শরণার্থীদের সঙ্গে গ্রিস নাৎসি বাহিনীর মত আচরণ করছে



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েফ এরদোয়ান, ছবি: সংগৃহীত

তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েফ এরদোয়ান, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তুরস্কে থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) প্রবেশ করতে ইচ্ছুক শরণার্থীদের সঙ্গে গ্রিস সরকার নাৎসি বাহিনীর মত আচরণ করছে বলে জানিয়েছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েফ এরদোয়ান। বুধবার (১১ ফেব্রুয়ারি) তুর্কি পার্লামেন্টে একটি গ্রিক-তুর্কি সীমান্তের একটি ভিডিও ফুটেজ দেখিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

এরদোয়ান বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নে প্রবেশ করতে ইচ্ছুক শরণার্থীদের ওপর গ্রিস সরকার তাদের নিরাপত্তা বাহিনীদের দিয়ে হামলা চালাচ্ছে। গ্রিক সীমান্তের এই চিত্রগুলো নাৎসিদের মতই। নাৎসিরা জার্মানিতে যা করেছে সেটির সঙ্গে এই ছবিগুলোর কোন পার্থক্য নেই।

তিনি আরও বলেন, অসহায় ও নিরপরাধ মানুষদের ওপর হামলা তাদের অমানবিক বর্বরতা ফুটে উঠছে। আপনি (গ্রিস সরকার) কেন তাদের এত বাধা দিচ্ছেন এবং কেন তাদের ওপর নাৎসিদের মত নির্যাতন চালাচ্ছেন? এছাড়া ভাষণে এরদোয়ান ফের গ্রিসকে শরণার্থীদের পশ্চিম ইইউ'র ধনী দেশগুলোতে পৌঁছে দেওয়ার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রায় দশ হাজার শরণার্থী ইইউ প্রবেশের জন্য তুরস্ক ও গ্রিস সীমান্তে অবস্থান করছে। এর আগে গত মাসের ২৮ তারিখ তুরস্ক থেকে জানানো হয়, তারা ২০১৬ সালে ব্রাসেলসের সঙ্গে হওয়া চুক্তি অনুযায়ী, সাহায্যের বিনিময়ে শরণার্থীদের আর তুর্কি ভূখণ্ডে রাখবে না।

শরণার্থীদের প্রবেশ থামাতে গ্রিক নিরাপত্তা বাহিনী টিয়ার গ্যাস ও জলকামান ব্যবহার করছে। এথেন্স থেকে জানানো হয়, তারা গত দুই সপ্তাহে প্রায় ৪২ হাজার শরণার্থীকে ইইউতে প্রবেশে বাধা দিয়েছে। এছাড়া এথেন্স এক মাসের মধ্যে আশ্রয় আবেদন স্থগিত করেছে বলে জানানো হয়।

এর আগে তুরস্ক অভিযোগ করে জানায়, গ্রিক সুরক্ষা বাহিনী চারজন অভিবাসীকে গুলি করে হত্যা করেছে। তবে এথেন্স থেকে এটিকে ভুয়া খবর বলে আখ্যায়িত করা হয়। গ্রিস থেকে জানানো হয়, ইইউ সীমান্ত রক্ষার দায়িত্ব রয়েছে আমাদের।

সিরিয়ায় যুদ্ধের কারণে প্রায় ৩৬ লাখ শরণার্থী তুরস্কে আশ্রয় নিয়েছে। এসব শরণার্থীরা ইউরোপে যাওয়া ঠেকাতে তুরস্কের সঙ্গে চুক্তি করেছে ইইউ। তবে এরদোয়ানের অভিযোগ ইইউ ওই চুক্তি ভঙ্গ করেছে। আর চুক্তি ভঙ্গ করায় তুরস্ক শরণার্থীদের ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পাঠাতে চায়।