আন্তর্জাতিক দূতাবাস বাজার, বাহরাইনে বাংলাদেশ স্টল প্রশংসিত



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাহরাইনে শিশু ও মাতৃকল্যাণ সোসাইটির (Children and Mothers Welfare Society) সদর দপ্তরে ‘আন্তর্জাতিক দূতাবাস বাজার-২০২২’ অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় আর্টস কাউন্সিল (National Council of Arts) এর প্রেসিডেন্ট- এর সহধর্মিণী শাইখা লুলু আল-কারীমাহ এ মেলার উদ্বোধন করেন। প্রতি বছরের ন্যায় এ মেলায় অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ দূতাবাস।

বাহরাইনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের সহধর্মিণী মিসেস নাজমুন নাহার হাবীব দূতাবাসের কর্মকর্তাদের স্ত্রীদের সাথে নিয়ে এ মেলায় বাংলাদেশ স্টল পরিচালনা করেন। বিদেশী রাষ্ট্রসমূহের কূটনীতিকদের স্ত্রীগণ, কুটনীতিকবর্গ ও তাদের পরিবারের সদস্যসহ বাহরাইন রাজ পরিবারের সদস্যগণের বিপুল উপস্থিতিতে সকাল ১০ টা হতে শুরু হয়ে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত এই মেলা চলে।

এ মেলায় বাহরাইনস্থ সকল দূতাবাস তাদের ঐতিহ্যবাহী পণ্য বা খাবারের স্টল নিয়ে বসে। এর মধ্যে বাংলাদেশের হস্তশিল্প, নকশী কাঁথা এবং বাংলাদেশী এনজিও তরঙ্গের হরেক রকমের হাতের তৈরি পাটজাত পণ্য কেনার লক্ষ্যে বাংলাদেশ স্টলে বিদেশীদের ভীড় ছিল চোখে পড়ার মতো।

বাহরাইনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ড. মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম ‘বাংলাদেশ স্টল’ সহ এ মেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন। তিনি বলেন, “মানবতার কল্যাণে অর্থ সংগ্রহের লক্ষ্যে প্রতিবছরই ‘শিশু ও মাতৃকল্যাণ সোসাইটি’ এ মেলার আয়োজন করে থাকে যা সত্যিই প্রশংসনীয় এবং এ রকম অনন্য উদ্যোগে বাংলাদেশ স্টলের সক্রিয় অংশগ্রহন ও ভূমিকা মানবিক কূটনীতিতে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের অবস্থান সুদৃঢ় করেছে”।

বাংলাদেশের কৃষ্টি, সংস্কৃতি, আতিথেয়তা ও ঐতিহ্য আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তুলে ধরার ক্ষেত্রে এ বাজার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে মর্মে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন।

ইতালিতে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপন



ইসমাইল হোসেন স্বপন ইতালি থেকে
ইতালিতে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপন

ইতালিতে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপন

  • Font increase
  • Font Decrease

জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনের মধ্য দিয়ে ইতালির মিলান লোম্বার্দিয়া আওয়ামী লীগ স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপন করেছে।

স্থানীয় সময় শনিবার (২৫ জুন) মিলানস্থ একটি অভিজাত রেস্তোরাঁয় এক আনন্দ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপনে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনসহ সাধারণ প্রবাসীরা এতে অংশ নেয় ।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুল মান্নান মালিথা।এছাড়া আরও বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক নাজমুল কবির জামান, সদস্য আকরাম হোসেন, সহ সভাপতি আবু আলম, খোরশেদ আলম, অপু হোসাইন, যুগ্ম সম্পাদক চঞ্চল রহমান, মঞ্জুরুল হোসেন সাগর, সাংগঠনিক সম্পাদক আরফান সিকদার, প্রচার সম্পাদক মামুন হাওলাদার, মমিনুর রহমান, মিজান হাওলাদার, মিলান বাংলা প্রেসক্লাব ইতালির সভাপতি রিয়াজুল ইসলাম কাওছার, ইব্রাহিম মিয়া, শামিম হাওলাদারসহ অনেকে।

