শ্রীলঙ্কায় আবারও জরুরি অবস্থা জারি



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পাঁচ সপ্তাহের ব্যবধানে শ্রীলঙ্কায় আবারও জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে। শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবায়ে রাজাপাকসে শুক্রবার (০৬ মে) জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন। দেশটির বিক্ষোভকারীদের দমনে নিরাপত্তা বাহিনীকে ব্যাপক ক্ষমতা প্রদান করা হয়েছে।

শনিবার (০৭ মে) আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রেসিডেন্টের একজন মুখপাত্র বলেছেন, জনশৃঙ্খলা নিশ্চিত করতে জরুরি আইন জারি করা হয়েছে। এর আগে তীব্র অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যেই শুরু হয় বিক্ষোভ ও ধর্মঘট। বন্ধ থাকে স্কুল-কলেজ, দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। যার কারণে ২২ মিলিয়ন মানুষের দেশটি স্থবির হয়ে পড়েছে।

রাজাপাকসের পদত্যাগের দাবিতে দেশটির জাতীয় সংসদে ঢোকার চেষ্টাকারী শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ দিনের শুরুতে টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ এবং জলকামান ব্যবহার করে।

জরুরি অবস্থা চলাকালীন নিরাপত্তা বাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা ছাড়াও সন্দেহভাজনদের গ্রেফতার ও কারাগারে রাখার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে।

শ্রীলঙ্কা প্রেসিডেন্টর মুখপাত্র বলেছেন, জরুরি অবস্থা শুক্রবার মধ্যরাত থেকে কার্যকর হয়েছে।

এর আগে, গত ১ এপ্রিল রাজাপাকসে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছিলেন। সেই জরুরি অবস্থা ১৪ এপ্রিল স্থায়ী ছিল। কিন্তু তারপর থেকে বিক্ষোভ আরও বেড়েছে।

১৯৪৮ সালে স্বাধীনতার পর থেকে শ্রীলঙ্কা সবচেয়ে খারাপ সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।

এদিকে, রাজাপাকসে জোর দিয়ে বলেছেন, ক্রমবর্ধমান বিক্ষোভ সত্ত্বেও তিনি পদত্যাগ করবেন না।

শিরিন হত্যায় ব্যবহৃত বুলেট যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দেবে ফিলিস্তিন



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অধিকৃত পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি অভিযানের সময় ফিলিস্তিনি-আমেরিকান সাংবাদিক শিরিন আবু আকলেহকে হত্যায় ব্যবহৃত বুলেট যু্ক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দেবে ফিলিস্তিন।

ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের জেনারেল প্রসিকিউটর আকরাম আল-খাতিব শনিবার (২ জুলাই) বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, আমরা পরীক্ষার জন্য বুলেটটি যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তর করতে রাজি হয়েছি।

ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ, অনেক মানবাধিকার গোষ্ঠী ও সংবাদমাধ্যমগুলো প্রাথমিকভাবে তদন্ত করে দেখেছে আল জাজিরার সাংবাদিক আবু আকলেহ ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর হাতে নিহত হয়েছেন।

জাতিসংঘের মানবাধিকার কার্যালয় গত মাসে বলেছিল, সংগ্রহ করা তথ্যে দেখা গেছে যে ১১ মে আবু আকলেহকে যে বুলেটটি হত্যা করা হয়েছিল সেটি ইসরায়েলি বাহিনীর ছোড়া।

বেশ কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, জেরুজালেমে জন্ম নেওয়া শিরিনকে হত্যা করেছে ইসরায়েলি বাহিনী। ব্যালিস্টিক এবং ফরেনসিক বিশেষজ্ঞদের মতে, সবুজ টিপযুক্ত বুলেটটি মূলত বর্ম ছিদ্র করার জন্য ডিজাইন করা এবং ‘এম৪ রাইফেলে ব্যবহৃত হয়েছিল। বুলেটটি তার মাথা থেকে বের করা হয়েছিল।

