ভারতে ২০১৯ সালে দূষণে ২৩ লাখ মানুষের মৃত্যু



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দূষণের কারণে ২০১৯ সালে ভারতে ২৩ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ১৬ লাখই বায়ুদূষণে এবং পাঁচ লাখের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে পানিদূষণে।

লন্ডনভিত্তিক সাময়িকী ল্যানসেটের এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। গবেষণায় বিশ্বে প্রতি ছয় মৃত্যুর একটির জন্য দূষণকে দায়ী করা হয়েছে।

গবেষণায় বলা হয়েছে, বিশ্বে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশের মধ্যে ভারত একটি। দেশটিতে প্রতি বছর বায়ু দূষণে ১০ লাখের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়।

ল্যানসেটের সাম্প্রতিক এই গবষেণাটি মূলত ২০১৫ সালে হওয়া গবেষণার হালনাগাদকরণ। সাম্প্রতিক গবেষণার তথ্য নেওয়া হয়েছে গ্লোবাল বারডেন অব ডিজিজ, ইনজুরিজ অ্যান্ড রিস্ক ফ্যাক্টর স্ট্যাডি–২০১৯ থেকে। এই গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, দূষণের কারণে প্রতিবছর বিশ্বে ৯০ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়।

যদিও গৃহস্থালির সঙ্গে সম্পৃক্ত দূষণ ও পানিদূষণে মৃত্যু কমলেও কলকারখানার দূষণ, বায়ুদূষণ এবং বিষাক্ত রায়ায়নিক দূষণের কারণে মৃত্যু ঠিকই বেড়েছে। ২০১৯ সালে বৈশ্বিকভাবে গৃহস্থালি ও কলকারখানাসহ বিভিন্ন বাহ্যিক বায়ুদূষণে ৬৭ লাখ মানুষ মারা গেছে। পানিদূষণ ১৪ লাখ মানুষের মৃত্যুর জন্য দায়ী, আর সিসা (লেড) দূষণ ৯ লাখ মানুষকে অকাল মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিয়েছে।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, দূষণজনিত মৃত্যুর ৯০ শতাংশের বেশি নিম্ন-আয়ের এবং মধ্যম আয়ের দেশগুলিতে ঘটেছে। এর মধ্যে ভারতে ২৩ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। যা বিশ্বে শীর্ষ। প্রতিবেশী চীনের অবস্থান দ্বিতীয় স্থানে। দেশটিতে মৃত্যুর সংখ্যা ২১ লাখ।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০০০ সালে প্রচলিত দূষণের কারণে ভারতে ক্ষতির পরিমাণ ছিল জিডিপির ৩ দশমিক ২ শতাংশ। অবশ্য তখন থেকে প্রচলিত দূষণের কারণে দেশটিতে মৃত্যুর হার কমছে এবং অর্থনৈতিক ক্ষতিও যথেষ্ট পরিমাণে হ্রাস পেয়েছে। তারপরও দেশটিতে ক্ষতির হার জিডিপির ১ শতাংশের আশপাশে রয়েছে।

এদিকে ২০১৯ থেকে ২০০০ সালের মধ্যে বায়ু, রাসায়নিক ও সিসার মতো দূষণ বেড়েছে, যা ভারতের জিডিপিতে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১ শতাংশের মতো। তবে ভারত বায়ুদূষণ কমাতে যে উদ্যোগ নিচ্ছে, সেটাও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। বিশেষ করে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উচ্চাভিলাষী ‘উজ্জওয়ালা যোজানা’ প্রকল্পের কথা। ২০১৬ সালে মোদি এই প্রকল্প গ্রহণ করেন গ্রামীণ গরিব মানুষের রান্নার গ্যাস ব্যবহারে আগ্রহী করতে। তবে এ ক্ষেত্রে এখনো ঘাটতি রয়ে গেছে।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারত দূষণের উৎস প্রশমিত করতে বিভিন্ন নিয়ন্ত্রণব্যবস্থা গড়ে তুলেছে। কিন্তু দূষণ নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্রীভূত কোনও ব্যবস্থা না থাকায় কাঙ্ক্ষিত মাত্রা অর্জন করতে পারছে না।