পদ্মা সেতুর আনন্দে কেক কেটে আনন্দ ভাগাভাগি করেন নেতাকর্মীরা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইমরান হোসাইন, আব্দুল বাছিত, জাসিম আহমেদ, ফয়সাল খান, মাসুদ হাওলাদার, তাজুল খানসহ অনেকে। পদ্মা সেতুর বাস্তবায়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বক্তারা।

;

‘পদ্মা সেতু ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশের নতুন সম্ভাবনা’



কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে
স্পেনে উৎসাহ ও উদ্দীপনায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উদযাপন

স্পেনে উৎসাহ ও উদ্দীপনায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উদযাপন

  • Font increase
  • Font Decrease

দীর্ঘ অপেক্ষার পর শনিবার (২৫ জুন) স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশের ইতিহাসে অবকাঠামো হিসেবে সবচেয়ে বড় এ প্রকল্পটি উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থায় নতুন দিগন্তের উন্মোচন হয়েছে। দেশের জন্য ঐতিহাসিক এ দিনটিতে বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনায় স্পেনস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উদযাপন করা হয়েছে।

শনিবার (২৫ জুন) স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় দূতাবাস মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত বিশেষ এ আনন্দ উৎসবে দূতালয় হল বর্ণাঢ্য ব্যানার ও পোস্টারে সুসজ্জিত করা হয়। আমন্ত্রিত অতিথিসহ দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে বিশেষ এই অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর প্রেরিত বাণী পাঠ করে শোনানো হয়।

আনন্দমুখর বিশেষ এ উৎসবে প্রবাসীদের স্বাগত জানান স্পেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ। দূতাবাসের প্রথম সচিব (শ্রম) মো. মোতাসিমুল ইসলামের প্রাণবন্ত উপস্থাপনায় এসময় বাংলাদেশ দূতাবাসের মিশন উপ-প্রধান এটিএম আব্দুর রউফ মন্ডল, বাণিজ্যিক সচিব রেদোয়ান আহমেদ, কউন্সিলর দীন মোহাম্মদ ইমাদুল হক উপস্থিত ছিলেন।

বিশেষ এই উৎসবে রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ তার বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিকের জন্য আজ অত্যন্ত আনন্দের দিন। বাংলাদেশ সময় আজ সকালে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ বহুল আকাঙ্ক্ষিত স্বপ্নের পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন করেছেন। এটি বাংলাদেশের ইতিহাসের বিস্ময়। আমাদের জাতীয় জীবনে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে আজ এক বিশাল মাইলফলক অর্জিত হয়েছে।

রাষ্ট্রদূত সারওয়ার মাহমুদ বলেন, পদ্মা সেতু ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশের নতুন বাণিজ্য, সম্ভাবনা তৈরি করার পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগ ও বাংলাদেশের ইমেজ বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতু বাংলাদেশের রাজনৈতিক মর্যাদা, স্বনির্ভরতা, সাহস, সক্ষমতা ও আত্মবিশ্বাসের প্রতীক। বিশ্বে আমাজনের পরে দ্বিতীয় খরস্রোতা পদ্মা নদীর উপরে সেতু নির্মাণ করে বাংলাদেশ অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তিনি তার বক্তব্যে পদ্মা সেতু নির্মাণে প্রবাসীদের অবদানকেও শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। তিনি প্রবাসের সকল বাংলাদেশি নাগরিককে স্ব স্ব অবস্থান থেকে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ স্পেন শাখার সভাপতি এসআরআইএস রবিন, সাধারণ সম্পাদক রিজভী আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক বদরুল কামালী, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট তারেক হোসেন।

অনুষ্ঠানে পদ্মা সেতুর উপর নির্মিত ভিডিও ডকুমেন্টারিসহ প্রধানমন্ত্রীর পদ্মাসেতু উদ্বোধনের ভিডিও ক্লিপস প্রদর্শন করা হয়। রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ আমন্ত্রিত অতিথিদের নিয়ে কেক কেটে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উদযাপন করেন।

পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ জাতীয় চার নেতা এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদের রুহের মাগফিরাত, পদ্মা সেতুর স্থায়ীত্ব এবং দেশ ও জাতির উন্নতি ও সমৃদ্ধি কামনায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত বাংলাদেশিরা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান এবং সেতুর সাথে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

;

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে বাহরাইনে দূতাবাসের আনন্দ উৎসব



