কালীগঞ্জে সমাজকল্যাণ মন্ত্রীর বাড়ির সামনে লাশ নিয়ে বিক্ষোভ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, লালমনিরহাট
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে মামলাবাজ ও অত্যাচারী নারী তাবাসসুম রায়হান মুসতাযীর তামান্নার গ্রেফতার দাবিতে নিহত খলিলের মরদেহ নিয়ে সমাজকল্যাণ মন্ত্রীর বাড়ির ফটকে মানববন্ধন ও মহাসড়ক অবরোধ করেছে গ্রামবাসী। এসময় মহাসড়কে শত শত যানবহন আটকা পড়ে।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টা থেকে ৩ ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন ও মন্ত্রীর বাড়ির ফটকের সামনে লালমনিরহাট-বুড়িমারী মহাসড়ক অবরোধ করেন গ্রামবাসী। নিহত দিনমজুর খলিল মিয়া (৩৪) কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার ইউনিয়নের কাশিরাম গ্রামের আবদার মুন্সির ছেলে।

অবরোধকারী গ্রামবাসী জানান, উপজেলার কাশিরাম গ্রামের ফজলু মাস্টারের মেয়ে স্থানীয় উত্তর বাংলা কলেজের প্রভাষক এস. তাবাসুম রায়হান মুসতাযীর তামান্না সামান্য বিষয় নিয়ে একের পর এক মিথ্যা মামলা ও পুলিশি হয়রানি করে গ্রামবাসীকে জিম্মি করে। তার হয়রানির প্রতিবাদে থানায় অভিযোগ দিলেও পুলিশ তা আমলে না নিয়ে উল্টো তামান্নার মিথ্যা মামলা গ্রহণ করে প্রায় অর্ধশত নিরীহ গ্রামবাসীকে হাজতবাস করেছেন। কালীগঞ্জ থানার ওসি আরজু মো. সাজ্জাদ হোসেনসহ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সাথে সুসম্পর্কের কারণে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রামবাসীকে হয়রানি করে আসছেন তামান্না। হয়রানি থেকে মুক্তি পেতে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ সরকারি বিভিন্ন দফতরে গ্রামবাসী একাধিকবার গণপিটিশন দিয়েও প্রতিকার পায়নি।

তামান্নার দায়ের করা একটি মিথ্যা মামলায় ওই গ্রামের দিনমজুর খলিল মিয়া আদালতে যাওয়ার পথে অটোরিকশার ধাক্কায় গুরুতর আহত হয়। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুইদিন চিকিৎসাধীন থেকে সোমবার (২৬ অক্টোবর) মারা যান দিনমজুর খলিল মিয়া। এতে ফুঁসে উঠে পুরো এলাকাবাসী।

প্রভাষক তামান্নার গ্রেফতার, কালীগঞ্জ থানার ওসি সাজ্জাদের প্রত্যাহারসহ তামান্নার দায়ের করা সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মৃত খলিলের মরদেহ নিয়ে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের বাড়ির ফটকের সামনে মানববন্ধন করে। এসময় লালমনিরহাট-বুড়িমারী মহাসড়ক অবরোধ করেন গ্রামবাসী।

পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে এসে অবরোধ তুলে নিতে দুই ঘণ্টা চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন কালীগঞ্জ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) জাহাঙ্গীর আলম। এতে মহাসড়কের উভয় প্রান্তে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। এতে ভোগান্তিতে পড়েন যাত্রীরা।

এসময় দুই দিনের সফরে আসা সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের গাড়ি বহরও আসতে বিলম্ব হয়। দীর্ঘ যানজট অতিক্রম করে দুই ঘণ্টা পরে মন্ত্রীর গাড়ি বাড়ির সামনে পৌঁছলে মন্ত্রী তাদের দাবি ভেবে দেখার আশ্বাস দিলেও মহাসড়ক ছেড়ে দেয়নি গ্রামবাসী। অসুস্থ মন্ত্রীকে বাড়িতে প্রবেশের সুযোগ দিলেও মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন গ্রামবাসী।

অবশেষে দুপুর দেড়টার দিকে অবরোধকারী গ্রামবাসীর কয়েকজনকে নিজ বাড়িতে ডেকে নেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ। এ সময় গ্রামবাসীর দাবিগুলো শুনে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তামান্নার বিরুদ্ধে ইতিপূ দাখিল করা অভিযোগ আমলে নিয়ে তাকে গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেয় গ্রামবাসী।