জমজম কূপে প্রবেশের বিরল সুযোগ পাওয়া ড. ইয়াহইয়া মারা গেছেন



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
প্রকৌশলী ড. ইয়াহইয়া হামজা কোসাক, ছবি: সংগৃহীত

প্রকৌশলী ড. ইয়াহইয়া হামজা কোসাক, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রকৌশলী ড. ইয়াহইয়া হামজা কোসাক। সংস্কারের জন্য পবিত্র জমজম কূপে প্রবেশ করা ব্যক্তিদের একজন। তিনি জমজম কূপের নেমে পানি প্রবাহের উৎসস্থল দেখার সৌভাগ্য অর্জন করেছিলেন। আধুনিক ইতিহাসে প্রথম ব্যক্তি হিসেবে তিনি কূপটিতে প্রবেশ করেন। এর পর আরও কেউ কূপে প্রবেশ করেননি। ১৯৭৯ সালে বাদশাহ খালিদ বিন ফয়সালের শাসনামলে তার নেতৃত্বে জমজম কূপ সংস্কার ও পরিষ্কার করা হয়।

সৌদি আরবে ড. ইয়াহইয়া হামজা কোসাককে প্রকৌশলীদের জনক বলা হয়। জমজম কূপের ইতিহাসের সবেচেয়ে বড় ধরনের সংস্কার ও পরিষ্কার কাজের নেতৃত্বদানকারী এই প্রকৌশলী সোমবার (১ মার্চ) বিকেলে সৌদি আরবে ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। তিনি সৌদি আরবের পানি ও ড্রেনেজ কর্তৃপক্ষের সাবেক পরিচালক ছিলেন। সৌদির প্রেস ও প্রকাশনা সংস্থার সদস্যও ছিলেন তিনি। তার ভাই প্রকৌশলী মো. আবদুল কাদের মক্কা নগরীর সাবেক মেয়র ছিলেন।

১৯৭৯ সালের জমজম কূপ পরিষ্কারকরণ প্রকল্পটি ছিল ইতিহাসের অন্যতম বৃহৎ পরিষ্কারকরণ প্রকল্প। এ প্রকল্পের প্রধান লক্ষ্য ছিল জমজম কূপের পানি প্রবাহ স্বাভাবিক করতে জঞ্জাল অপসারণ করা, এই সংস্কারের কারণে জমজম কূপের পানির প্রবাহ বৃদ্ধি পেয়েছিল। ওই সময়, তিনি ও তার দল জমজম কূপকে অতিবেগুনী রশ্মি দিয়ে জীবাণুমুক্ত করেন।

জমজম কূপের পানির প্রবাহধারা ও পরিচ্ছন্নতার ওপর তিনি ‘Zamzam: The Holy Water’ নামে একটি বই রচনা করেন। ওই বইয়ে তার দেখা জমজম কূপের অভ্যন্তরের বিবরণ স্থান পেয়েছে। সেখানে তিনি পবিত্র এই কূপের প্রত্নতাত্বিক সব বিষয় তুলে ধরেছেন।

প্রকৌশলী ইয়াহইয়া জানিয়েছিলেন, ‘জমজম কূপের মধ্যে তিনি পানির দু’টি উৎস দেখেছিলেন। যার একটি এসেছে কাবার দিক থেকে আর একটি এসেছে আজিয়াদের দিক থেকে।’ এ ছাড়া জমজম কূপের ভেতরে পাথরের মধ্য ছোট ছোট বারোটি গর্তের অস্তিত্ব রয়েছে বলে ঐতিহাসিক তথ্য থেকে জানা যায়।

তিনি তার বইয়ে উল্লেখ করেছেন, ‘জমজম কূপের পানি চমৎকার স্বাদযুক্ত এবং রোগ প্রতিরোধক।’

পবিত্র নগরী মক্কার এক সম্ভ্রান্ত ব্যবসায়ী পরিবারে জন্ম নেন তিনি। তার পিতা মক্কার বড় ব্যবসায়ী ছিলেন। তিনি হজ মৌসুমে ইউরোপ, আমেরিকা ও অস্ট্রেলিয়াসহ তুর্কি থেকে আগত হজ ও উমরা পালনকারীদের সেবা সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ছিলেন।

