বিক্ষোভে যুক্তরাষ্ট্রের আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্য নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

যুক্তরাষ্ট্রের ওকল্যান্ডে বিক্ষোভে গুলিবিদ্ধ হয়ে ফেডারেল প্রতিরক্ষা পরিষেবার এক কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। শুক্রবার (২৯ মে) রাতে এ ঘটনা ঘটে। সে সময় এ সংস্থার দুই কর্মকর্তা গুলিবিদ্ধ হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক কর্মকর্তার মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (৩০ মে) আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানায়, আহত দুই কর্মকর্তার মধ্যে একজন মারা গেছেন। গতকাল রাতে যখন তারা গুলিবিদ্ধ হন তখন পাঁচশর বেশি বিক্ষোভকারী বিক্ষোভ করতে শহরের রাস্তায় নেমেছিল

ওকল্যান্ডের পুলিশ বিভাগ জানিয়েছে, বিক্ষোভকারীরা শহরজুড়ে ব্যাপক ভাঙচুর, চুরি, অগ্নিসংযোগ ও পুলিশ কর্মকর্তাদের ওপর হামলা করেছে।

ফেডারাল প্রতিরক্ষা পরিষেবা সংস্থা হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগের পুলিশ বিভাগ। এ সংস্থা হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগের অধীনে আইন প্রয়োগকারী পরিষেবাও সরবরাহ করে।

কারাগারে অন্যায়ভাবে জর্জ ফ্লয়েডকে হত্যার দায়ে যুক্তরাষ্ট্রে তৃতীয় দিনের মতো বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। বিক্ষোভ দেশটির ১২টির বেশি শহরে ছড়িয়ে পড়েছে। বিক্ষোভকারীরা দোকান ও ভবনে ভাঙচুর করছে। ভবন ও গাড়িতে অগ্নিসংযোগ নিয়ন্ত্রণে আনতে মিনিয়াপোলিস ও সেইন্ট পল শহরে কারফিউ জারি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট মিনিয়াপোলিস পুলিশ বিভাগের চার কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

সোমবার (২৫ মে) কারাগারে নিরস্ত্র জর্জ ফ্লয়েডকে খুনের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। এ থেকেই মূলত আন্দোলনের সূত্রপাত হয়। ভাইরাল হওয়া ভিডিওটিতে দেখা যায়, ৪৬ বছর বয়সী জর্জ ফ্লয়েডকে অন্যায়ভাবে পুলিশ সদস্যরা হত্যা করে। এ সময় জর্জ ফ্লয়েড নিরস্ত্র ছিলেন। হাঁটু দিয়ে জর্জ ফ্লয়েডের গলা চেপে ধরা হয়। সে বারবার নিশ্বাস নেবার জন্য আর্তনাদ করতে থাকে এবং বাঁচার আর্জি জানায়। অন্যায়ভাবে ফ্লয়েডকে মৃত্যুর ঘটনায় কৃষ্ণাঙ্গরা বিক্ষোভ শুরু করলেও এখন দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে।

আরও পড়ুন: জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ডে যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে বিক্ষোভ

জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ড: পুলিশ ভ্যান ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ

আপনার মতামত লিখুন :