দেউলিয়া হওয়ার পথে পাকিস্তান!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সেপ্টেম্বরের ভয়াবহ বন্যার ‘ক্ষত’ এখনও শুকায়নি। পাশাপাশি প্রবল আর্থিক সংকটে বিধ্বস্ত পাকিস্তান। এই পরিস্থিতিতে পাকিস্তানে বিদেশি বিনিয়োগের পরিমাণও কমছে দ্রুত। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) থেকেও মেলেনি সাহায্যের আশ্বাস। ফলে অর্থের জোগানে সন্ধানে এখন হন্যে পাকিস্তান।

দু’সপ্তাহ আগে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং আর্থিক সংকটে বিধ্বস্ত ইসলামাবাদের জন্য ৯০০ কোটি ডলার সাহায্যের ঘোষণা করেন। তিনি জানিয়েছিলেন, পাকিস্তানকে আর্থিক সংকট থেকে মুক্ত করতে বেইজিং সর্বতোভাবে সাহায্য করবে।

কিন্তু চলতি সপ্তাহে প্রকাশিত পাকিস্তান স্টেট ব্যাংকের তথ্য বলছে, চলতি বছরের জুলাই থেকে অক্টোবরের মধ্যে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ ৭২ কোটি ৬০ লাখ ডলার থেকে কমে ৩৪ কোটি ৮০ লাখ ডলারে দাঁড়িয়েছে।

পাক স্টেট ব্যাংকের তথ্য বলছে, গত চার মাসে চীন থেকে বিনিয়োগ এসেছে মাত্র ৭ কোটি ৪৮ লাখ ডলার। বস্তুত, গত দু’বছর ধরে পাকিস্তানে চীনা বিনিয়োগ ক্রমশ কমছে বলেও জানানো হয়েছে ওই রিপোর্টে।

পাকিস্তান সংবাদমাধ্যমের একাংশের দাবি, অবিলম্বে বড় অঙ্কের বিদেশি বিনিয়োগ আনা সম্ভব না হলে শ্রীলঙ্কার মতোই দেউলিয়া দেশে পরিণত হবে পাকিস্তান।

যদিও পাকিস্তানের পরিকল্পনা মন্ত্রী আসান ইকবাল এমন সম্ভাবনার কথা প্রত্যাখান করেছেন। তিনি বলেন, দেউলিয়া হওয়ার কোনও আশঙ্কা নেই। কিছু আর্থিক সমস্যা থাকলেও তা মিটিয়ে ফেলার চেষ্টা চলছে। দেশের আর্থিক সংকট নিয়ে মিথ্যা প্রচার করছে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল। সূত্র: আনন্দবাজার

‘লকডাউন চাই না, মুক্তি চাই’, চীনে বিক্ষোভ



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কড়া কোভিড নীতির বিরুদ্ধে চীনে ক্রমেই ছড়িয়ে পড়ছে ক্ষোভের আঁচ। দিনের পর দিন ঘরবন্দী হয়ে থাকার সরকারি নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে রোববারও বেইজিং এবং সাংহাইয়ের রাস্তায় নামেন কয়েক’শ মানুষ। রাজপথে বিক্ষোভ দেখালেন শিঙ্গুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এসময় তারা স্লোগান দেন, ‘লকডাউন চাই না, মুক্তি চাই।’

সম্প্রতি চীনে যে হারে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে, তাতে বেইজিং -সহ ঘনবসতির শহরগুলো আবার লকডাউনের হওয়ার মুখে। বেইজিংয়ে ইতিমধ্যেই শপিং মল, পার্ক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

সাধারণ মানুষকে বলা হচ্ছে, যতটা সম্ভব বাড়িতে থাকতে। সাধারণ মানুষের অভিযোগ, প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও সরকার এখনও করোনা-শূন্য নীতি (জ়িরো কোভিড পলিসি) থেকে সরে আসেনি। অর্থাৎ, দেশে করোনা সংক্রমণ শূন্য না হওয়ার পর্যন্ত কড়াকড়ি বন্ধ থাকবে। যার প্রভাব পড়বে সাধারণ মানুষের রোজগারে, ব্যবসা-বাণিজ্যে।