ড. ইয়াহইয়া হামজার মা ছিলেন বাদশাহ ফয়সালের স্ত্রী রানী ইফফাতের ঘনিষ্ট বান্ধবী। মসজিদে হারামে দেখা-সাক্ষাতে মিলিত হতেন তারা।

বাদশাহ ফয়সাল ও তার স্ত্রীর প্রতিষ্ঠিত তায়েফ শহরের প্রথম স্কুলে ড. ইয়াহইয়া পড়ালেখা করেন। পরে তিনি মিসরের কায়রোতে প্রকৌশল বিজ্ঞানে পড়াশোনা করেন। পরে প্রকৌশল বিজ্ঞানে উচ্চতর ডিগ্রি ও গবেষণা করতে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে গমন করেন। সেখানে তিনি উচ্চতর শিক্ষা ও পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

বিশ্বের কোটি কোটি মুসলিম ধর্মাবলম্বী মানুষ জমজম কূপের পানিকে অত্যন্ত পবিত্র ও বরকতময় বলে মনে করেন। প্রতি বছর লাখ লাখ হজ ও উমরা পালনকারীরা জমজমের পানি নিয়ে দেশে ফেরেন।

পবিত্র কাবা থেকে জমজম কূপের দূরত্ব কুড়ি মিটারের মতো। দুনিয়ায় আল্লাহতায়ালার যত বিস্ময়কর নিদর্শন রয়েছে, জমজম কূপ তার একটি। গত পাঁচ হাজার বছর ধরে এখান থেকে একটানা পানি পাওয়া যাচ্ছে। যদিও কূপটি মাত্র ত্রিশ মিটার গভীর, তারপরও এটি প্রতি সেকেন্ডে সাড়ে আঠারো লিটার পানি পাম্প করতে পারে।

প্রায় পাঁচ হাজার বছর আগে পবিত্র কাবা ঘরের সন্নিকটে বরকতময় কূপটি পানি দেওয়া শুরু করে। আল্লাহতায়ালার নির্দেশে হজরত ইবরাহিম (আ.) বিবি হাজেরা ও দুগ্ধপোষ্য শিশু হজরত ইসমাঈলকে (আ.) জনমানবহীন মক্কায় কাবার কাছে রেখে যেতে আদিষ্ট হন। সামান্য পানি ও খেজুরসহ তিনি তাদেরকে সেখানে রেখে যান।

যাওয়ার সময় আল্লাহর কাছে দোয়া করে বলেছিলেন, ‘হে প্রভু! জনমানবহীন মরু প্রান্তরে তোমার পবিত্র ঘরের কাছে আমার সন্তানকে রেখে গেলাম, যেন তারা নামাজ কায়েম করে। আর তাদের প্রতি তুমি মানুষের অন্তরকে ধাবিত করে দিও এবং তাদেরকে ফল-ফলাদি দ্বারা রিজিক দান করো, যেন তারা তোমার শোকরগোজার হয়।’ -সূরা ইবরাহিম: ৩৭

হজরত ইবরাহিম (আ.) দোয়া করে চলে যাওয়ার পর হজরত হাজেরা (আ.) সন্তানকে বুকে ধারণ করে আল্লাহর ওপর ভরসা করে সেখানে থাকতে লাগলেন। কোনো প্রতিবেশী ও খাদ্যপানীয় ছাড়া তিনি এভাবে বেশকিছু দিন কাটান। বুকের দুধ নিঃশেষ হয়ে যাওয়ার পর হজরত ইসমাঈল (আ.) যখন ক্ষুধায় কাতর হয়ে ছটফট করছিলেন, তখন তিনি দুগ্ধপোষ্য শিশুর জীবন বাঁচানোর জন্যে একবার সাফা পাহাড়ের ওপর আরেকবার মারওয়া পাহাড়ের ওপর- ছোটাছুটি করছিলেন। এক সময় দেখতে পেলেন, ছেলের পায়ের আঘাতে পানির ফোয়ারা উত্থলে উঠছে। চারদিকে তিনি বালু ও পাথর দিয়ে পানির প্রবাহ থামালেন। সেই কুদরতি পানির ঝরনাধারাটিই হচ্ছে জমজম কূপ। এই পানি কখনও বন্ধ হবে না। বিরতিহীনভাবে পৃথিবীবাসীকে তৃপ্ত করে চলবে।