স্পেনে মৃতদের স্মরণে ১০ দিনের রাষ্ট্রীয় শোক

কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে
স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে স্পেনের জীবনযাত্রা

স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে স্পেনের জীবনযাত্রা

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছে স্পেন। বিগত দুই সপ্তাহ জুড়ে দেশটিতে করোনা পরিস্থিতিতে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমশ হ্রাস পাচ্ছে। সর্বশেষ গত বুধবার (২৭ মে) করোনায় মৃতের সংখ্যা কেবল একজন ছিল। করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার কমতে থাকায় স্বাভাবিক হচ্ছে স্পেনের জীবনযাত্রা।

আগামী ৭ জুন থেকে তুলে নেওয়া হচ্ছে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। খুলবে বিমানবন্দর। চালু হচ্ছে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট। একই সঙ্গে পর্যটনের হাল ফিরিয়ে আনতে এরইমধ্যে পরিকল্পনা শুরু করেছে স্পেন সরকার।

স্পেনে করোনাভাইরাস মহামারিতে মৃত ব্যক্তিদের শ্রদ্ধা জানাতে ১০ দিনের বিশেষ শোক ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। বুধবার থেকে শুরু হয়ে আগামী ১০ দিন অর্থাৎ ৫ জুন পর্যন্ত দেশজুড়ে জাতীয় শোক পালন করা হবে বলে দেশটির মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

গত মঙ্গলবার শোক পালনের বিষয়ে স্পেন সরকারের মুখপাত্র মারিয়া জেসুস, এ সময় দেশের সরকারি ভবনগুলোতে পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে। নৌবাহিনীর জাহাজেও পতাকা অর্ধনমিত থাকবে।

ওয়াল্ডওমিটারের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে সারা বিশ্বে আক্রান্তের দিক থেকে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে স্পেন। ইউরোপের এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ২৭ হাজার ১১৮ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৮৩ হাজার ৮৪৯ জন।

মৃতদের স্মরণে রাষ্ট্রীয় শোক পালন করা হবে

করোনায় সংক্রমণ এবং মৃত্যু কমে আসায় দেশটিতে লকডাউনে শিথিলতা আনা হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও খুলে দেওয়া হয়েছে কলকারখানা, বাণিজ্যিক বিভিন্ন সেক্টর এবং গণপরিবহন। জুনের প্রথম সপ্তাহের শেষের দিকে লকডাউন তুলে নেওয়ার প্রস্তাবনা দেশটির সংসদে দেওয়া হয়েছে। নতুন কোন ঘোষণা না আসলে পূর্ব-নির্ধারণী অনুযায়ী ৭ জুন দেশটির জরুরী অবস্থা তুলে নেওয়া হবে। তবে বাইরে চলাচলের ক্ষেত্রে বিরাজমান থাকবে বেশ কিছু শৃঙ্খলা বিধান।

এদিকে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে ইউরোপে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ দুটি দেশ স্পেন ও ইতালির জন্য ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ) সাড়ে ৭ লাখ মিলিয়ন (৭৫ হাজার কোটি) ইউরোর আর্থিক সহযোগিতা ঘোষণা করেছে। করোনা মহামারি পরবর্তী অর্থনৈতিক বিপর্যয় কাটিয়ে ওঠার ক্ষেত্রে সহযোগিতার উদ্দেশ্যে ইইউ এই ঘোষণা দিল।

এ ঘোষণায় স্পেনের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১ লাখ ৪০ হাজার মিলিয়ন (১৪ হাজার কোটি) ইউরো। যা ভবিষ্যতে ইইউকে পরিশোধ করতে হবে না। শুধু কন কোন খাতে খরচ করেছে, সেই হিসেব দিতে হবে।

করোনা মহামারিতে আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যে ইতালির পরে স্পেনের জন্যই সর্বোচ্চ পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ করেছে ইইউ।

আপনার মতামত লিখুন :