দুই বাংলার যৌথ উদ্যোগে 'ভারত বাংলা ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড'

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, কলকাতা
অনুষ্ঠানে অ্যাওয়ার্ডটি উন্মোচন করা হয়, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

অনুষ্ঠানে অ্যাওয়ার্ডটি উন্মোচন করা হয়, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

এ যেন এক ঐতিহাসিক মুহূর্ত। বিভক্ত হয়েও মনেপ্রাণে নিজস্ব সংস্কৃতিতে আজও দুই দেশ এক, বিশেষ করে পশ্চিমবাংলা ও বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ও ভারত, গড়তে চলেছে আরও এক নজির। খুব শীঘ্রই দুই বাংলার যৌথ উদ্যোগে বাংলার চলচ্চিত্র জগৎ তৈরি করতে চলেছে এক মাইলস্টোন।

সোমবার (২১ অক্টোবর) প্রথমবারের মতো ঢাকায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে 'ভারত বাংলা ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড ২০১৯'। দুই বাংলার নির্বাচিত বাংলা ছবি, সংগীত পরিচালক ও অভিনেতা-অভিনেত্রীদের মিলিয়ে মোট চলচ্চিত্রের ২১টি বিভাগকে পুরস্কৃত করা হবে এই অনুষ্ঠানে।

বিনোদন জগতের নক্ষত্রদের উপস্থিতিতে জমজমাট হয়ে ওঠে অনুষ্ঠান

শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) কলকাতার এক পাঁচতারা হোটেলে বিনোদন জগতের নক্ষত্রদের উপস্থিতিতে এক বর্ণাঢ্য আয়োজনে এই ঘোষণা দেয় ফিল্ম ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া। প্রথমবারের জন্য তারা ভারত বাংলা ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড দিতে যাচ্ছে ঢাকায় নবরাত্রি হলে।

অনুষ্ঠানের উদ্দেশ্য দুই বাংলার চলচ্চিত্রের ভিত আরও মজবুত করা। এমনই বার্তা দিলেন অভিনেতা ও পরিচালক আলমগীর হোসেন। উপস্থিত ছিলেন অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় ও জিৎ, অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত ও তনুশ্রী চক্রবর্তী।

আলমগীরের সঙ্গে অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত ও তনুশ্রী চক্রবর্তী

এদিনের এই অনুষ্ঠানের মঞ্চ থেকে আলমগীর হোসেন বলেন, ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের চলচ্চিত্র উৎসব অনুষ্ঠিত হলে বাংলা চলচ্চিত্র জগৎ কেন পিছিয়ে থাকবে? বাংলা ছবিতে অনেক রসদ আছে। সবকিছুকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাওয়ার সময় এসেছে। দুই বাংলাকে যৌথভাবে কাজ করার সময় এসেছে।

মঞ্চ থেকে তিনি সাংবাদিকের উদ্দেশে বলেন 'আপনাদের কাছে কলম আছে আমাদের কাছে ক্যামেরা আছে'। এর পাশাপাশি তার আগামী ছবি সম্পর্কেও জানান তিনি, যা রূপায়িত হতে চলেছে 'বঙ্গবন্ধু'র ১৫ই আগস্টের কালো রাতের ওপর। যেখানে দর্শক দেখতে পাবেন ভারতীয় বাংলা ছবির অভিনেতা ও চলচ্চিত্র পরিচালক গৌতম ঘোষকে। এর পাশাপাশি তিনি জানান ভারত বাংলা ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড নিয়ে বেশ উৎসাহ। বাংলা ছবির ভবিষ্যৎ নিয়ে যে বেশ আশাবাদী সে কথাও ব্যক্ত করেন তিনি।

 অনুষ্ঠানের মঞ্চ থেকে আলমগীর বক্তব্য রাখছেন

প্রথমবারের জন্য ভারত বাংলা ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড এ লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্রের বর্ষীয়ান অভিনেতা রঞ্জিত মল্লিক এবং বাংলাদেশের হয়ে আনোয়ারা বেগম।

এছাড়া বেস্ট ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড-এর জন্য মনোনীত হয়েছে ভারতীয় বাংলা ছবি এক যে ছিল রাজা, নগরকীর্তন, সোনার পাহাড়, ব্যোমকেশ গোত্র এবং মহালয়া। বেস্ট ডিরেক্টর ক্যাটাগরিতে মনোনীত হয়েছেন কৌশিক গাঙ্গুলী 'নগরকীর্তন' ছবির জন্য, সৃজিত মুখার্জী 'এক যে ছিল রাজা' ছবির জন্য। এছাড়াও শিবপ্রসাদ মুখার্জি ও নন্দিতা রায় পরিচালক যুগল 'কণ্ঠ', 'দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন' এ ছবির জন্য ধ্রুব ব্যানার্জি এবং 'সোনার পাহাড়' ছবির জন্য পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় মনোনীত হয়েছেন।

আলমগীর ও তনুশ্রী চক্রবর্তী

বেস্ট অ্যাক্টর ভারতীয় বাংলা ছবির জন্য মনোনীত হয়েছেন যিশু সেনগুপ্ত ছবি 'এক যে ছিল রাজা', প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জী ছবি 'জ্যেষ্ঠপুত্র', ঋদ্ধি সেন ছবি 'নগরকীর্তন', শুভাশীষ মুখার্জি ছবি 'মহালয়া', আবির চ্যাটার্জি ছবি 'দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন' এবং রুদ্রনীল ঘোষ ছবি 'ভিঞ্চি দা'।

সেরা অভিনেত্রী মনোনয়ন পেয়েছেন 'শাহজাহান রিজেন্সি' ছবির স্বস্তিকা মুখার্জি। 'কণ্ঠ' ছবির জন্য পাওলি দাম, 'আহা রে' ছবির জন্য ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত এবং 'বসু পরিবার' ছবির জন্য অপর্ণা সেন।

এদিনের এই অনুষ্ঠানে উন্মোচন করা হয় 'ভারত বাংলা ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড ২০১৯'- এর অ্যাওয়ার্ডটিও। বাংলা চলচ্চিত্র জগতে এ এক অনন্য নজির।

আপনার মতামত লিখুন :