চলে গেলেন প্রবীণ রাজনীতিবিদ-আইনজীবী আনিসুর রহমান খান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
অ্যাডভোকেট মো. আনিসুর রহমান খান

অ্যাডভোকেট মো. আনিসুর রহমান খান

  • Font increase
  • Font Decrease

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, প্রবীণ রাজনীতিবিদ, বরেণ্য আইনজীবী, জেলা নাগরিক আন্দোলন ও ময়মনসিংহ বিভাগ উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. আনিসুর রহমান খান মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর।

বুধবার (১২ আগস্ট) বিকেল ৫টার দিকে নগরের পন্ডিতপাড়াস্থ নিজ বাসায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, পাঁচ ছেলে ও এক মেয়েসহ স্বজন এবং অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

জানা গেছে, আনিসুর রহমান খান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬২ সালে এলএলবি পাস করার পর ১৯৬৩ সালের ৮ জানুয়ারি ময়মনসিংহ বারে আইন পেশায় যোগদান করেন। ১৯৭৮ সালে মোমেনশাহী ‘ল’ কলেজে প্রভাষক হিসেবেও যোগ দেন তিনি। ১৯৮৯ সালে একই কলেজে উপাধ্যক্ষ পদে পদোন্নতি পেয়ে ২০০৯ সালে কলেজ থেকে অবসর গ্রহণ করেন। ১৯৭৯ সালে প্রথম ময়মনসিংহ জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এছাড়াও একাধিকবার সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। ১৯৭৯ ও ১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত হন এবং একাধারে ছয় বছর বার কাউন্সিলের ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

অ্যাডভোকেট আনিসুল হক খান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে ১৯৬৩ সালে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। এরপর ১৯৬৪ সালের বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের ট্রেজারার নির্বাচিত হন। তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধে যোগদান করে ভারতের মেঘালয় রাজ্যে গারোহিল ডিস্ট্রিক্ট মহাদেব ইয়ুথ ক্যাম্পের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

পেশাগত কাজের পাশাপাশি প্রবীণ এ আইনজীবী বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনেরও নেতৃত্ব দেন। তার নেতৃত্বেই ১৯৮৯ সালের ১৬ নভেম্বর প্রতিষ্ঠিত হয় ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক আন্দোলন ও উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদ। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এই সংগঠনের সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন। এছাড়াও ময়মনসিংহ বিভাগ বাস্তবায়ন কেন্দ্রীয় পরিষদের সভাপতি, পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি, দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি জেলা সভাপতিসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত ছিলেন অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান খান।

পারিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় জেলা আইনজীবী সমিতিতে তার প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর দুপুর ১২টায় জুবলীঘাটস্থ জেলা নাগরিক আন্দোলন কার্যালয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন জানানোর জন্য রাখা হবে তার মরদেহ। বাদ জোহর আঞ্জুমান ঈদগাহ মাঠে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে গুলকিবাড়ি কবরস্থানে চির নিদ্রায় শায়িত করা হবে এ বীর মুক্তিযোদ্ধাকে।

আপনার মতামত লিখুন :