রাশিয়ায় কয়লাখনি দুর্ঘটনায় ১১ শ্রমিক নিহত



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাশিয়ার সাইবেরিয়া অঞ্চলের একটি কয়লাখনিতে দুর্ঘটনায় অন্তত ১১ জন শ্রমিক নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় গভর্নর। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন খনিতে আটকা পড়েছেন। তাদের উদ্ধারে অভিযান শুরু হলেও পরে স্থগিত হয়ে যায় বলে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা তাস জানিয়েছে তুষারঢাকা কেমেরোভো অঞ্চলের লিস্টভিয়াঝনিয়া কয়লাখনিতে অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে।

 স্থানীয় গভর্নর সের্গেই সিভিলেভ বলেছেন, খনিতে অতিমাত্রায় মিথেন ও কার্বন ডাই–অক্সাইড গ্যাসের উপস্থিতি রয়েছে। তাই খনিটি বিস্ফোরণের প্রচণ্ড ঝুঁকিতে রয়েছে। এ কারণে গ্যাস না কমা পর্যন্ত তারা উদ্ধার ও তল্লাশি অভিযান স্থগিত করেছেন।

সিভিলেভ আরও বলেছেন, ওই ঘটনায় ৩৫ জন খনিতে আটকা পড়েছেন। আহত কয়েক ডজন শ্রমিককে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তাদের অনেকেই ধোঁয়া ও গ্যাসের বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত। চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

রাশিয়ার রাজধানী মস্কো থেকে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কিলোমিটার পূর্বে অবস্থিত কেমেরোভো খনি অঞ্চলে কয়েক বছর ধরেই প্রাণঘাতী খনি দুর্ঘটনা ঘটছে। বৃহস্পতিবার যে খনিতে দুর্ঘটনা ঘটেছে, সেটি বেসরকারি সার্বিয়ান বিজনেস ইউনিয়নের এসডিএস হোল্ডিংয়ের মালিকানাধীন। দুর্ঘটনার পরে তাৎক্ষণিকভাবে এ ইউনিয়নের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এদিকে উদ্ধার অভিযান স্থগিত হওয়ার আগে স্থানীয় গভর্নর দাবি করেছিলেন, খনিটিতে বিদ্যুৎ ও ভেনটিলেশন ব্যবস্থা চালু রয়েছে। কিন্তু আটকে পড়া শ্রমিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হচ্ছে না। তিনি আরও বলেন, ‘এখন আর সেখান থেকে ধোঁয়া বের হচ্ছে না, এ কারণে আমরা আশা করছি আগুন নিভেছে।’

দুর্ঘটনার সময় খনিতে ২৮৯ জন শ্রমিক ছিলেন জানিয়ে কর্তৃপক্ষ বলেছে, তাদের মধ্যে অন্তত ২৩৯ জনকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। তবে আগুন লাগার কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এই দুর্ঘটনাকে দুর্ভাগ্যজনক বলে আখ্যা দিয়েছেন। দুর্ঘটনার পর স্থানীয় গভর্নর ও জরুরি সেবাদানকারী কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি।

পুতিন আরও বলেন, ‘এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়নি। উদ্ধারকাজে নিযুক্ত কর্মীদের প্রাণ হারানোর ঝুঁকি রয়েছে। আমরা আশা করছি, উদ্ধারকারীরা মানুষের জীবন বাঁচাতে যতটা সম্ভব চেষ্টা করবেন।’

এদিকে দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের স্মরণে ওই অঞ্চলে তিন দিনের শোক ঘোষণা করেছেন গভর্নর সের্গেই সিভিলেভ।