এ গবেষণা আরও বলছে, ভারতের ৯৩ শতাংশ এলাকাতেই দূষণের পরিমাণ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইনের চেয়ে অনেক বেশি। গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের একদল গবেষক জানান, বৈশ্বিক দূষণ র‌্যাঙ্কিংয়ে ভারতের শহরগুলো ওপরের দিকে।

মার্কিন গবেষণা আরও বলা হয়েছে, উত্তর ভারতের ৪৮ কোটির বেশি মানুষ বিশ্বের সবচেয়ে ‘ভয়াবহ পর্যায়ের বায়ুদূষণের’ মুখোমুখি।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের এনার্জি পলিসি ইনস্টিটিউটের তথ্যমতে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুযায়ী দিল্লির বায়ুদূষণ যদি কামানো যায়, তাহলে ভারতের রাজধানীর বাসিন্দাদের আয়ু আরও ১০ বছর বাড়তে পারে

ফুরিয়ে আসছে পেট্রোল, সতর্ক করলেন শ্রীলঙ্কার জ্বালানিমন্ত্রী



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

৭০ বছরেরও বেশি সময়ের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অর্থনৈতিক সংকটের মুখোমুখি শ্রীলঙ্কা। দেশটিতে দেখা দিয়েছে তীব্র জ্বালানি সংকট। এমন পরিস্থিতিতে দ্বীপরাষ্ট্রটির জ্বালানিমন্ত্রী কাঞ্চনা উইজেসেকেরা পেট্রোলের মজুত ফুরিয়ে আসছে বলে কঠোর সতর্কতা জারি করেছেন।

সোমবার (০৪ জুলাই) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

শ্রীলঙ্কার জ্বালানিমন্ত্রী বলেন, শ্রীলঙ্কায় প্রতিদিন জ্বালানির যে চাহিদা সে বিবেচনায় আমাদের কাছে একদিনেরও কম পেট্রোল রয়েছে। তিনি আরও বলেন, পরবর্তী পেট্রোলের চালান পেতে দুই সপ্তাহের বেশি সময় অপেক্ষা করতে হবে।

গত সপ্তাহে শ্রীলঙ্কা কম প্রয়োজনীয় গাড়িতে পেট্রোল ও ডিজেল বিক্রি নিষিদ্ধ করে। সংকটময় পরিস্থিতিতে দেশটি আমাদানি করা জ্বালানি, ওষুধ ও খাবারের মূল্য পরিশোধে সংগ্রাম করছে।

জ্বালানিমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, দেশে ১২ হাজার ৭৭৪ টন ডিজেল এবং চার হাজার ৬১ টন পেট্রোল মজুদ রয়েছে। পেট্রোলের পরবর্তী চালান পাওয়া যাবে হয়তো ২২ থেকে ২৩ জুলাইয়ের মধ্যে।

ডিজেলের একটি চালান চলতি সপ্তাহে আসার কথা রয়েছে বলে জানান মন্ত্রী। তবে সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, পরিকল্পিত জ্বালানি ও অপরিশোধিত তেল আমদানির মূল্য পরিশোধের মতো অর্থ আমাদের হাতে নেই।

তিনি বলেন, শ্রীলঙ্কার কেন্দ্রীয় ব্যাংক জ্বালানি ক্রয়ের জন্য শুধু ১২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দিতে পারবে। নির্ধারিত চালানের জন্য পরিশোধ করতে হবে ৫৮৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। সে তুলনায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সামর্থ্য অনেক কম।