গত ১১ মে দখলকৃত পশ্চিম তীরের জেনিন শহরে অভিযান চালায় ইসরায়েলি সেনারা। সংবাদ সংগ্রহের জন্য ঘটনাস্থলে ছিলেন ৫১ বছর বয়সী শিরিন আবু আকলেহ। প্রত্যক্ষদর্শী ও ঘটনাস্থলে থাকা অন্য সাংবাদিকেরা জানান, ইসরায়েলের এক সেনা মাথায় গুলি করলে শিরিন প্রাণ হারান।

;

নাইজেরিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় ৩০ সেনা নিহত



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের অতর্কিত হামলায় নাইজেরিয়ায় কমপক্ষে ৩০ সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। দেশটির নাইজার প্রদেশের শিরোরো এলাকায় একটি খনিতে বন্দুকধারীরা এ হামলা চালায়।

সূত্রের বরাত দিয়ে রোববার (৩ জুলাই) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বুধবার নাইজেরিয়ার নাইজার প্রদেশের শিরোরো এলাকার ওই খনিতে হামলার পর অপহরণের শিকার শ্রমিকদের খোঁজে সেখানে সেনা মোতায়েন করা হয়েছিল। নিখোঁজদের মধ্যে চারজন চীনা নাগরিকও ছিলেন। পরে সেখানেই সেনাসদস্যদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

উত্তর-পশ্চিম নাইজারের রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা কমিশনার ইমানুয়েল উমর বলেছেন, আজতা আবোকি গ্রামের ওই খনিতে হামলার ঘটনায় অজ্ঞাত সংখ্যক লোক নিহত হয়েছেন।

শনিবার নাইজার প্রদেশের রাজধানী শিরোরো এবং মিন্নাতের দু’টি সেনা সূত্র জানিয়েছে, পরে নিরাপত্তা বাহিনী আক্রমণের জবাবে সেখানে গেলে, বন্দুকধারীরা তাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায় এবং গুলিবর্ষণ করে। এছাড়া অ্যামবুশ হামলায় তিনটি ট্রাকে থাকা ৩০ জন সৈন্যকে হত্যা করে তারা।

শিরোরোর একজন স্থানীয় নেতা রয়টার্সকে বলেছেন, বন্দুকধারীরা গুলি চালানোর আগে মোটরবাইক ও একটি ট্রাকে খনিতে এসেছিলেন। এসময় খনি পাহারায় থাকা সাত পুলিশ সদস্য নিহত হন।

নাইজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুহাম্মাদু বুহারি বলেছেন, বন্দুকধারীরা ছিল ‘স্যাডিস্ট’ যাদের খুঁজে বের করে শাস্তি দেওয়া হবে। শনিবার এক টুইটার পোস্টে তিনি বলেন, শিরোর ন্যায়বিচার দেখতে পাবে।

;

লিসিচানস্ক শহর রাশিয়া-ইউক্রেন উভয়ের নিয়ন্ত্রণ দাবি

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইউক্রেনের পূর্ব লুহানস্কের লিসিচানস্ক শহর রাশিয়ান ও ইউক্রেনীয় উভয় বাহিনীই বলেছে যে তারা শহরটির নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

রোববার (০৩ জুলাই) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এই তথ্য জানিয়েছে।

ইউক্রেন বলেছে, লিসিচানস্ক শহরে তাদের বাহিনীর ওপর রুশ বাহিনী তীব্র গোলাবর্ষণ করছে তবে জোর দিয়ে বলছে যে শহরটি এখনও তাদের দখলে রয়েছে।

আর রাশিয়ান সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীরা বলছেন, তারা সফলভাবে শহরে প্রবেশ করেছে এবং শহরের কেন্দ্রে পৌঁছেছে।

এদিকে রাশিয়ান মিডিয়া বিচ্ছিন্নতাবাদী বা রাশিয়ান বাহিনীর লিসিচানস্ক শহরের রাস্তার মধ্য দিয়ে কুচকাওয়াজ করার ভিডিও প্রকাশ করেছে। শহরের ধ্বংসপ্রাপ্ত প্রশাসনিক কেন্দ্রে সোভিয়েত পতাকা উড়ার ভিডিওটিও টুইট করেছে তারা। তবে এর সত্যতা যাচাই করা যায়নি।