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে বাহরাইনে দূতাবাসের আনন্দ উৎসব

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে বাহরাইনে দূতাবাসের আনন্দ উৎসব

  • Font increase
  • Font Decrease

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে বাহরাইনের বিখ্যাত ডিলমানিয়া মলে বাংলাদেশ দূতাবাসে এক উৎসব অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

শনিবার (২৫ জুন) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে বিদেশি কূটনীতিক, বাহরাইনের সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, লেখক, শিল্পী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিবর্গসহ, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক, বাংলাদেশ স্কুলের শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রী এবং বাহরাইনে বসবাসরত বাংলাদেশি প্রবাসীরাসহ দূতাবাসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানটি তিন পর্বে বিভক্ত করা হয়। প্রথম পর্বে পদ্মা বহুমুখী সেতুর উপর নির্মিত প্রামান্যচিত্র প্রদর্শন ও আলোচনা, দ্বিতীয় পর্বে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং সর্বশেষে চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়।

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে রাষ্ট্রদূত ড. মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম তার বক্তব্যে বলেন, পদ্মা সেতু হলো বাংলাদেশের জন্য একটি গর্বের সেতু। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় প্রত্যয় ও আত্মবিশ্বাসের কারণে এই পদ্মা সেতু নির্মিত হয়েছে। তিনি এই আনন্দক্ষণে প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বের ভূয়সী প্রসংশা করেন এবং বাহরাইন প্রবাসীদের পক্ষ থেকে আন্তরিক অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানান।

তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতুর মাধ্যমে বাংলাদেশে যোগাযোগের নতুন মাত্রা উন্মোচিত হলো, যা বাংলাদেশের ২১টি জেলার মানুষের জীবনমান বদলে দিবে।

রাষ্ট্রদূত ড. ইসলাম বলেন, ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতুটি কোন বিদেশি সাহায্য ব্যতিরেখে সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণ করা হয়। সমস্ত দেশি-বিদেষি ষড়যন্ত্রকে উপেক্ষা করে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উচ্চ আয়ের দেশে বাংলাদেশকে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করে চলছেন। দেশের উন্নয়নে দলমত নির্বিশেষে সকলকে একযোগে কাজ করার জন্য রাষ্ট্রদূত প্রবাসীদের আহবান জানান।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে রাষ্ট্রদূত অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের সাথে নিয়ে দূতাবাস কর্তৃক আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন যেখানে বাংলাদেশ স্কুল, বাহরাইনের শিক্ষার্থীরা তিনটি দেশীয় গানের সাথে মনোমুগ্ধকর নৃত্য পরিবেশন করেন। এরপর, রাষ্ট্রদূত আগত অতিথিদের সাথে ফটোগ্রাফি প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন। প্রদর্শনীতে বাংলাদেশের অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও ঐতিহাসিক স্থানসমূহের এমন সৌন্দর্য্যপূর্ণ ছবি দেখে দেশি-বিদেশি দর্শনার্থীরা বাংলাদেশ সম্পর্কে জানতে পেরে আনন্দিত হন।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে রাষ্ট্রদূত অনুষ্ঠানে আগত সকল অতিথি, দর্শনার্থী, বাংলাদেশ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

পরিশেষে, দীর্ঘ প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতুর মাধ্যমে যাতে বাংলাদেশের মানুষ উপকৃত হতে পারে তার জন্য দোয়া কামনা করা হয় এবং উপস্থিত সকলের মাঝে দেশীয় খাবার পরিবেশন করার মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

;

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন: স্বপ্ন পুরনের আনন্দের ঢেউ স্পেনে



কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে
পদ্মা সেতু

পদ্মা সেতু

  • Font increase
  • Font Decrease

অবশেষে দীর্ঘ অপেক্ষার অবসান হচ্ছে। বাংলাদেশের কোটি মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হতে চলেছে আজ ২৫ জুন। এক সময়ের স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে চোখ জুড়াচ্ছে কোটি বাঙালির। বহুল প্রতীক্ষিত লাল-সবুজের গর্বের এই পদ্মা সেতুর গৌরবগাঁথা এবার পৌঁছে গেলো ইউরোপের পর্যটন ও ফুটবলের দেশ খ্যাত স্পেনে।