দেশটি এই বছরের শুরুতে জ্বালানি কেনার জন্য সাতটি সরবরাহকারীর কাছে ৮০০ মিলিয়ন ডলার পাওনা রয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, শ্রীলঙ্কা ১৯৭০ এর দশকের তেল সংকটের পর প্রথম দেশ যারা সাধারণ নাগরিকদের কাছে পেট্রোল বিক্রি বন্ধের কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে। তেল সংকটের সময় যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে জ্বালানি রেশন হিসেবে দেওয়া হয়েছিল।

২২ মিলিয়ন জনসংখ্যার এই দ্বীপরাষ্ট্রটি ১৯৪৮ সালে যুক্তরাজ্য থেকে স্বাধীনতা লাভের পর ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকট পার করছে।

থেকে তার আরও খারাপ অর্থনৈতিক সংকটের মুখোমুখি হচ্ছে কারণ এটি প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির জন্য পর্যাপ্ত বৈদেশিক মুদ্রার অভাব রয়েছে। জরুরি আমদানি পণ্যের মূল্য পরিশোধ করার মতো অর্থ দেশটির হাতে নেই। জ্বালানি, খাবার ও ওষুধের তীব্র সংকটের কারণে দ্বীপরাষ্ট্রটিতে জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে বহুগুণ।

;

হিমাচলে খাদে বাস, স্কুলছাত্রসহ নিহত ১৬



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের হিমাচল প্রদেশের কুল্লুতে একটি বাস খাদে পড়ে স্কুলছাত্রসহ ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার (৪ জুলাই) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। খাদে পড়ে যাওয়া বাসটির সামনের দিকটা পুরোপুরি দুমড়েমুচড়ে গিয়েছে। হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানা গেছে।

কুল্লুর ডেপুটি কমিশনার আশুতোষ গর্গ জানান, সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সাঁজগামী বাসটি জংলা গ্রামের কাছে খাদে পড়ে যায়। উদ্ধারকারী দল ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। তিনি জানান, আহতদের দ্রুত নিকটবর্তী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়, দুর্ঘটনার সময় বাসে ৪০ জন স্কুল পড়ুয়া ছাত্র ছিল।

হিমাচল প্রদেশের কুল্লুতে বাস দুর্ঘটনাকে হৃদয় বিদারক বলে টুইট করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এই দুঃসময়ে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি আমি সমবেদনা জানাই। আশা করি আহতরা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন। স্থানীয় প্রশাসন ক্ষতিগ্রস্তদের সব ধরনের সহায়তা দিচ্ছে বলে জানান মোদি।

হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জয়রাম ঠাকুর টুইট করে লেখেন, পুরো প্রশাসন ঘটনাস্থলে রয়েছে। আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। যারা মারা গেছেন ঈশ্বর তাদের আত্মাকে শান্তি প্রদান করুন এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে শক্তি দিন।

;

‘মিস ইন্ডিয়া’ খেতাব জিতলেন সিনি শেঠি



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

এবছরের মিস ইন্ডিয়া খেতাব জিতলেন কর্নাটকের সিনি শেঠি। ফাইনালে তিনি ৩১ জনকে হারিয়ে এই স্থান অর্জন করেছেন। রাজস্থানের রুবাল শেখাওয়াত প্রথম রানার আপ হয়েছেন। অন্যদিকে উত্তর প্রদেশের শিন্তা চৌহান দ্বিতীয় রানার আপ হয়েছেন।

রোববার (০৩ জুলাই) জিআইও ওয়ার্ল্ড কনভেনশন সেন্টারে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অভিনেত্রী নেহা ধুপিয়া, ডিনো মোরিয়া, মালাইকা অরোরা, ডিজাইনার রোহিত গান্ধী, রাহুল খান্না, কোরিওগ্রাফার শিয়ামক দাভার ও সাবেক ক্রিকেটার মিতালি রাজ জুরি প্যানেলে ছিলেন।

