করোনা সতর্ককারী চিকিৎসকের মৃত্যুতে চীনে ক্ষোভ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
চিকিৎসক লি ওয়েনলিয়াং

চিকিৎসক লি ওয়েনলিয়াং

  • Font increase
  • Font Decrease

নতুন করোনা ভাইরাস নিয়ে সর্বপ্রথম সতর্ক করা চিকিৎসক লি ওয়েনলিয়াংয়ের মৃত্যুতে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ছে পুরো চীন জুড়ে। প্রথম দিকে চীনারা শোক জানালেও তা এখন ক্ষোভে রূপান্তরিত হয়েছে।

লি করোনায় আক্রান্তদের চিকিৎসা করার সময় ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়। আর বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

গত বছরের ডিসেম্বরে তিনি সার্স জাতীয় এই ভাইরাসটি নিয়ে কয়েকজন চিকিৎসককে প্রথম সতর্ক করেন। কিন্তু ওই সময় দেশটির পুলিশরা গুজব ছড়ানো ও মিথ্যা কথা বলার জন্য তার বিরুদ্ধে তদন্ত করে। এরপর তার থেকে একটি মুচলেকায় স্বাক্ষর করায় চীনা পুলিশ।

ইতিমধ্যে সরকারের বিরুদ্ধে ভাইরাসের তীব্রতা গোপন করার অভিযোগ তোলা হয়েছে। এছাড়া চীনে বাক-স্বাধীনতার অভাব রয়েছে বলে মন্তব্য করা হচ্ছে।

লি'র মৃত্যুর পর দেশটির দুর্নীতি দমন সংস্থা জানায়, তারা চিকিৎসক লি'র সঙ্গে জড়িত ইস্যুগুলোর পুনরায় তদন্ত করবে।

বর্তমানে চীনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ওয়েইবোতে লি'র মৃত্যুতে নেটিজেনরা দুটি হাশট্যাগ ব্যবহার করছে। এর মধ্যে একটি 'উহান সরকারের ক্ষমা প্রার্থনা' ও অন্যটি 'আমরা বাকস্বাধীনতা চাই'।

তবে চীনা সরকার দ্রুত এসব পোস্ট মুছে ফেলছে। শুক্রবার আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম বিবিসি এর তদন্ত করলে তারা শুধুমাত্র কয়েকডজন পোস্ট খুঁজে পায়।

ওয়েইবোতে এক নেটিজেন মন্তব্য করেন, এটি সতর্ক করা লোকের মৃত্যু নয়। একজন নায়কের মৃত্যু হয়েছে।

লি'র স্বাক্ষরিত মুচলেকার কথা উল্লেখ করে অনেকেই ওয়েইবোতে বলেছেন, তারা কি করেছে আপনারা কি তা বুঝতে পারছেন?

আরেকজন নেটিজেন ওয়েইবোতে লিখেন, এখন আপনাদের কেমন লাগছে তা ভুলবেন না। এই রাগ প্রশমিত করবেন না। আমাদের অবশ্যই এরকম ঘটনা আর হতে দেওয়া উচিত হবে না।

আরেকজন বলেন, সত্যকে সর্বদা একটি গুজব হিসাবে বিবেচনা করা হচ্ছে। কতক্ষণ মিথ্যা বলবেন? আর কি গোপন করতে হবে?

আরেকজন নেটিজেন বলেন, আপনি যা দেখছেন তাতে রাগ হলে উঠে দাঁড়ান। এ প্রজন্মের তরুণরা, পরিবর্তন আনার শক্তি আপনাদের হাতেই।

লি'র বাবা বিবিসিকে বলেন, আমার মনে হয় না আমার ছেলে গুজব ছড়িয়েছে। যা এখন বাস্তবে রূপান্তরিত হয়েছে।

লি'র মৃত্যুর বিষয়ে চীনে থাকা বিবিসির সাংবাদিক স্টিফেন ম্যাকডোনাল বলেন, তার মৃত্যু এদেশের জন্য হৃদয় বিদারক মুহূর্ত। চীনা নেতৃত্বের জন্য এটি একটি রাজনৈতিক বিপর্যয়। এটি কমিনিউস্ট পার্টি ও জিনপিংয়ের অধীনের ব্যবস্থাগুলোর খারাপ দিক তুলে ধরেছে।

যদি কোনো চিকিৎসক বিপজ্জনক স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থার কথা বলে এবং তাকে যদি পুলিশ হয়রানি ও গুজব বলে তাহলে বুঝতে পারবেন আপনার কাঠামো স্পষ্টতই নষ্ট হয়ে গেছে।

এদিকে লি'র মৃত্যুর সময় নিয়েও বিভ্রান্তি দেখা দিয়েছে। চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম গ্লোবাল টাইমস, পিপলস ডেইলি ও অন্যান্যরা জানায়, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১ টায় তার মৃত্যু হয়েছে। তবে তার কয়েক ঘণ্টা বাদেই গ্লোবাল টাইমস জানায়, লিকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ঘটনাস্থলে থাকা সাংবাদিক এবং চিকিত্সকরা দাবি করে বলেছিলেন, সরকারি কর্মকর্তারা তার মৃত্যুর সময় নিয়ে হস্তক্ষেপ করেছে।

আপনার মতামত লিখুন :

এ সম্পর্কিত আরও খবর