স্পেনে কর্মহীন প্রবাসীদের দূতাবাসের আর্থিক সহায়তা

কবির আল মাহমুদ, স্পেন
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে স্পেনে ১৩ মার্চ থেকে লকডাউন চলছে। এ অবস্থায় অভিবাসী বাংলাদেশিদের অনেকেই আর্থিক সংকটে পড়েছেন। এদের অধিকাংশই আয়-রোজগার থেকে বঞ্চিত হয়ে সপরিবারে দুর্বিষহ দিন যাপন করছে।

স্থানীয় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের সহযোগিতায় বাংলাদেশি সামাজিক সংগঠনগুলো প্রায় ২ হাজার অসহায় ব্যক্তিকে চিহ্নিত করে চাল, ডাল, তেলসহ অতি প্রয়োজনীয় খাবার সরবরাহের কার্যক্রম চলমান রাখছে।

প্রবাসীদের জন্য বাংলাদেশ সরকারের সহায়তার অংশ হিসেবে বাংলাদেশ দূতাবাসও ওয়েজ অনার্স কল্যাণ বোর্ড থেকে দুই দফায় প্রাপ্ত ২৫ লাখ টাকা এবং দূতাবাসের কর্মকর্তারা তাদের ব্যক্তিগত ফান্ড থেকে ১ হাজার ইউরোসহ মোট ২৮ হাজার ইউরোর আর্থিক সহায়তা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। চলমান এই নগদ অর্থ সহায়তা কর্মসূচিতে দূতাবাস কর্তৃক ৯৩৩ জন ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় অভিবাসীর নামও সংগ্রহ করা হয়।

২ মে থেকে ১১ মে পর্যন্ত দূতাবাসের পক্ষ থেকে ৮০৮ জন অভিবাসী বাংলাদেশিকে এ সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। এদের মধ্যে রাজধানী মাদ্রিদে রয়েছেন ৪০০ জন এবং পর্যটন নগরী বার্সেলোনায় অনারারী কনস্যুলেটের রামোন পেদ্রোর মাধ্যমে প্রায় ৪৫৩ বাংলাদেশী অভিবাসীকে অর্থ সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে । এছাড়া মালাগা, টেনেরিফ, মায়োর্কা, সেভিয়া অঞ্চলে আরো ৮০ জন অভিবাসীকে এই অর্থ সহায়তা প্রদান করা হবে। দূতাবাসের অধীনে অভিবাসীদের জন্য এ সহায়তা কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

এর আগে দূতাবাস এক বিজ্ঞপ্তিতে কোনো প্রবাসী বাংলাদেশি যদি চরম খাদ্যাভাবে পড়েন এবং বেতন না পান, সে ক্ষেত্রে দূতাবাসের ই–মেইলে ফেইসবুক পেইজ ও হট-লাইন অথবা হোয়াটসঅ্যাপে তথ্য প্রদানের অনুরোধ জানানো হয়। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে আর্থিক সংকটে পড়া এই ৯৩৩ জন অধিবাসী আবেদনকারীদের তালিকা তৈরি করা হয়। তালিকা ধরে আর্থিক সহায়তা পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য,বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রকোপে বিশ্বের দ্বিতীয় ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হচ্ছে স্পেন। ইতিমধ্যে দেশটিতে তিন শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশি ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এবং তিনজনের মৃত্যু হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :