গৌরীপুর পৌর নির্বাচন: মিথ্যা মামলার জবাব ব্যালটেই দিবে জনগণ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
ময়মনসিংহের গৌরীপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ রফিকুল ইসলাম

ময়মনসিংহের গৌরীপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ রফিকুল ইসলাম

  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহের গৌরীপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ রফিকুল ইসলাম বলেছেন, শুভ্র হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে আমার বিরুদ্ধে যে মিথ্যা মামলা হয়েছে তার জবাব এবারের পৌর নির্বাচনে জনগণ ব্যালটের মাধ্যমেই দিবে। ভোটেই প্রমাণ হবে আমি নির্দোষ কিনা।’

শুক্রবার (২২ জানুয়ারি) বিকেলে উপজেলার পৌর শহরে নিজের বাড়ির সামনে সাংবাদিকদের সাথে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন গত দুইবারের এ মেয়র।

সৈয়দ রফিকুল ইসলাম গৌরীপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও গৌরীপুর পৌর সভার বর্তমান মেয়র। এবার নির্বাচনেও তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। তবে গত ১৭ অক্টোবর গৌরীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান ওরফে শুভ্রকে হত্যা করে দুবৃর্ত্তরা। এ মামলায় সৈয়দ রফিকুল ইসলামকে আসামি করার কারণে তাকে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে সৈয়দ রফিকুল ইসলাম হত্যা মামলায় জামিনে মুক্ত হয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন।

সভায় সৈয়দ রফিকুল ইসলাম বলেন, নির্বাচনের আগে আমাকে হত্যা মামলার মিথ্যা আসামি করা হয়েছে। কারাগারে থেকেই আমি মনোনয়ন ফরম পূরণ করেছি। কিন্তু যাচাই-বাছাইয়ে আমার মনোনয়ন বাতিল করা হয়। পরে আপিলের মাধ্যমে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছি।

অভিযোগ করে বলেন, আমি যাতে নির্বাচনী মাঠে না থাকতে পারি সেজন্য এখন আমার প্রচারণায় বাঁধা দেওয়া হচ্ছে। আওয়ামী লীগের প্রার্থীর কর্মীরা আমার নির্বাচনের প্রচারণায় প্রতিদিন বাঁধা দিচ্ছেন। আমি নিজেও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এ সব বিষয়ে অন্তত পাঁচবার রির্টানিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করলেও কোন ফল পাওয়া যায়নি।

সুষ্ঠু নির্বাচনী পবিবেশ কামনা করে তিনি বলেন, আমার অস্তিত্ব হুমকি এখন মুখে। এসব অত্যাচার আর নির্যাতন থেকে বাঁচার জন্য এবার নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছি। জয়ী হয়েই আমি এসবের জবাব দিতে চাই।

উল্লেখ্য, আগামী ৩০ জানুয়ারি গৌরীপুর পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ রফিকুল ইসলাম ছাড়াও আওয়ামী লীগের প্রার্থী শফিকুল ইসলাম হবি, বিএনপির প্রার্থী আতাউর রহমান, ন্যাপ মনোনীত আবু সাঈদ মো. ফারুকুজ্জামান।

এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনী মাঠে আছেন আবদুল কাদির, আবু কাউসার চৌধুরী রন্টি। নিহত স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা মাসুদুর রহমানের স্ত্রী তাহরিমা আক্তার চুমকিও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।