বিচারকদের প্যানেলে ছিলেন নেহা ধুপিয়া, মালাইকা অরোরা, ডিনো মোরিয়া, ডিজাইনার রোহিত গান্ধী, রাহুল খান্না, কোরিওগ্রাফার শিয়ামক দাভার ও সাবেক ক্রিকেটার মিতালি রাজের মতো তারকারা। দেশের নানা প্রান্ত থেকে ৩১ জন প্রতিযোগীকে বেছে নেওয়া হয়েছিল। সবাইকে পেছনে ফেলে সেরার শিরোপা জিতে নেন ২১ বছরের সিনি।

অনুষ্ঠানে সব প্রতিযোগী তাদের সৌন্দর্যের পাশাপাশি অন স্পট প্রতিক্রিয়া শৈলী দিয়ে বিচারক ও মানুষদের মন জয় করেন। তবে স্বাভাবিক ভাবেই এগিয়ে ছিলেন সিনি শেঠি। যে কারণে তিনি মিস ইন্ডিয়ার খেতাব পেয়েছেন।

সিনি শেঠি চাটার্ড ফিনান্সিয়াল অ্যানালিস্টের কোর্স করেছেন। তিনি শিখেছেন ভারতনাট্যম। চার বছর বয়সে তিনি নাচ শুরু করেন। ১৪ বছর বয়স পর্যন্ত তিনি মঞ্চেও অভিনয় করেছেন। তিনি বর্তমানে কর্নাটকের বাসিন্দা হলেও, তার জন্ম মুম্বইতে।

;

ব্রিটিশ আর্মির ইউটিউব ও টুইটার অ্যাকাউন্ট হ্যাক



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

যুক্তরাজ্যের সেনাবাহিনী বলেছে, তাদের ইউটিউব ও টুইটার অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে। ইতিমধ্যে ঘটনাটির তদন্ত শুরু হয়েছে।

সোমবার (০৪ জুলাই) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

বিলিয়নেয়ার ইলন মাস্কের ছবি ব্যবহার করে ক্রিপ্টোকারেন্সির ভিডিও ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার করেছে হ্যাকাররা। টুইটার ফিড এনএফটি-এর সঙ্গে সম্পর্কিত বেশ কয়েকটি পোস্ট রিটুইট করতে দেখা গেছে। বিনিয়োগের জন্য এক ধরনের ইলেকট্রনিক আর্টওয়ার্ক এটি।

দেশটির সেনাবাহিনী অ্যকাউন্ট হ্যাক হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছে, তারা তথ্য সুরক্ষাকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিয়েছে এবং সমস্যাটির সমাধান করছে। দুটি অ্যাকাউন্টই পুনরুদ্ধার করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

সেনাবাহিনীর একজন মুখপাত্র বলেন, যদিও আমরা এখন সমস্যাটির সমাধান করেছি, তদন্ত চলছে এবং ঘটনাটি স্পষ্ট না হওয়া পর্যন্ত মন্তব্য করা অনুচিত হবে।

হ্যাকিংয়ের ঘটনার পিছনে কারা রয়েছে তা পরিষ্কার নয়। অ্যাকাউন্টগুলোরও নাম পরিবর্তন করা হয়েছে। টুইটার অ্যাকাউন্টের নাম পরিবর্তন করে Bapesclan করা হয়।

এদিকে, কনজারভেটিভ সংসদ সদস্য ও কমন্স ডিফেন্স সিলেক্ট কমিটির চেয়ারম্যান টোবিয়াস এলউড বলেছেন, যা ঘটেছে তা ‘গুরুতর বলে মনে হচ্ছে’।আমি আশা করি ঘটনার সঠিক তদন্ত ও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের টুইটার অ্যাকাউন্ট হ্যাক এটি প্রথমবার নয়। ২০২০ সালের জুলাই মাসে বিটকয়েন কেলেঙ্কারিতে হ্যাকারদের হাতে চলে গিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান টুইটার অ্যাকাউন্টগুলো।

;