পৌর নির্বাচন: কুয়াকাটায় দুর্গম এলাকায় মোটরসাইকেলে মাইকিং!



আব্দুস সালাম আরিফ, বার্তা২৪.কম, পটুয়াখালী
কুয়াকাটায় দুর্গম এলাকায় মোটরসাইকেলে মাইকিং

কুয়াকাটায় দুর্গম এলাকায় মোটরসাইকেলে মাইকিং

  • Font increase
  • Font Decrease

 

দুর্গম পথ, কোথাও নেই চলাচলের সুযোগ, আবার কোথাও বা সাগর তীর ধরে যেতে হয় ভোটারদের বাড়ি। তাইতো তিন চাকার যানবাহনে চিরচেনা নির্বাচনী মাইকিং এখানে অসম্ভব। তবে এমন প্রতিকূলতাকে জয় করে মোটসাইকেলে করে চলছে কুয়াকাটা পৌরসভা নির্বাচনের প্রচার প্রচারণা। গ্রামের অলিগলি থেকে কৃষি জমি পার হয়ে সব খানেই পৌঁছে যাচ্ছে নির্বাচনী মোটরসাইকেল।

আগামী ২৮ ডিসেম্বর দ্বিতীয় বারের মতো পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার কুয়াকাটা পৌরসভা নির্বাচনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

ভোটাররা জানান, প্রার্থীরা সপ্তাহে একদুই বার আসলেও মোটরসাইকেলে করে মাইকিং চলে প্রতিদিন। মাধেমধ্যে মাইকে প্রার্থীদের পক্ষে বিভিন্ন গানও পরিবেশন করা হয়। শহরের মতো গ্রামের অলি গলিতেও তাই এখন নির্বাচনের আমেজ বিরাজ করছে। প্রতিদিনি দুপুর ২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত নির্বাচনী মাইকিং চলে।

নির্বাচনী আচরণ বিধী অনুযায়ী, মেয়র প্রার্থীরা প্রতিটি ওয়ার্ডের জন্য একটি করে প্রচার মাইক ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়া কাউন্সিলর প্রার্থীরা একটি এবং মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থীরা তিনটি প্রচার মাইক ব্যবহার করতে পারেন।

জেলা নির্বাচন অফিসার জিয়াউর রহমান খলিফা বলেন, ‘প্রতীক বরাদ্দের সময় প্রার্থীদের সাথে মাইকিং বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সেখানে সবাই শব্দ দূষণ হয় এমন কাজ করবেন না বলে একমত পোষণ করেন। তবে এই এলাকার পেক্ষাপটে মোটরসাইকেলে মাইকিং করার বিষয়টি নতুন। সাধারণত গাড়ী, সিএনজি, রিকশা, কিংবা অটোরিকশায় নির্বাচনী মাইকিং করতে দেখা যায়। ’

জানা গেছে, ইভিএম’র মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এর পৌরসভা নির্বাচনে মোট চারজন মেয়র প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আব্দুল বারেক মোল্লা এবং সাবেক জাতীয় পার্টি নেতা আনোয়ার হোসেনের মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দিতা হতে পারে।

এদিকে নির্বাচন সুষ্ঠু করতে এলাকায় নিরাপত্তা বাড়িয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। এই নির্বাচনে ৯টি ওয়ার্ডে ৯টি ভোট কেন্দ্রের ৩৬টি ভোট কক্ষে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এবার মোট ভোটার সংখ্যা ৮১২২ জন, এর মধ্যে পুরুষ ৪ হাজার ১৭৭ জন এবং নারী ৩ হাজার ৯৪৫ জন।