তুরস্ক সীমান্তে শরণার্থীদের ওপর গ্রিক পুলিশের হামলা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তুরস্ক-গ্রিস সীমান্ত দিয়ে ইউরোপে প্রবেশ করার চেষ্টাকালে শরণার্থীদের ওপর হামলা চালিয়েছে গ্রিক পুলিশ। শনিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) এ ঘটনা ঘটে। এ সময় তাদের ওপর টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করে গ্রিক পুলিশ বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স।

শুক্রবার তুর্কি সীমান্তে তিন হাজার শরণার্থী প্রত্যাশী জড়ো হয়েছিল বলে জানায় গ্রীস কর্তৃপক্ষ।

গ্রিক সরকারের মুখপাত্র স্টেলিওস পেটাসাস সাংবাদিকদের জানান, গ্রিক সরকার নিজেদের সীমান্ত রক্ষায় যে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে। আর গত ২৪ ঘণ্টায় গ্রিক কর্তৃপক্ষ প্রায় চার হাজার লোককে ইউরোপে প্রবেশ হতে বাধা দিয়েছে।

গ্রিসের স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেল স্কাই'র তথ্যচিত্রে দেখা যায়, তুরস্কের উত্তরের কাস্তানিস সীমান্তে বহু সংখ্যক শরণার্থী গ্রুপ জড় হয়েছে এবং গ্রিক পুলিশদের লক্ষ্য করে তারা পাথর নিক্ষেপ করছে। অন্যদিকে শরণার্থী গ্রুপদের লক্ষ্য করে টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করছে গ্রিক পুলিশ।

আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স প্রত্যক্ষদর্শীর বরাতে জানায়, সকালে গ্রিক সীমান্তের নিকটে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়নি। তবে অঞ্চলটিতে টিয়ারগ্যাসের প্রচুর গন্ধ পাওয়া গিয়েছিল।

এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ার ইদলিবে প্লেন হামলায় ৩৩ তুর্কি সৈন্য নিহতের পর তুরস্ক কর্তৃপক্ষ কয়েক লাখ শরণার্থী আশ্রয় প্রার্থীদের বাধা দিবে না বলে জানায়। আর শুক্রবার তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেছেন, শুক্রবার থেকে ১৮ হাজার শরণার্থী ইউরোপ সংলগ্ন তুর্কি সীমান্তে জড়ো হয়েছে এবং শনিবার এই সংখ্যা ৩০ হাজারে পৌঁছেবে।

২০১৫ সালে গ্রীস সীমান্ত দিয়ে প্রায় ১০ লাখ শরণার্থী ইউরোপে প্রবেশ করে। এর পরেই শরণার্থী প্রত্যাশীদের ইউরোপে প্রবেশের বিষয়ে কঠোর পদক্ষেপ নেয় গ্রীস। আর শুক্রবারের এই হামলার পরেও শরণার্থীদের ইউরোপে প্রবেশ ঠেকাতে প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেছে গ্রীক সরকার।