শুধু তা-ই নয়, মানুষের ক্ষোভ আরও জোরালো হয়েছে এই কোভিড পরিস্থিতির মধ্যেই জিনঝিয়াং প্রদেশে একটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায়। ওই প্রদেশের রাজধানী উরুমকিউই-এর একটি বহুতল আবাসনে গত বৃহস্পতিবার আগুন লাগে। তাতে প্রাণ হারান সেখানকার দশ জন বাসিন্দা। আবাসনের বাসিন্দাদের একাংশের অভিযোগ, বাড়িতে ‘তালাবন্দি’ থাকার জন্যই অনেক বাসিন্দা আবাসন ছেড়ে বেরোতে পারেননি। আগুন লেগে যাওয়ার পরেও অনেকে ঘরের মধ্যেই আটকে পড়েন বলে দাবি বাসিন্দাদের একাংশের। যদিও স্থানীয় প্রশাসন এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

;

মরক্কোর সঙ্গে হারে বেলজিয়ামে দাঙ্গা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কাতার বিশ্বকাপে একের পর এক অঘটন ঘটছে। গ্রুপ এফ-এর খেলায় মরক্কোর কাছে ০-২ গোলে হেরেছে বেলজিয়াম। বিশ্বের দুই নম্বর দলের হারের পর বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসের দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়েছে। ভাঙচুর করা হয়েছে বেশ কয়েকটি প্রাইভেটকার।

এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কাঁদানে গ্যাসের শেলও ছুড়েছে পুলিশ। কিছু এলাকায় গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, মরক্কোর কাছে হারের পর ক্ষুব্ধ লোকজন ব্রাসেলসে গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। ইট ছুড়ে গাড়ি ভাঙচুর করেন। পুলিশের মুখপাত্র ইলসে ভ্যান ডি কিরি বলেছেন, লাঠি হাতে নিয়ে অনেকেই রাস্তায় নেমে আসেন। এ সময় একজন সাংবাদিক আহত হয়েছেন।

ব্রাসেলস পুলিশের মুখপাত্র ভ্যান ডে ক্যারে জানিয়েছেন, এতে একজন গুরুতর আহত হয়েছেন।

ব্রাসেলসের মেয়র ফিলিপ ক্লোজ ক্ষুব্ধ সমর্থকদের ধৈর্য ধরার আহ্বান জানিয়েছেন। কর্তৃপক্ষ শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে তৎপর রয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, আজ দুপুরের ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। পুলিশ ইতিমধ্যেই কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে। আমি ভক্তদের শহরের কেন্দ্রে না আসতে বলছি। পুলিশ সর্বজনীন শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করছে। দুর্বৃত্তদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছি।

বিশৃঙ্খলার সময় কতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে জানায়নি দেশটির কর্তৃপক্ষ। এদিকে, সহিংসতার বিস্তার সীমিত করতে মেট্রো স্টেশনগুলো বন্ধ এবং রাস্তাগুলো বন্ধ করে রাখা হয়েছে।

;

হিজাবহীন নারীকে সেবা, চাকরি গেল ব্যাংক ম্যানেজারের!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকারি নির্দেশ অমান্য করে হিজাববিহীন এক নারীকে ব্যাংকিং সেবা দেওয়ার ‘অপরাধে’ ইরানের এক ব্যাংক ম্যানেজারকে চাকরি থেকে ছাঁটাই করা হল।

রোববার (২৭ নভেম্বর) এ খবর জানিয়েছে সে ইরানের স্থানীয় সংবাদ সংস্থা।

ইরানের মেহর নিউজ় এজেন্সির প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাজধানী তেহরানের অদূরে কোওম প্রদেশের একটি ব্যাংকে বৃহস্পতিবার হিজাব ছাড়াই ঢুকেছিলেন ওই গ্রাহক। তাকে সেবা দেন ওই ব্যাংকের ম্যানেজার। সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সে ছবি ছড়িয়ে পড়তেই তড়িঘড়ি ওই ম্যানেজারকে সরিয়ে দেওয়া হয়। কোওম প্রদেশের গর্ভনর আহমেদ হাজিজাদের নির্দেশেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে ওই সংবাদ সংস্থা। প্রশাসনের দাবি, সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই হিজাবহীন নারীর ছবি ঘিরে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের জুলাই থেকে ইরানের সব রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানে হিজাব পরা বাধ্যতামূলক বলে নির্দেশ দিয়েছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি। অতি রক্ষণশীল বলে পরিচিত রাইসির সেই নির্দেশ পালনে ইরানজুড়ে নীতি পুলিশদের চোখরাঙানি চলছে বলে অভিযোগ।

