ব্রহ্মপুত্র নদে বাঁধের পরিকল্পনা চীনের, দুশ্চিন্তায় ভারত



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইয়ারলাং জ্যাংবো নামে পরিচিত এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ নদ ব্রহ্মপুত্রে বাঁধ নির্মাণ করে বিশাল পানিবিদ্যুৎ প্রকল্পের উদ্যোগ নিয়েছে চীন। বেজিংয়ের ১৪তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার অংশ হিসাবে এই প্রকল্প বাস্তবায়িত করা হচ্ছে।

চীনের সংবাদ মাধ্যম ডেইলি গ্লোবাল টাইমসের এক প্রতিবেদনে এই  তথ্য জানা গেছে। ভারতে প্রবেশের মুখে অরুণাচল সীমান্তের কাছে তিব্বতের মেডগ কাউন্টিতে ব্রহ্মপুত্র নদের ওপর এই বাঁধটি নির্মাণ করা হবে। চীনের এই সিদ্ধান্তে চিন্তা বেড়েছে ভারতের। পানি সংকটে পড়তে হতে পারে উত্তর-পূর্ব ভারতের মানুষকে। এর কারণ ব্রহ্মপুত্র নদের অববাহিকার বেশিরভাগ ভারতের মধ্যে দিয়ে বয়ে গেছে। তাতে ব্রহ্মপুত্র-নির্ভর মানুষেরা নানা সমস্যায় পড়তে পারেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তবে শুধু ভারত নয় বাংলাদেশের জন্যও তা অশনি সংকেত হতে পারে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

চীনের শক্তি উৎপাদন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান ইয়ান ঝিয়াং জানিয়েছেন, ইয়ারলুং জাংবো নদের তলদেশে সরকারের বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্পের পরিকল্পনা রয়েছে। যেটি দেশের একাধিক অংশের মূল পানি সরবাহের উৎস হয়ে দাঁড়াবে। তেমনই বিদ্যুৎ সরবরাহ ও নিরাপত্তাতেও সাহায্য করবে। এই প্রকল্পটির মাধ্যমে পানি সম্পদ এবং অভ্যন্তরীণ সুরক্ষা বজায় রাখা যাবে।

চীনের শক্তি উৎপাদনের ইতিহাসে এটি একটি মাইলফলক হয়ে থাকবে। আগামী বছরের শুরুর দিকে জাতীয় পিপলস কংগ্রেসের(এনপিসি)আনুষ্ঠানিক অনুমোদনের পরে পরিকল্পনাটির বিশদ জানা যাবে বলে জানান তিনি।

চীনের ব্রহ্মপুত্র নদের ওপর বাঁধের প্রস্তাবে ভারত এবং বাংলাদেশ উদ্বেগ প্রকাশ করেছে । যদিও চীন তাদের স্বার্থের জন্য উদ্বেগ নিয়ে ভাবছে না বা ভাববেও না বলে জানা গেছে। কারণ বাঁধ থেকে বছরে ৬ কোটি কিলোওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে, যা বার্ষিক ৩০০ বিলিয়ন কিলোওয়াট কার্বনমুক্ত ও পুনর্ব্যবহারযোগ্য বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে। বছরে ৩০০ কোটি ডলার আয় হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এর আগে  বারবার চীনের সরকারকে অনুরোধ করেছে ভারত, নদীর উচ্চগতিতে যেন এমন কিছু বানানো না হয়, যাতে নিম্নগতির কোনো ক্ষতি হয়। তবে ভারতের দাবি উপেক্ষা করেই ব্রহ্মপুত্র নদীর উৎসের কাছে তিব্বতে বিশাল বাঁধ ও জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের কথা ঘোষণা করল চীন।