নেই শোভাযাত্রা, নিরবে হলো প্রতিমা বিসর্জন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
নেই শোভাযাত্রা, নিরবে হলো প্রতিমা বিসর্জন/ছবি: সুমন শেখ

নেই শোভাযাত্রা, নিরবে হলো প্রতিমা বিসর্জন/ছবি: সুমন শেখ

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে শেষ হলো হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা।

এর আগে মণ্ডপগুলোতে চলে সিঁদুর খেলা আর আনন্দ-উৎসব। হিন্দু সধবা নারীরা প্রতিমায় সিঁদুর পরিয়ে দেন, নিজেরা একে অন্যকে সিঁদুর পরিয়ে দেন। তবে করোনা কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ আয়োজন ছিল একবারেই সীমিত পরিসরে।

বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে সদরঘাটের ওয়াইজঘাটের বিনা স্মৃতি স্নানঘাটে বিসর্জন দেওয়া হয়

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ থেকে আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল-এবার প্রতিমা বিসর্জনে শোভাযাত্রা বের হবে না। বিসর্জনের জন্য একটি ট্রাকে একসঙ্গে অনেক মানুষ গেলেও এবার একটি ট্রাকে প্রতিমা বিসর্জনের জন্য ১০ জন যেতে পারবেন। এর বাইরে অতিরিক্ত যাওয়া যাবে না বলে নির্দেশনা দেওয়া হয়। তাই নিরবেই দেওয়া হলো প্রতিমা বিসর্জন।

আজ সকাল ৬টা ৪৫ মিনিট পর শ্রী শ্রী দেবীর দশমীবিহিত পূজারম্ভ প্রতিমা- নিরঞ্জন ও শান্তির জল প্রদান করা হয়

সোমবার (২৬ অক্টোবর) বিকাল ৫টার দিকে ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরসহ রাজধানীর বিভিন্ন পূজামণ্ডপ থেকে প্রতিমা নিয়ে এসে বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে সদরঘাটের ওয়াইজঘাটের বিনা স্মৃতি স্নানঘাটে বিসর্জন দেওয়া হয়।

গত ২২ অক্টোবর থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুরু হয় বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা

এ সময় শঙ্খ আর উলুধ্বনি, খোল-করতাল-ঢাকঢোলের সনাতনী বাজনা থাকলেও মানুষের উপস্থিতি ছিল কম। তবে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ওয়াইজঘাটে পুলিশ, র‌্যাব ও নৌ পুলিশ বাহিনীর সদস্য মোতায়েন ছিল।

এর আগে আজ সকাল ৬টা ৪৫ মিনিট পর শ্রী শ্রী দেবীর দশমীবিহিত পূজারম্ভ প্রতিমা- নিরঞ্জন ও শান্তির জল প্রদান করা হয়।

সিঁদুর খেলা

চণ্ডীপাঠ, বোধন এবং দেবীর অধিবাসের মধ্য দিয়ে গত ২২ অক্টোবর থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুরু হয় বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা। প্রতিবারের মতো মহাষষ্ঠী, মহাসপ্তমী, মহাষ্টমী ও মহানবমীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের নারী-পুরুষরা ধর্মীয় নানা আচার-অনুষ্ঠান পালন করেছেন। এবার দেবী এসেছেন দোলায়, বিদায় নেবেন গজে চড়ে।

 করোনা কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ আয়োজন ছিল একবারেই সীমিত পরিসরে

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের দেওয়া তথ্য অনুসারে, এ বছর সারা দেশে ৩০ হাজার ২২৩টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়। গত বছর সারা দেশে দুর্গাপূজার মণ্ডপের সংখ্যা ছিল ৩১ হাজার ৩৯৮টি। গত বছরের তুলনায় এবার এক হাজার ১৭৫টি কম মণ্ডপে পূজা হয়। অন্য দিকে ঢাকা মহানগরে এ বছর পূজা মণ্ডপের সংখ্যা ২৩৩টি। গত বছর এ সংখ্যা ছিল ২৩৭টি। আর ঢাকা জেলায় পূজা হয় ৭৪০টি মণ্ডপে।