এমনকি, হিজাব ছাড়া তেহরানের রাস্তায় নামায় ২২ বছরের মাহশা আমিনিকে থানায় তুলে নিয়ে গিয়ে অত্যাচার করা হয় বলেও দাবি। ১৬ সেপ্টেম্বর পুলিশি হেফাজতে থাকাকালীন তার মৃত্যুর পর প্রতিবাদের আগুন জ্বলে ওঠে ইরানসহ বিশ্বের নানা প্রান্তে। ইরানের রাস্তায় নেমে বোরখা, হিজাব পুড়িয়ে, চুল কেটে বিক্ষোভ দেখান প্রতিবাদীরা।

অভিযোগ, হিজাব-বিরোধীদের দমাতে দমননীতির প্রয়োগ করছে ইরান প্রশাসন। মানবাধিকার সংগঠন ‘ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট’ (আইএইচআরএম)-এর দাবি, পুলিশের দমননীতির জেরে ২ নভেম্বর পর্যন্ত ৭২৭ জন প্রাণ হারিয়েছেন। নিহতদের মধ্যে ৪০ জন শিশুও রয়েছে বলে দাবি আইএইচআরএম-এর।

;

নিরাপত্তার স্বার্থে চীনা টেলিকম সরঞ্জামে নিষেধাজ্ঞা বাইডেনের



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে কয়েকটি চীনা টেলিকম সংস্থার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে বাইডেন প্রশাসন। দেশটির কেন্দ্রীয় যোগাযোগ কমিশন জানিয়েছে, হুয়াওয়ে, জেডটিইসহ বেশ কয়েকটি চীনা ব্র্যান্ডের টেলিযোগাযোগ ও ভিডিও নজরদারি সরঞ্জাম আমদানি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এফসিসির কমিশনার ব্যান্ডন কর বলেন, এফসিসির পাঁচ সদস্যের অনুমোদন বিষয়ক কমিটি সর্বসম্মতিক্রমে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মার্কিন কংগ্রেসের সদস্যরাও এই সিদ্ধান্তের পক্ষে ইতিবাচক বার্তা দিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে, যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম অভিযোগ তুলেছিল ৫-জি মোবাইল পরিষেবায় চীনা সরঞ্জামের ব্যবহারের ফলে জাতীয় নিরাপত্তা সংক্রান্ত স্পর্শকাতর তথ্য পাচার হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

হুয়াওয়ে এবং জেডটিই ছাড়াও নিষেধাজ্ঞার তালিকায় হাইতেরা কমিউনিকেশনস, হাংঝু হিকভিশন ডিজিটাল টেকনোলজি কোম্পানি এবং দাহুয়া টেকনোলজি কোম্পানি রয়েছে বলে এফসিসি সূত্রের খবর।

প্রসঙ্গত, ডোনাল্ড ট্রাম্পের জমানায় কার্যকর হওয়া ‘সিকিওর অ্যান্ড ট্রাস্টেড কমিউনিকেশনস নেটওয়ার্কস অ্যাক্ট’-কে হাতিয়ার করেই চীনা টেলিকম সরঞ্জামে নিষেধাজ্ঞা জারি করল বাইডেন সরকার।

ভারতসহ বিভিন্ন দেশ থেকে বিভিন্ন সময়ে হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে টেলিকম সরঞ্জামের সাহায্যে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ উঠেছে।

২০২০ সালে বিএসএনএল এবং এমটিএনএল-এর মতো রাষ্ট্রায়ত্ত টেলি পরিষেবা সংস্থাগুলোকে চীনা টেলিকম সরঞ্জাম ও যন্ত্রাংশ ব্যবহার না করার নির্দেশ দিয়েছিল মোদি সরকার। বেসরকারি টেলি যোগাযোগ সংস্থাগুলোকেও এ বিষয়ে কিছু বিধিনিষেধ মেনে চলার কথা বলা হয়েছিল।

;