মমতার 'খেলা হবে' স্লোগান আসছে জাভেদ আখতারের গানে



মায়াবতী মৃন্ময়ী, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
দিল্লিতে মমতার সঙ্গে জাভেদ আখতার-শাবানা আজমি। সংগৃহীত

দিল্লিতে মমতার সঙ্গে জাভেদ আখতার-শাবানা আজমি। সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

'খেলা হবে' স্লোগান দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ থেকে বিজেপি হটানোর অভিজ্ঞতায় সর্বভারতীয় স্তরে গান হতে যাচ্ছে এই রাজনৈতিক উত্তেজক ধ্বনি। পাঁচ দিনের দিল্লি সফররত পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কবি ও গীতিকার জাভেদ আখতারকে এই স্লোগান থেকে গান তৈরির অনুরোধ করেছেন।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) জাভেদ ও তাঁর স্ত্রী অভিনেত্রী শাবানা আজমির সঙ্গে মমতার সাক্ষাৎকালে ২০২৪ সালের ভারতের জাতীয় নির্বাচনে মোদী বিরোধী জোট গড়া প্রসঙ্গে এই স্লোগানও আলোচনায় আসে। বাংলার এই স্লোগান সর্বভারতী স্তরে উর্দু ও হিন্দির মিশেলে গান তৈরির অনুরোধ জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন জাভেদ-শাবানা। মমতাই কী এবার প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী? তিনিই কি মোদী বিরোধী জোটের মুখ? সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে জাভেদ আখতার বলেন, 'কে নেতৃত্ব দেবেন সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। দেশে পরিবর্তন আনাটাই মৌলিক বিষয়। আমার বিশ্বাস ২০২৪ সালে পরিবর্তন আসবেই। দেশের গণতান্ত্রিক পরিস্থিতি আরও উন্নত হবে। দেশের সার্বিক পরিস্থিতির পরিবর্তন হবে।'

জাভেদ-শাবানা দু'জনেই মোদী বিরোধী শিল্পী হিসেবেই পরিচিত। সে ক্ষেত্রে ঠারেঠোরে জাভেদ-শাবানা এদিন বুঝিয়ে দেন, মোদী বিরোধী জোটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি। তাঁদের কাছে সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিল, 'আপনার কি মনে হয় খেলা হবে (Khela Hobe) গানটির বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে?' উত্তরে বহু সুপার-ডুপার ছবির গীত ও সংলাপ রচয়িতা বর্ষীয়ান জাভেদ আখতার বলেন, 'আপনাদের কি এখনও সংশয় রয়েছে এই নিয়ে? খেলা হবে খেল দেখিয়েছে কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন থাকার কথাই নয়।'

জাভেদের এই বক্তব্যকে ইঙ্গিতপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ। দু'জনেই বামপন্থী মতাদর্শে বিশ্বাসী শিল্পী হিসেবেই পরিচিত। সব মিলিয়ে দিল্লিতে মমতার সঙ্গে জাভেদ-শাবানার এই সাক্ষাৎ রাজনৈতিক দিক থেকে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ।

এদিকে, কংগ্রেসের একাধিক শীর্ষ নেতাসহ সোনিয়া গান্ধী ও রাহুল গান্ধীর সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন মমতা। এতে ২০২৪ সালের নির্বাচনের আগেভাগে মোদী বিরোধী জোটের প্রাথমিক আলাপ-আলোচনা হয়েছে বলেও মনে করছেন বিশ্লেষকেরা।