আজ সপ্তমী, করোনা মুক্তিতে হবে বিশেষ প্রার্থনা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সারা দেশে শুরু হয়েছে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। ঢাকের বোল, কাঁসর ঘণ্টা, শাঁখের ধ্বনিতে মুখর হয়ে উঠেছ সারা দেশের পূজামণ্ডপগুলো। বছর ঘুরে দেবীর আগমনি বার্তায় উৎসবের আমেজ এখন হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরে ঘরে।

বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে এর আনুষ্ঠানিকতা। মহালয়ার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছিল দুর্গা দেবীর আগমনের দিন গণনা। এবার দেবী এসেছেন দোলায়, যাবেন হাতিতে চড়ে।

দুর্গাপূজার আজ মহাসপ্তমী। শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) সকাল সোয়া আটটায় নবপত্রিকা প্রবেশ ও সপ্তমীবিহিত পূজা শুরু হবে। পূজা শেষে ভক্তরা অঞ্জলি দেবেন। তবে করোনা মহামারির কারণে এবার অঞ্জলি দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে সরাসরি টেলিভিশনে এবং ফেসবুকে। ভক্তদের বাসায় বসেই অঞ্জলি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ। তাছাড়া মহাসপ্তমীর দিন দুপুর ১২টা ১ মিনিটে করোনা মুক্তি এবং দেশ-জাতি ও বিশ্ব শান্তি কামনায় বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে সরাসরি অঞ্জলি প্রদান সম্প্রচার করা হবে বলে জানিয়েছেন মহানগর সর্বজনীন পূজা কমিটি। জানানো হয়েছে, ‘সপ্তমী,অষ্টমী ও নবমী পূজার দিন সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে মায়ের পুষ্পাঞ্জলি সরাসরি সম্প্রচার করবে কয়েকটি টেলিভিশন চ্যানেল। একই সময়ে মহানগর সর্বজনীন পূজা কমিটি, শ্রী শ্রী ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির নামের ফেসবুক পেজ থেকে মায়ের পুষ্পাঞ্জলি সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। বাড়িতে বসেই এবার ভক্তরা অঞ্জলি দেবেন মায়ের চরণে।’

শনিবার (২৪ অক্টোবর) মহাঅষ্টমী পূজা, সেদিন হবে সন্ধিপূজা। এদিন রামকৃষ্ণ মিশনে কুমারী পূজা হওয়ার কথা থাকলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার তা হচ্ছে না। রোববার (২৫ অক্টোবর) সকালে বিহিত পূজার মাধ্যমে হবে মহানবমী পূজা। আর সোমবার (২৬ অক্টোবর) সকালে দর্পণ বিসর্জনের পর প্রতিমা বিসর্জনের মাধ্যমে শেষ হবে দুর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা।

পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নির্মল কুমার চ্যাটার্জী জানান, আতশবাজি, আলোকসজ্জা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং ভুক্তিমূলক গান হবে না। জনসমাগম বন্ধ করতে এমনকি মন্দিরে মন্দিরে পূজার প্রসাদ খিচুরি বিতরণ হবে না। সন্ধ্যার মধ্যে ভক্তদের মন্দিরে না আসতে নিরুৎসাহিত করা হবে। বক্তরা যাতে বাড়ি থে অঞ্জলি দিতে পারেন এ জন্য,ডিজিটাল পদ্ধতি ব্যবহারের চেষ্টা করবে মন্দিরগুলো।মন্দিরে নারী ও পুরুষের জন্য আলাদা প্রবেশের ব্যবস্থা থাকবে। সামাজিক দূরত্ব মেনে, মাস্ক ব্যবহার করে ভক্তরা অঞ্জলি দিতে পারবেন। বিজয়া দশমীতে এবার বিজয়ার শোভাযাত্রা হবে না। মন্দিরগুলো তাদের নিজ নিজ ব্যবস্থাপনায় প্রতিমা বিসর্জনের দিবে।

সারা দেশে এবার মোট ৩০ হাজার ২৩১টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে। গতবারের থেকে করোনার কারণে এবার এক হাজার ১৮৫টি মণ্ডপে পূজা কম হচ্ছে।