সেনা প্রত্যাহার নিয়ে কুর্দি-তুর্কিদের পাল্টাপাল্টি জবাব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
রাস আল এইন শহর ছাড়ছেন কুর্দি সেনারা, ছবি: সংগৃৃহীত

রাস আল এইন শহর ছাড়ছেন কুর্দি সেনারা, ছবি: সংগৃৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

যুদ্ধবিরতির চুক্তি অনুযায়ী সিরিয়া থেকে কুর্দি যোদ্ধাদের প্রত্যাহার নিয়ে পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দিচ্ছে কুর্দি ও তুর্কি বাহিনীরা। যুদ্ধবিরতির অংশ হিসেবে তুরস্কের নির্দিষ্ট সেফ জোন ছেড়ে যাওয়ার কথা রয়েছে কুর্দিদের।

এ বিষয়ে কুর্দি নেতৃত্বাধীন সিরিয়ান ডেমোক্রেট বাহিনীর (এসডিএফ) মুখপাত্র কিনো গ্যাব্রিয়েল বলেন, 'যুদ্ধবিরতির চুক্তি অনুযায়ী কুর্দি যোদ্ধারা তুরস্কের সেফ জোন রাস আল এইন শহর ছেড়ে চলে যাচ্ছেন।'

রোববার (২০ অক্টোবর) তিনি এ কথা বলেন।

কিন্তু তুরস্কের মুখপাত্র মেজর ইউসুফ হামোন্ড কুর্দিদের রাস আল এইন শহর ছেড়ে যাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, 'রাস আল এইন শহর থেকে কুর্দি বাহিনীর প্রত্যাহার এখনো সম্পূর্ণ হয়নি।'

এর আগে, আঙ্কারা থেকে বলা হয়েছিল, 'তুরস্কের নিয়ন্ত্রণে থাকা রাস আল এইন শহরে অনেকগুলো গাড়ি প্রবেশ করেছে এবং বের হয়েছে।' আর এই বক্তব্যের পরেই কুর্দি মুখপাত্র গ্যাব্রিয়েল এ কথা বলেন।

সিরিয়ায় তুরস্ক নিয়ন্ত্রিত দুইটি শহরের মধ্যে রাস আল এইন একটি। তুরস্ক বাহিনী এ শহরে সিরিয়ান শরণার্থীদের জন্য একটি সেফ জোন প্রতিষ্ঠা করার কথা বলে আসছে।

বৃহস্পতিবার থেকে সিরিয়ায় অবস্থিত কুর্দি বাহিনীর ওপর হামলা বন্ধ রেখেছে তুর্কি বাহিনী। মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স এবং তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগানের মধ্যে যুদ্ধবিরতির একটি চুক্তি সম্পন্ন হওয়ার পর থেকে তারা হামলা বন্ধ রেখেছে। চুক্তি অনুযায়ী তুরস্ক পাঁচ দিনের যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়। আর এ পাঁচ দিনের মধ্যে কুর্দি বাহিনী এই অঞ্চল ছেড়ে চলে যাওয়ার কথা রয়েছে।

এই অঞ্চল ছেড়ে কুর্দি বাহিনী না গেলে আবার হামলা চালানো হবে বলে জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান। তিনি বলেন, 'চুক্তি অনুযায়ী তারা না গেলে এবার তাদের চূর্ণ বিচূর্ণ করে দেওয়া হবে'।

এদিকে, সিরিয়ার উত্তরাঞ্চল থেকে প্রত্যাহার করা সকল মার্কিন সেনাকে ইরাকের পশ্চিমাঞ্চলে স্থানান্তরিত করা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্ক এসপার। রোববার (২০ অক্টোবর) এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, 'সিরিয়া থেকে প্রত্যাহার করা এক হাজার সেনা ইরাকে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) পুনরায় জাগ্রত হওয়া ঠেকাতে সাহায্য করবে।'

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিরিয়ার উত্তরাঞ্চল থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণার পর থেকে অঞ্চলটিতে অবস্থিত কুর্দি বাহিনীর ওপর হামলা চালায় তুর্কি বাহিনী। কুর্দি বাহিনী সিরিয়া থেকে আইএস দমনে মার্কিন সেনাদের সঙ্গে কাজ করেছিল। সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণার পর থেকেই নিজ এবং বিরোধী দলের সমালোচনার মুখে পড়েন ট্রাম্প।

অন্যদিকে, চাপের মুখেও কুর্দিদের ওপর হামলা বন্ধ করেনি এরদোগান। তুরস্কের মতে, কুর্দি একটি সন্ত্রাসী সংগঠন। তুর্কি হামলায় এ পর্যন্ত প্রায় দুই লাখ বেসামরিক নাগরিক দেশটি ছেড়ে পালিয়েছেন।

আপনার মতামত লিখুন :