মাজেদের মৃত্যুদণ্ড পরোয়ানা জারির আবেদন

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ক্যাপ্টেন (অব.) আব্দুল মাজেদ

বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ক্যাপ্টেন (অব.) আব্দুল মাজেদ

  • Font increase
  • Font Decrease

বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ক্যাপ্টেন (অব.) আব্দুল মাজেদের মৃত্যুদণ্ডের রায় কার্যকরের জন্য আদালতে ‘মৃত্যুদণ্ড পরোয়ানা’ জারির আবেদন করেছে রাষ্ট্রপক্ষ।

বুধবার (৮ এপ্রিল) বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের অন্যতম আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল ঢাকার জেলা ও দায়রা জজ মো. হেলাল চৌধুরীর আদালতে এ আবেদন করেন।

আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ক্যাপ্টেন (অব) আব্দুল মাজেদের ফাঁসির রায় কার্যকর করার জন্য আমরা আবেদন করেছি। বিচারক শুনানি গ্রহণ করেছেন। পরোয়ানা জারির বিষয়ে তিনি পরে আদেশ দিবেন।’

এর আগে গত মঙ্গলবার তিনি বার্তা২৪.কম-কে বলেছিলেন, ‘মাজেদ বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। তার অনুপস্থিতিতে হাইকোর্ট ও আপীল বিভাগের রায় চূড়ান্ত হয়েছে। ১৯৯৮ সালের রায় ঘোষিত হওয়ার পর ২২ বছর পলাতক ছিলেন। এখন আর তার আপীল করার কোন সুযোগ নাই।’

তবে তাদের মতের সঙ্গে ভিন্নতা প্রকাশ করেন সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সভাপতি সিনিয়র আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। তিনি বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘কোনো আসামিকে ধরে নিয়েই ফাঁসির কাষ্ঠে ঝোলানো যায় না। আপিলের সুযোগ পাওয়া একজন আসামির অধিকার।’

সময় তামাদি হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আসামি উপযুক্ত কারণ দেখিয়ে তামাদি সময় মওকুফের আবেদন করতে পারবেন। আবেদন মওকুফ করা না করার বিষয়টি আদালতের এখতিয়ার। এরপর রিভিউ আছে। সর্বশেষ রাষ্ট্রপতির ক্ষমা প্রার্থনার বিষয়টি আছে। আসামিকে এ সুযোগ দিতে হবে।’

বঙ্গবন্ধু হত্যার ৪৫ বছর ও রায়ের ২২ বছর পর মঙ্গলবার মাজেদকে ঢাকার মিরপুর থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর তাকে ফৌজদারি কার্যবিধির ৫২ ধারায় ঢাকার সিএমএম আদালতে হাজির করা হলে তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।

আপনার মতামত লিখুন :