পরিবার ও আঞ্জুমান ছাড়া আল্লামা শফীকে নিয়ে কোনো স্মারক নয়



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
পরিবার ও আঞ্জুমান ছাড়া আল্লামা শফীকে নিয়ে কোনো স্মারক নয়, সংবাদ সম্মেলনে আহ্বান, ছবি: সংগৃহীত

পরিবার ও আঞ্জুমান ছাড়া আল্লামা শফীকে নিয়ে কোনো স্মারক নয়, সংবাদ সম্মেলনে আহ্বান, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহমাতুল্লাহি আলাইহির পরিবার ও তার হাতেগড়া সংগঠন আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহ যৌথ উদ্যোগে তার বর্ণাঢ্য জীবন নিয়ে সমৃদ্ধ স্মারক প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এমতাবস্থায় আল্লামা শফীকে নিয়ে আপাতত কেউ যেন স্মারক প্রকাশ না করে। বস্তুনিষ্ঠ গবেষণা ছাড়া স্মারক প্রকাশ করলে তার অবিতর্কিত জীবন বিতর্কিত হওয়ার তীব্র আশঙ্কা রয়েছে।

বুধবার (২১ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের আব্দুস সালাম হলে আল্লামা শফী (রহ.)-এর প্রতিষ্ঠিত আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহ বাংলাদেশ এবং তার পরিবারের যৌথ উদ্যোগে স্মারকগ্রন্থ প্রকাশনা উপলক্ষে আয়োজিত প্রেস কনফারেন্সে এ আহ্বান জানানো হয়।

গণমাধ্যমে স্মারকগ্রন্থ সম্পাদনা পরিষদের সমন্বয়ক এহসান সিরাজ কর্তৃক পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আল্লামা আহমদ শফী (রহ.) ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইন্তেকাল করেছেন। তিনি আল্লামা হুসাইন আহমদ মাদানি (রহ.)-এর সুযোগ্য খলিফা, দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির, কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের সভাপতি, কওমি মাদরাসার সমন্বিত সর্বোচ্চ বোর্ড আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। কর্মজীবনের প্রায় আশি বছর তিনি আঞ্জাম দিয়েছেন বহুমুখী খেদমত। এদেশের মুসলিম উম্মাহর জন্য রয়েছে তার বিরাট অবদান। তার বর্ণাঢ্য জীবনের নানা দিক সংরক্ষণ করা সবার কর্তব্য। তাই কর্মময় জীবন নিয়ে পূর্ব থেকেই চলছে চুলচেড়া গবেষণা, এমনকি অনেকে তার জীবন নিয়ে পিএইচডিও করছেন।

তাই দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে জোর দাবি উঠেছে, তার বর্ণিল জীবনকে কাগজের পাতায় স্মারক হিসেবে প্রকাশ করার জন্য। এই প্রেক্ষাপটে আল্লামা আহমদ শফী (রহ.)-এর পরিবারবর্গ এবং তার হাতেগড়া সংগঠন আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহর যৌথ উদ্যোগে তার বর্ণাঢ্য স্মারক প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। বিষয়টি গণমাধ্যম মারফত জাতির সামনে তুলে ধরলাম।

কারণ, আল্লামা আহমদ শফী (রহ.)-এর জীবনের সব দিক নিয়ে অত্যন্ত বস্তুনিষ্ঠ গবেষণা করা অপরিহার্য। তাই তার পরিবারবর্গ এবং তার হাতেগড়া আধ্যাত্মিক সংগঠন আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহ বাংলাদেশ ছাড়া আপাতত কেউ যেন স্মারক প্রকাশ না করে। বস্তুনিষ্ঠ গবেষণা ছাড়া স্মারক প্রকাশ করলে তার অবিতর্কিত জীবন বিতর্কিত হবার তীব্র আশঙ্কা রয়েছে।

দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে থাকা আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রহ.) এর খলিফা, মুরিদ, ছাত্র-শিষ্য এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের লেখা ও তথ্য দিয়ে স্মারক কমিটিকে সহযোগিতা করারও আহ্বান জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।

সংবাদ সম্মেলনে আল্লামা শফীর দুই ছেলে মাওলানা মোহাম্মদ ইউসুফ ও আঞ্জুমানের আমির মাওলানা আনাস মাদানীসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্য এবং খলিফাদের মধ্যে শায়খুল হাদিস মাওলানা রুহুল আমিন খান উজানভী, মাওলানা আবু সায়েম মোহাম্মদ খালেদ, মুফতি আব্দুস সাত্তার, মুফতি নাসির উদ্দীন কাসেমী, মুফতি সালমান, মুফতি নূরে আলম, মাওলানা আসআদ, মাওলানা আবু আইয়ুব আনসারী, মুফতি মাসউদসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।