বিনামূল্যে ১৪ প্রকার শাক-সবজির বীজ পাবেন কৃষকরা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বন্যা দুর্গত এলাকায় ক্ষয়ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মধ্যে বিনামূল্যে শাক ও সবজির বীজ বিতরণের জন্য প্রণোদনা দিয়েছে সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয়। এই প্রণোদনায় বন্যা কবলিত রংপুর, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, নীলফামারী ও দিনাজপুর জেলার কৃষকরা বিনামূল্যে ১৪ ধরনের শাক-সবজির বীজ পাবেন।

কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, প্রণোদনা কর্মসূচীর আওতায় স্বল্প মেয়াদী সবজি হিসেবে লালশাক, ডাঁটাশাক, কলমিশাক, মুলা শাক, পুইশাক, পালংশাক ও পাটশাকের বীজ কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে।

এছাড়াও মধ্য মেয়াদী সবজি হিসেবে, শসা, লাউ, মিষ্টি কুমড়া, করলা, মরিচ, বরবটি ও শিমের বীজ বিতরণ দেয়া হবে। শিম বীজ স্বল্পকালীন এবং অন্যান্য বীজ হাইব্রিড হবে। কর্মসূচীর আওতায় অগ্রাধিকার পাবেন বন্যা দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকেরা।

কৃষি বিভাগ বলছেন, তালিকাভুক্ত একটি কৃষক পরিবার ৫০ গ্রাম লালশাক, ৫০ গ্রাম ডাঁটাশাক, ৫০ গ্রাম কলমিশাক, ১০০ গ্রাম মুলাশাক, ৫০ গ্রাম পুঁইশাক, ১০০ গ্রাম পালংশাক, ৫০ গ্রাম পাটশাক, ৩ গ্রাম শসা (হাইব্রিড), ৫ গ্রাম হাইব্রিড লাউ, ৫ গ্রাম হাইব্রিড মিষ্টিকুমড়া, ১০ গ্রাম হাইব্রিড করলা, ২ গ্রাম হাইব্রিড মরিচ, ১০ গ্রাম হাইব্রিড বরবটি এবং ৫০ গ্রাম শিমের বীজ পাবেন।

এদিকে কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, সংশ্লিষ্ট ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা প্রণোদনা কর্মসূচীর জন্য মনোনীত প্রত্যেক কৃষকের ষ্ট্যাম্প সাইজের ছবিযুক্ত কৃষক উপকরণ কার্ডের ভর্তুকি অংশে যথাযথভাবে উপকরণের পরিমাণ লিপিবদ্ধ ও মাস্টাররোল সংরক্ষণ করে উপকরণ বিতরণ করবেন।

এ ব্যাপারে রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ির উপ-পরিচালক ড. সরওয়ারুল আলম বলেন, আমরা পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছি। জেলা প্রশাসক ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ সংশ্লিষ্ট উপজেলা ও ইউনিয়ন কর্মকর্তাদের সাথে অনলাইন মিটিং সম্পন্ন করে শাক-সবজির বীজ বিতরণ শুরু করা হবে।

তিনি আরো জানান, সরকার প্রধানের নির্দেশনায় কৃষি মন্ত্রণালয় দেশের ৩৭ জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে শাক ও সবজি বীজ বিতরণের জন্য ১০ কোটি ২৬ লাখ ৯২ হাজার ৬৮৫ টাকার প্রণোদনা দিয়েছে।