শহরটি দখল করলে রাশিয়ানরা ডনবাসের পূর্বাঞ্চলে আরও গভীরে প্রবেশ করতে পারবে। কিয়েভ দখলে ব্যর্থ হওয়ার পর আক্রমণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে ডনবাস।

সম্প্রতি ডনবাসের আরেক কৌশলগত শহর সেভরোডনেস্ক দখল করে নেয় রাশিয়া। সম্প্রতি এই দুই শহর দখল নিতে ব্যাপক হামলা শুরু করে রুশ বাহিনী। ইউক্রেনীয় যোদ্ধারা তীব্র প্রতিরোধ গড়ে তুললেও ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ আরও জোরালো হয়।

লুহানস্ক অঞ্চলের গভর্নর সেরহি গাইদাই বলেছেন, রুশ বাহিনী চারদিক থেকে শহরটির দিকে এগিয়ে আসলে তাদের কোনও বাধা দেওয়া হয়নি।

মস্কোপন্থী লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত রডিয়ন মিরোশনিক রাশিয়ান টেলিভিশনকে বলেছেন, লিসিচানস্ককে নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে কিন্তু এখনও মুক্ত করা হয়নি।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরু করেছে রাশিয়া। ভয়াবহ হামলায় ইউক্রেনের কয়েক হাজার বেসামরিক নাগরিক প্রাণ হারিয়েছে। তাদের অভিযানকে অবৈধ অ্যাখা দিয়ে মস্কোর ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে আসছে পশ্চিমা দেশগুলো।

;

যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত হচ্ছেন দোরাইস্বামী, ঢাকায় সুধাকর দালেলা!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদৃত হচ্ছেন দোরাইস্বামী, ঢাকায় সুধাকর দালেলা!

যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদৃত হচ্ছেন দোরাইস্বামী, ঢাকায় সুধাকর দালেলা!

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত হচ্ছেন।

ভারতের ফরেন সার্ভিসের ১৯৯২ ব্যাচের কর্মকর্তা দোরাইস্বামী। তিনি উজবেকিস্তান, দক্ষিণ কোরিয়াতে ভারতীয় রাষ্ট্রদূত হিসেবে কাজ করেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সচিব হিসেবেও কাজ করেছেন।

বিক্রম দোরাইস্বামী ২০২০ সালের আগস্ট থেকে ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের ১৭তম হাইকমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

তিনি লন্ডনে গায়েত্রী ইসার কুমারের স্থলাভিষিক্ত হবেন। গায়ত্রী কুমারের চাকরির মেয়াদ শেষ হয়েছে গত ৩০ জুন।

যুক্তরাষ্ট্রে ভারতীয় মিশনের উপ প্রধান সুধাকর দালেলা। বাংলাদেশে বিক্রমের স্থলাভিষিক্ত হবেন বলে জানা গেছে। ভারতের ফরেন সার্ভিসের ১৯৯২ ব্যাচের কর্মকর্তা দালেলা।

কূটনীতিক হিসেবে সুধাকরের কাজ শুরু হয় ইসরাইলে, পরে তিনি ব্রাজিল, সুইজারল্যান্ডেও কাজ করেছেন। ওয়াশিংটনে ভারতীয় দূতাবাসে রাজনীতি বিষয়ক মিনিস্টারের পদেও ছিলেন তিনি।

কর্মজীবনে ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনেও কাজ করে গেছেন সুধাকর। তিনি দেশটির প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালকের দায়িত্বও সামলে এসেছেন, তখন তার দায়িত্ব ছিল দক্ষিণ এশিয়া, চীন, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোতে ভারতের স্বার্থ দেখা।

একজন পেশাদার এবং পরিশ্রমী কূটনীতিকবিদ দোরাইস্বামী। তিনি অবকাঠামো এবং প্রতিরক্ষা সহযোগিতার মাধ্যমে বাংলাদেশের সাথে সম্পর্ক দৃঢ় করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন।

যুক্তরাজ্যে রাষ্ট্রদূত হিসাবে দোরাইস্বামীর নিয়োগের বিষয়টি মোদি সরকার বেশ কয়েক মাস ধরে যাছাই-বাছাই করছেন। লন্ডনে তার নিয়োগের বিষয়টি মোদি সরকার প্রায় চূড়ান্ত করেছে।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

;