প্রসবকালীন সাইকেল চালিয়েই হাসপাতালে নিউজিল্যান্ডের সাংসদ জুলি



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নিউজিল্যান্ডের সংসদ সদস্য জুলি অ্যান জেন্টার সদ্য মা হয়েছেন। রোববার (২৮ নভেম্বর) ভোরে প্রসবকালীন ব্যাথা অনুভব হলে সাইকেল চালিয়েই হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওনা দেন তিনি। হাসপাতালে পৌঁছানোর এক ঘণ্টা পর সন্তান জন্ম দেন তিনি।

জুলি অ্যান জেন্টার সন্তান জন্ম দেওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি পোস্ট শেয়ার করেছেন। তিনি লিখেছেন, ‘বড় খবর! আজ সকালে আমরা আমাদের পরিবারে নতুন একজন সদস্যকে স্বাগত জানিয়েছি। সত্যিকার অর্থে প্রসবকালীন সময়ে আমার সাইকেল চালানোর মতো কোন পরিকল্পনা ছিল না। কিন্তু এটি ঘটে গিয়েছে’।

জুলি বলেন, ‘যখন আমরা হাসপাতালে যাওয়ার জন্য ২টায় রওনা হলাম তখন আমার শারীরিক অবস্থা তেমন খারাপ ছিল না। বাসা থেকে হাসপাতালের ব্যবধান ২-৩ মিনিটের। কিন্তু আমার পৌঁছাতে ১০ মিনিটের মতো সময় লেগে যায় এবং যন্ত্রণার তীব্রতা বেড়ে যায়’। তিনি আরও বলেন, ‘আশ্চর্যজনকভাবে আমাদের সন্তান এখন সুস্থ এবং সে তার বাবার মতো ঘুমাচ্ছে’।

দ্বৈত নিউজিল্যান্ড-মার্কিন নাগরিক জেন্টার। তিনি মিনেসোটাতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন এবং ২০০৬ সালে প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশে চলে এসেছিলে। সন্তান প্রসবের ক্ষেত্রে এমন ঘটণা জেন্টারের ক্ষেত্রেই প্রথম নয়। এর আগে দলটির একজন মুখপাত্র ২০১৮ সালে তার প্রথম সন্তান জন্মের সময় বাইক সাইকেল চালিয়ে হাসপাতালে গিয়েছিলেন। তিনি তার ফেসবুকে পোস্ট করেছিলেন, ‘আমি আমার বাইসাইকেলকে ভালোবাসি’।

৫ মিলিয়ন জনসংখ্যার নিয়ে গঠিত দ্বীপ দেশ নিউজিল্যান্ড ইতিমধ্যে ডাউন-টু-আর্থ রাজনীতিবিদদের জন্য খ্যাতি অর্জন করেছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন মাতৃত্বকালীন ছুটি নিয়েছিলেন ক্ষমতা থাকাকালীন। সেই সাথে প্রসবের পর তিন মাসের সন্তানকে নিয়ে জাতিসংঘের সভায়ও উপস্থিত হয়েছিলেন তিনি, কেননা তার ছোট শিশুটি মায়ের দুধ পান করেন। এ নিয়ে নেট মাধ্যমে আলোচনায়ও এসেছিলেন তিনি।

গুজব ছড়াবেন না বাবা সুস্থ আছেন: মেরিনা মাহাথির



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ

মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ

  • Font increase
  • Font Decrease

মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের মেয়ে দাতিন পাদুকা মেরিনা মাহাথির জানিয়েছেন, বাবা আগের চেয়ে সুস্থ আছেন। তার স্বাস্থ্যের উন্নতি হচ্ছে। আমাদের তিনি কথা বলতে পারছেন।

