্রধান আকর্ষণ চিকিৎসার সেরা সুবিধাপূর্ণ দক্ষিণ ভারত। সেখানে 'হেলথ ট্যুরিজম' বাড়-বাড়ন্ত। দক্ষিণ ভারত পাঁচটি রাজ্যের সমাহার। অপেক্ষাকৃত ভেতরে কর্নাটক (রাজধানী বেঙ্গালুর), তেলেঙ্গানা ও অন্ধ্রপ্রদেশ (যৌথ রাজধানী হায়দারাবাদ)। সমুদ্র উপকূলের রাজ্য তামিলনাড়ু (রাজধানী চেন্নাই বা মাদ্রাস) আর কেরালা (রাজধানী ত্রিবান্দ্রারাম, প্রধান শহর কোচিন, কালিকট)।

কেরালাকে বলা হয় 'গডস অওন কান্ট্রি' বা 'ঈশ্বরের নিজের দেশ'। পাহাড়, সমুদ্র, বনভূমি, হ্রদ মিলিয়ে কেরালা এক নৈসর্গিক ভূমিপট, যা দক্ষিণ ভারতের পশ্চিম দিকে আরব সাগরের তীরে মালবার উপকূলে অবস্থিত। পূর্ব দিকের তামিলনাড়ু বঙ্গোপসাগরের তীরে করমণ্ডল উপকূলে অবস্থিত। উপকূল দুইটি মিলিত হয়েছে উপমহাদেশের সর্বদক্ষিণ বিন্দু কন্যাকুমারীতে, যেখানে দেখা যায় বঙ্গোপসাগর, ভারত মহাসাগর ও আরব সাগরের সঙ্গম।

তামিলনাড়ুর রাজধানী চেন্নাই দক্ষিণ ভারতের প্রধানকেন্দ্র, যার সঙ্গে বাংলাদেশের সরাসরি আকাশপথে সংযোগ রয়েছে। পর্যটন ও চিকিৎসার জন্য চেন্নাই ভারতের 'হেলথ ক্যাপিটাল'-এর মর্যাদা পেয়েছে। সারা ভারতের লোকজনই সেখানে ছুটে যান বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে। মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা, শ্রীলংকা ও বাংলাদেশের মানুষও বিপুল সংখ্যায় সেখানে ভিড় করেন।

বাংলাদেশের সরকারি-বেসরকারি বিমানগুলো চেন্নাইকে পপুলার ও ইকোনমিক টুরিস্ট ডেসটিনেশন হিসেবে প্রমোট করতে কিছু পদক্ষেপ নিলে তাদের ব্যবসা বাড়বে। বিভিন্ন প্যাকেজ, পরিকল্পনা ও সুবিধাজনক স্কিম দিয়ে মানুষকে আকৃষ্ট করা যেতে পারে। চেন্নাই ভ্রমণের নানাবিধ সুযোগ ও সুবিধার বিষয়েও বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করতে পারে বিমান সংস্থাগুলো। মহামারি পেরিয়ে আকাশপথ উন্মুক্ত হওয়ার সুযোগ নিতে পারে সংশ্লিষ্ট সবাই।