দেশে-বিদেশে আলোচিত পদ্মা সেতুর স্বপ্ন পুরনের আনন্দের ঢেউ আছড়ে পড়ছে সাত সমুদ্র তের নদীর ওপারে সুদুর স্পেনে বসবাসরত বাংলাদেশিদের মাঝেও।

পদ্মা সেতু নির্মাণ হওয়ায় দেশের মানুষের ন্যায় উচ্ছ্বাসিত স্পেনে বসবাসরত প্রায় ৫০ হাজার বাংলাদেশিও।

বিশ্ব দরবারে পদ্মা সেতুর পটভূমি ও আগমনী বার্তা তুলে ধরতে এবং সেতুর উদ্বোধনকে আরও স্মরণীয় করে রাখতেই স্পেনস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে প্রবাসীদের নিয়ে ভিন্নধর্মী বিশেষ আনন্দ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে।

বহুল প্রতীক্ষিত স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের দিনকে বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন অভিহিত করে দূতাবাসের মিশন উপ-প্রধান এটিএম আব্দুর রউফ মন্ডল জানান, পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে স্মরণীয় করে রাখতে আজ ২৫ স্থানীয় সময় দুপুর ১২টায় দূতাবাস হলে এক আনন্দ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। এ জন্য কমিউনিটি নেতৃবৃন্দসহ সাংবাদিকদের উপস্থিত থাকার আহবান জানান তিনি।

আজ ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেন স্বপ্নের পদ্মা সেতু। ২৬ জুন সকালে সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে সেতুটি। সাত সমুদ্দুর তেরো নদীর এপারেও তাই সেই আনন্দের ছটা। চায়ের আড্ডা থেকে শুরু করে রেস্তোরাঁ কিংবা ঘরোয়া আড্ডায় প্রবাসীদের এখন একটাই আলোচনার বিষয়। কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ায় বর্তমান সরকারের ভূঁয়সী প্রশংসার পাশাপাশি সেদিনের বিরোধিতাকারীদেরও সমালোচনায় মুখর প্রবাসীরা।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনকে স্বাগত জানিয়ে, দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সরওয়ার মাহমুদ বলেন, পদ্মা সেতু বাংলাদেশের মানুষের মর্যাদা ও সক্ষমতার প্রতীক।‘দেশ স্বাধীন করার সময় যেভাবে গোটা জাতি এক হয়েছিল, সেভাবে পদ্মা সেতুর জন্যও দেশে -বিদেশে সবাই এক হয়েছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সময় যেভাবে দেশের মানুষ তার জন্য অপেক্ষা করেছিলেন, ঠিক সেভাবেই এখন দেশের মানুষ পদ্মা সেতুর জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন।স্বাধীনতার পর একমাত্র পদ্মা সেতুর জন্যই আবারও গোটা জাতি এক হয়েছে।

বাংলাদেশ দূতাবাস স্পেনের বাণিজ্যিক সচিব রেদোয়ান আহমেদ বলেন, পদ্মার বুকে মাথা উচূ করে দাঁড়ানো সেতুটি আজ থেকে হয়ে উঠেছে বাংলাদেশের আশা আকঙ্ক্ষার প্রতীক। পদ্মা সেতু নির্মাণের মাধ্যমে বিশ্বে বাংলাদেশে বড় বিনিয়োগের জন্য আস্থা তৈরি করেছে। পদ্মা সেতু ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশের নতুন বাণিজ্যের সম্ভাবনা তৈরি করার পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগ ও বাংলাদেশের ইমেজ বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

স্পেন আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা জাকির হোসেন বলেন, সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে শেখ হাসিনা নিজেই পদ্মা সেতু করলেন। আজ সেই নদীর বুক চিরে পদ্মা সেতু দাঁড়িয়ে যেন বঙ্গবন্ধুকেই কুর্নিশ করছে। এই সেতুর ফলে এখানকার জনপদে উন্নয়নের আলো ছড়িয়ে পড়েছে। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আনন্দ উৎসব করা হবে জানিয়ে স্পেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বদরুল কামালী বলেন, যারা পদ্মা সেতুর বিরোধিতা করেছিল, তাদের বাংলাদেশের মানুষের কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত।

;