স্বাস্থ্যের উন্নতি হলেও বিশেষজ্ঞের যত্ন নেওয়ার জন্য তিনি হাসপাতালে থাকবেন। বাবা সকলকে উদ্বিগ্ন না হওয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন বলে জানিয়েছেন মেরিনা।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) গুজব না ছড়ানোর অনুরোধ জানিয়ে নিজের বিবৃতিতে মেরিনা বলেছেন, ‘সূত্র যাচাই-বাছাই না করে বাবার শারীরিক অবস্থা নিয়ে কোনো ধরনের গুজব ছড়াবেন না। তার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে সময়ে সময়ে ন্যাশনাল হার্ট ইনস্টিটিউট এবং আমরা তার পরিবার আপনাদের অবগত করতে থাকব।’

আজ সারাদিন মালয়েশিয়ার সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীর শারীরিক অবস্থা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়িয়ে পড়ে। অনেকেই মাহাথিরের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটছে বলে বিভিন্ন গুজব ছড়ান। এরই জের ধরে এমন বিবৃতি দিয়েছেন মেরিনা মাহাথির।

উল্লেখ্য, গত শনিবার (২২ জানুয়ারি) মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদকে দেশটির ন্যাশনাল হার্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
৯৬ বছর বয়সী এ নেতা এর আগে ৭ জানুয়ারি হাসপাতালে ভর্তি হন। চিকিৎসা শেষে ১৩ জানুয়ারি হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছিলেন।


মালয়েশিয়ায় সবচেয়ে বেশি সময় ধরে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন মাহাথির। এর আগে তার বাইপাস সার্জারিও করতে হয়েছিল । তবে সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীর শরীরে কোন কোন উপসর্গ দেখা দিয়েছে, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

সূত্র- সিএনএ

;

দ্বিতীয় মেয়াদে ডব্লিউএইচও'র প্রধান হচ্ছেন টেড্রোস



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

টেড্রোস আধানম ঘেব্রেইয়েসুস দ্বিতীয় মেয়াদে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান হিসেবে মনোনীত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত পদ্ধতিগত ভোটের পর তিনি এই পদের জন্য একমাত্র মনোনীত প্রার্থী থাকায়, তিনি হতে যাচ্ছেন সংস্থাটির পরবর্তী প্রধান।

ডব্লিউএইচওর ৩৪ সদস্যের নির্বাহী বোর্ডের প্রধান প্যাট্রিক অ্যামোথ বলেছেন, আরও পাঁচ বছরের জন্য ডিজি (ডিরেক্টর-জেনারেল) হিসেবে মনোনীত হওয়ায় ডা. টেড্রোসকে অভিনন্দন।

আগামী মে মাসে গোপন ব্যালটে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান নির্বাচনের ভোট হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু টেড্রোস আধানম ঘেব্রেইয়েসুস ছাড়া আর কেউ প্রার্থী না হওয়ায় সংস্থাটির পরবর্তী প্রধান তিনিই হচ্ছেন।

৫৬ বছর বয়সী টেড্রোস কোভিড -১৯ সংকট শুরুর পর থেকে সামনের সারিতে রয়েছেন, যা তাকে মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অন্যতম পরিচিত মুখ হিসেবে পরিণত করেছে।

টেড্রোস করোনাভাইরাস রোগের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রচেষ্টার জন্য চীনের নেতৃত্বের প্রশংসা করায় ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাকে চীনের সহযোগী বলে অভিযুক্ত করেছিলেন এবং স্বাস্থ্য সংস্থায় আমেরিকান তহবিল স্থগিত করেছিলেন।

ইউরোপীয় দেশগুলোতে তার মনোনয়ন অবাক হওয়ার মতো। জাতিসংঘের স্বাস্থ্য সংস্থার শীর্ষস্থানীয় প্রার্থীরা সাধারণত তাদের নিজ দেশ দ্বারা মনোনীত হন।

;

বুরকিনা ফাসোতে সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখল



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোতে সেনা অভ্যুত্থানের পর সোমবার দেশটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিয়েছে বলে ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী।

দেশটির প্রেসিডেন্ট রচ কাবোরেকে ক্ষমতাচ্যুত করে দেশটির পার্লামেন্ট ও সরকার ভেঙে দেয়ার, সংবিধান স্থগিত ও সীমানা বন্ধ করে দেয়ার ঘোষণা দেয় বিদ্রোহী সেনারা। দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের এক ঘোষণায় এমনটাই জানানো হয়েছে বলে বার্তাসংস্থা সিএনএন এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

