আল্লামা শফী স্মরণে কাতারে দোয়া মাহফিল



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আল নূর কালচারাল সেন্টার কাতারের লোগো, ছবি: সংগৃহীত

আল নূর কালচারাল সেন্টার কাতারের লোগো, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী ছিলেন শতাব্দীর এক কীর্তিমান মনীষী। শুধু বাংলাদেশ নয় গোটা মুসলিম উম্মাহ তার অভাব অনুভব করছে।

রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) আল নূর কালচারাল সেন্টার কাতার কর্তৃক আল্লামা শাহ আহমদ শফী স্মরণে আয়োজিত আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে বক্তারা এসব কথা বলেন।

আল নূর কালচারাল সেন্টার কাতার কর্তৃক আয়োজিত ভার্চুয়াল আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন আল নূর মহাপরিচালক প্রকৌশলী শোয়েব কাসেম।

অনুষ্ঠান উপস্থাপনা ও পরিচালনা করেন, আল্লামা শফীর ছাত্র ও আল নূর নির্বাহী পরিচালক মাওলানা ইউসুফ নূর।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কমিউনিটি কাতারের সভাপতি প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন আকন। প্রধান আলোচক ছিলেন আল্লামা শফীর ছাত্র ও কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক মাওলানা নাইমুল হক।

শাইখুল ইসলাম রহমাতুল্লাহি আলাইহির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদনমূলক আলোচনায় অংশ নেন কাতার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ইমাম ও নুজুম গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল হাসিব, চট্টগ্রাম সমিতি কাতারের সভাপতি শফিকুল ইসলাম তালুকদার, এনআরবিবিএ সভাপতি শাহজাহান সাজু, কাতার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ইমাম মাওলানা তালহা, কাতারস্থ বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজের প্রিন্সিপাল জসিমউদ্দিন, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব জুবাইর চৌধুরী, নজরুল ইসলাম, প্রকৌশলী মনিরুল হক ও সালেহ নূর প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন কাতার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ইমাম মাওলানা নূরুল আমিন। ইসলামি সঙ্গীত পরিবেশন করেন কাতারস্থ বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক তাফসিরুদ্দিন।

আলোচনা শেষে আল্লামা আহমদ শফীর মাগফিরাত কামনায় মোনাজাত পরিচালনা করেন কাতার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ইমাম মাওলানা গোলাম রাব্বানী।

আলোচনা সভায় বক্তারা আল্লামা আহমদ শফীকে কালজয়ী ও বিস্ময়কর ইসলামি ব্যক্তিত্ব আখ্যায়িত করে বলেন, এক কৃষকের সন্তান আপন কর্মগুণে শাইখুল ইসলামের মর্যাদায় অভিষিক্ত হয়ে মুসলিম বাংলার মুকুটহীন সম্রাট হিসেবে অনন্য জানাজার মাধ্যমে আল্লাহতায়ালার সান্নিধ্যে গমন করেছেন। বিনয়ী স্বভাব, নেতৃত্বগুণ, তাকওয়া, ইবাদত, জ্ঞানার্জন, অধ্যয়ন, সময়ানুবর্তিতা ও দায়িত্ববোধ এবং সাহসিকতার উদহারণ ছিলেন তিনি। তার ইন্তেকালে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি মুসলিম বিশ্বের খ্যাতনামা ইসলামি স্কলাররাও শোক প্রকাশ করেছেন। শাইখুল ইসলাম নশ্বর পৃথিবী থেকে বিদায় নিলেও তার রেখে যাওয়া বিপুল পরিমাণের কৃতিছাত্র ও তার প্রতিষ্ঠানগুলোর মাঝে তিনি থাকবেন চিরজাগরূক ও স্মরণীয়।