দেশে আটকে পড়া ইতালি প্রবাসীদের নিষেধাজ্ঞা শিথিল



ইসমাইল হোসেন স্বপন, ইতালি থেকে
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশসহ ১৬টি দেশ থেকে ইতালিতে প্রবেশের চলমান নিষেধাজ্ঞা কিছুটা ইতিবাচক শিথিলতা করা হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা কমিয়ে আগামী ১৪ অক্টোবর থেকে ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছে।

ইতালিয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ ভায়াগগিয়ার সিচুরি (Viaggiare Sicuri) এবং ইতালিয়ান সিভিল এভিয়েশন অথরিটি (ENAC) বিষয়টি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষকে নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, নতুন ডিপিসিএম এ যাদের 'কার্তা সৌজন্য' আছে এবং তাদের পরিবারের সদস্য, যারা ৯ই জুলাই ২০২০ এর আগে ইতালিতে অবস্থান করেছেন, প্রাথমিকভাবে তারাই ১৪ই অক্টোবর থেকে ইতালি ফেরার অনুমতি পাচ্ছেন।

উভয় দেশের ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ চূড়ান্ত অনুমোদন নিশ্চিতকরণ এবং পরবর্তী করণীয় পদক্ষেপসমূহ বিস্তারিত জানার জন্য ১ থেকে ২ দিন অপেক্ষা করার প্রয়োজন হতে পারে।

তবে শর্ত হিসেবে কোভিড-১৯ পরীক্ষার নেগেটিভ সার্টিফিকেট নিয়ে আসা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ইতালি পৌঁছার পর বিমানবন্দরে আবার তাদের কোভিড ১৯ পরীক্ষা করা হবে। ইতালিতে যাওয়ার পর ১০ দিন কোয়ারেন্টিন পালন করতে হবে। এবার কেউ আইন ভঙ্গ করলে, তাকে জেল জরিমানা করা হবে এবং ইতালির রেসিডেন্ট পার্মিট বাতিল করার সম্ভাবনাও রয়েছে।

গত মে-জুলাই মাসে কয়েকটি চার্টার্ড বিমানে করে বাংলাদেশিরা ইতালিতে এসেছিল এবং এসে তারা করোনাভাইরাস নিয়ে কোয়ারেন্টিন না মেনে ঘুরাফেরা করেছেন। করোনা আক্রান্ত রোগী ও করোনার ভুয়া সার্টিফিকেটের কারণে বাংলাদেশিদের ইতালিতে প্রবেশ দ্বার বন্ধ করে দিয়েছিলো ইতালির সরকার। এতে করে বাংলাদেশে আটকে পড়ে প্রায় ১০ হাজার ইতালি প্রবাসী। এদের অনেকেই ইতিমধ্যেই চাকরি হারিয়েছেন। বেকার হওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন বাকিরা।

ইতালিতে ফিরে আসার জন্য ইতিমধ্যে প্রবাসী বাংলাদেশিরা বাংলাদেশে ইতালিয়ান দূতাবাসের সামনে মানববন্ধন করেছে। আগামী ১৯শে অক্টোবর প্রবাসীদের পক্ষে ৫ সদস্যের প্রতিনিধিদল বাংলাদেশের নিযুক্ত ইতালির মান্যবর রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন তাদের সকলকে সহজে ইতালি ফিরতে দেওয়ার জন্য।