জঙ্গি হামলা ঠেকাতে ব্যর্থতার জেরে দীর্ঘদিন ধরেই প্রেসিডেন্ট রচ কাবোরের বিরুদ্ধে অসন্তোষ ছিল। বিদ্রোহী সেনাদের অভিযোগ, বুরকিনা ফাসোর নিরাপত্তা পরিস্থিতির উন্নতি করে দেশের নাগরিকদের একত্রিত করতে ব্যর্থ তিনি।

উল্লেখ্য, এর আগে, সোমবার দেশটির প্রেসিডেন্টকে বন্দি করে বিদ্রোহী সেনারা। তিনি এখন কোথায় আছেন সেবিষয়েও কিছু জানানো হয়নি। ২০১৫ সালেও দেশটিতে সেনা অভ্যুত্থানের চেষ্টা করা হয়েছিল।

এর আগে, রোববার (২৩ জানুয়ারি) রাতে রাজধানী ওয়াগাদুগুতে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের চারপাশে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। ওই হামলায় কোনো হতাহত না হলেও অভ্যুত্থানের চেষ্টা নাকচ করে দেশটির সরকার। সবচেয়ে বেশি গোলাগুলি হয়েছিল লামিজানা ঘাঁটিতে। সেখানে সেনাপ্রধানের বাসভবন ও একটি কারাগার রয়েছে। ২০১৫ সালে অভ্যুত্থান চেষ্টায় ব্যর্থ সেনাদের রাখা হয়েছে এই কারাগারে।

বিদ্রোহী সৈন্যরা রচ মার্ক ক্রিশ্চিয়ান কাবোরকে একটি সামরিক ক্যাম্পে আটক করে রেখেছিল এবং দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের সদর দফতরও ঘিরে রেখেছিল বলে দেশটির বেশ কিছু গণমাধ্যম জানিয়েছিল।

;

ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে ৭ বাংলাদেশির মৃত্যু



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে নৌকায় শরীরের তাপমাত্রা কমে সাত বাংলাদেশি অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) ইতালির অ্যাগ্রিজেনটো শহরের প্রসিকিউটর লুইগি প্যাট্রোনাজ্জিও এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানিয়েছেন। ইতালিয়ান বার্তাসংস্থা এএনএসএ এ খবর প্রকাশ করেছে।

খবরে বলা হয়, নৌকা থেকে প্রায় ২৮০ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকারী অভিবাসীদের বেশিরভাগই মিশর ও বাংলাদেশের।

এএনএসএ’র খবরে বলা হয়, জনবসতিহীন ইতালিয়ান দ্বীপ ল্যাম্পেদুসার উপকূল থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে নৌকাটিকে দেখতে পান কোস্টগার্ড সদস্যরা। নৌকায় তিন জনের মৃতদেহ পাওয়া যায়। পরে নৌকাটি বন্দরে ভেড়ানোর আগেই আরও চার জনের মৃত্যু হয়। হাইপোথার্মিয়ায় মারা যাওয়া সাত অভিবাসীর সবাই বাংলাদেশের নাগরিক।

অভিবাসী নৌকাটি দুই-তিন দিন আগে লিবিয়া থেকে ইতালির উদ্দেশে রওয়ানা দিয়েছিল বলে জানা গেছে। 

গত দুই শীতের তুলনায় এবার উল্লেখযোগ্যভাবে অভিবাসীর আগমন ঘটেছে ইতালিতে। এবার এখন পর্যন্ত ২ হাজার ৫১ জন অভিবাসীর আগমন ঘটেছে, গত বছর একই সময়ে ৮৭২ জন এবং তার আগের বছর ৮৩৫ জন ইউরোপের এই দেশটিতে প্রবেশ করে। আগমন সাধারণত গ্রীষ্মে সর্বোচ্চ হয়।

ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন ২০২১ সালে ভূমধ্যসাগরের এই রুটকে মারাত্মক ঝুঁকি হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

;