দলকে শক্তিশালী করতে ঐক্যের বিকল্প নেই: সমাজকল্যাণ মন্ত্রী



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, লালমনিরহাট
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ বলেছেন, দলকে শক্তিশালী করতে বিভেদ ভুলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। শক্তিশালী করতে ঐক্যের বিকল্প নেই। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন দেখে অনেকেই গ্রুপিং করে নেতাকর্মীদের আলাদা করার চেষ্টা করছে। এ বিষয় সবাইকে সর্তক থাকতে হবে।

বুধবার (২৮ অক্টোবর) বিকেলে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত বর্ধিত সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

সমাজকল্যাণ মন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালের পরে আমাদের দলের দুর্ভোগ গেছে। সে সময় আ.লীগের পরিচয় দিলে লাঞ্ছিত হতে হয়েছে। বঞ্চনার শিকার হতে হয়েছে। পাকিস্তানী দোসর বিএনপি জামায়াত ভেবেছিল আওয়ামী লীগ আর কোনো দিন ক্ষমতায় আসতে পারবে না। তাই ভেবে লুটপাটে নেমেছিল। কিন্তু দেশের মানুষ বিএনপি জামায়াতের লুটপাটের উচিত জবাব দিয়ে আওয়ামী লীগকে সমর্থন করে আসছে।

মন্ত্রী বলেন, জনগণের রায়ে প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় এসে ধূলিকণার বাংলাদেশকে আজ উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত করেছেন। দেশের উন্নয়ন দেখে বিশ্ববাসী আজ অবাক। তারা ভাবছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলাদিনের চেরাগ পেয়েছেন। উন্নয়নের জাদু রয়েছে বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার হাতে।

লালমনিরহাটবাসীর দুর্ভোগের মূল কারণ তিস্তার ভাঙন রোধে প্রধানমন্ত্রী মহা-পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন। এটি বাস্তবায়ন হলে সারা বিশ্বের মানুষ তিস্তা পাড়ের লালমনিরহাটকে দেখতে আসবে। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য সকলের কাছে দোয়া চান সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শওকত আলীর সভাপতিত্বে বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সংসদ সদস্য সাবেক প্রতিমন্ত্রী মোতাহার হোসেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলমের সঞ্চালনায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বর্ধিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সফুরা বেগম রুমী, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি সিরাজুল হক, সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট বাদল আশরাফ ও যুগ্ম সম্পাদক গোলাম মোস্তফা স্বপন প্রমুখ।

এ সময় আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে উপজেলার সকল ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটি সম্মেলনের মাধ্যমে চূড়ান্ত করার ঘোষণা দেন দলটি সিনিয়র নেতারা। বর্তমান কমিটিই এসব ইউনিটে সম্মেলনের আয়োজন করবে। দীর্ঘদিন পরে হলেও বর্ধিত সভায় সিনিয়র নেতাদের নিজেদের পাওয়া না পাওয়ার ক্ষোভ প্রকাশ করেন তৃনমূলের নেতাকর্মীরা। এমন বর্ধিত সভা আগামী দিনেও আয়োজন করাসহ তৃনমূলের নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করার দাবি করেন ইউনিয়ন কমিটির নেতাকর্মীরা।