সুন্দরগঞ্জে ‘সমলয় চাষাবাদ’ পদ্ধতিতে বোরো রোপন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, গাইবান্ধা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় বোরো ধানের ফলন বাড়াতে ‘সমলয় চাষাবাদ’ পদ্ধতিতে বোরো ধানের চারা রোপন শুরু করেছেন কৃষকরা। নতুন এ চাষাবাদ পদ্ধতি কৃষকদের মাঝে বেশ সাড়া জাগিয়েছে।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ব্লকের চেংমারী এলাকায় আনুষ্ঠানিকভাবে এ পদ্ধতিতে বোরো রোপণ উদ্বোধন করা হয়। উপজেলা কৃষি বিভাগের আয়োজনে এটি উদ্বোধন করা হয়।

প্রসঙ্গত, সমলয় চাষাবাদে সনাতন পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি না করে প্লাস্টিকের ফ্রেম বা ট্রেতে বীজ বপন করা হয়েছে। এতে ৩:২ অনুপাতে মাটি ও গোবরের মিশ্রণ ব্যবহার করা হয়। এরপর বীজ ছিটিয়ে পুনরায় অর্ধেক মাটি ও গোবর মিশ্রণ দিয়ে সমতল জায়গায় রেখে পানি দিয়ে ভিজিয়ে রাখা হয়। বীজতলা তৈরির ৩ দিনের মধ্যে অঙ্কুর বের হয়ে যায়। ২০-২৫ দিনের মধ্যে চারা উৎপাদন করা যায়। পরবর্তীতে রাইস ট্রান্সপ্ল্যান্টারের মাধ্যমে চারা রোপণ শুরু হয়।

জানা যায়, মানুষ বাড়লেও, বাড়ছে না কৃষি জমি। তাই স্বল্প জমিতে অধিক ধান উৎপাদন করে মানুষের খাদ্য চাহিদা পূরণ করতে হবে- কৃষি মন্ত্রণালয়ের এমন নির্দেশনায় সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় প্রথমবারের মতো উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে সমলয় পদ্ধতিতে বোরো ধান চাষাবাদ শুরু করা হয়েছে।

আর আগে সরকারি কৃষি প্রণোদনা কার্যক্রমের আওতায় কৃষকরা নতুন মাত্রায় ট্রেতে বীজতলা তৈরি শুরু করছিলেন। তারা মেশিন দিয়ে মাটিভর্তি ট্রেতে বপন করছিল ইস্পাহানি-৭ হাইব্রিড জাতের ধানবীজ। সেই বীজের চারা দিয়ে রোপন করা হচ্ছে সমলয়ে চাষাবাদ।

চেংমারি গ্রামের কৃষক মেহেদী হাসান জানান, সমলয়ে চাষাবাদে আগে কখনও বোরো ধান  করা হয়নি। স্থানীয় কৃষি বিভাগের সার্বিক সহযোগিতায় এই প্রথমে রোপন করা হচ্ছে। তাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী হয়তো ভালো ফলন পাওয়া যাবে।

দক্ষিণ শ্রীপুর ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মনজুরুল হক রাজীব বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘বোরো ধান সমলয় চাষাবাদে সার্বিক সহযোগিতাসহ কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।’

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার সৈয়দ রেজা-ই মাহমুদ বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘একযোগে কৃষকের ফসল উৎপাদন করার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে এটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এতে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে কৃষকরা বেশি ফলন পাওয়া সম্ভব।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় ৫০ একর জমিতে এ পদ্ধতিতে বোরো ধান চাষ করা হচ্ছে। আশা করছি ভালো ফল পাওয়া যাবে।’