সস্তায় তাজা ফল-শাকসবজি নিশ্চিতে নগর কৃষি নীতিমালা জরুরি



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম 
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাকালে সৃষ্ট বৈষম্য কমাতে দুই বছরের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ খাদ্য সরবরাহ নিশ্চিত করার সুপারিশ করেছে বিশিষ্টজনরা। তারা এ বিষয়ে পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের কৌশল নিরূপণ এবং বাজার ও সাপ্লাই চেইন নিয়ন্ত্রণে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

শনিবার (৩০ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় ‘নগরে স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্য নিশ্চিতে সহায়ক নীতি গ্রহণে করণীয়’ শীর্ষক শিরোনামে এক ওয়েবিনারে দেশের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা এ কথা বলেন।

আর্ক ফাউন্ডেশন, সেন্টার ফর ল অ্যান্ড পলিসি অ্যাফেয়ার্স (সিএলপিএ) ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ও মেয়র এলায়েন্স ফর হেলদি সিটি’র যৌথ উদ্যোগে এ ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত হয়।

বক্তারা বলেন, অসংক্রামক রোগ সারা বিশ্বে প্রতিরোধযোগ্য মৃত্যুর অন্যতম কারণ। বাংলাদেশেও এটি ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছে। কারণ বর্তমানে দেশে ৬৭ শতাংশ মৃত্যুর কারণ অসংক্রামণজনিত রোগ। এসডিজির লক্ষ্য বাস্তবায়নে বাংলাদেশকে আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে অসংক্রামক রোগজনিত মৃত্যু ৩০ শতাংশে নামিয়ে আনতে হবে।

বক্তারা বলেন, অসংক্রামক রোগ বৃদ্ধির প্রধান কারণ দ্রুত বৃদ্ধি পাওয়া নগরায়ন এবং জনসংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি অস্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রা; অস্বাস্থ্যকর খাদ্য গ্রহণের অভ্যাস; তাজা শাক-সবজি-ফলমূল কম খাওয়া; শরীরচর্চা, ব্যায়াম বা পর্যাপ্ত শারীরিক পরিশ্রমের অভাব; অতিরিক্ত স্থুলতা; অনিয়ন্ত্রিত মাদক সেবন এবং ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার এবং পরিবেশ দূষণ।

তারা আরও বলেন, অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধে স্বাস্থ্যকর খাদ্য গ্রহণে উৎসাহী করতে ফল, সবজি গ্রহণে উৎসাহী এবং ট্রান্সফ্যাট, অতিরিক্ত চিনি, লবণ গ্রহণে নিরুৎসাহিত করতে সচেতনতা, পুষ্টি সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক মানদন্ড প্যাকেটে যুক্ত করা, খাদ্যে লবণ গ্রহণে নিরুসাহিত করা, উচ্চ কর আরোপ, অস্বাস্থ্যকর খাদ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণ এবং বিজ্ঞাপন বন্ধ করার পদক্ষপে গ্রহণ জরুরি। 

ওয়েবিনারে তারা আরও বলেন, স্বাস্থ্যকর খাদ্য গ্রহণে জনগণকে উৎসাহী করতে অস্বাস্থ্যকর খাদ্য নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। কারণ এ দুটি সমান্তরালভাবে করা সম্ভব না। তবে স্বাস্থ্যকর খাদ্য উৎপাদনের জন্য ভর্তুকি এবং কর হ্রাস একটি কার্যকর উপায়। স্বাস্থ্যকর খাদ্যের ফুড সাপ্লাই চেইনের আইন ও সাহায়ক নীতি প্রণয়ন, সংশোধন, পরিমার্জন করা না হলে জনগণের কাছে সুফল পৌঁছে দেয়া সম্ভব নয়।

ওয়েবিনারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক ও আর্ক ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী অধ্যাপক ড. রুমানা হকের সভাপতিত্বে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, মানিকগঞ্জ পৌরসভার মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম, ধামরাই পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব গোলাম কবির, সুন্দরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আব্দুর রশিদ ডাবলু, গাইবান্ধা ১ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী।

আর ওয়েবিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিএলপিএ এর সেক্রেটারি সৈয়দ মাহবুবুল আলম।

ওয়েবিনারে বাংলাদেশ নেটওয়ার্ক ফর টোব্যাকো ট্যাক্স পলিসি (বিএনটিটিপি), এইড, প্রত্যাশা মাদক বিরোধী সংগঠন, ডাস, গ্রামবাংলা উন্নয়ন কমিটি, ওয়ার্ক ফর বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এবং বাংলাদেশ তামাক বিরোধী জোটের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।

ভোলার ঢালচরে মাছ ধরার দুটি ট্রলার ডুবি, ৮ জেলে নিখোঁজ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ভোলা
ভোলার ঢালচরে মাছ ধরার দুটি ট্রলার ডুবি, ৮ জেলে নিখোঁজ

ভোলার ঢালচরে মাছ ধরার দুটি ট্রলার ডুবি, ৮ জেলে নিখোঁজ

  • Font increase
  • Font Decrease

ভোলার ঢালচরে বৈরি আবহাওয়ায় কবলে পরে  মাছ ধরার দুটি ট্রলার ডুবে গেছে ১০ জেলে জীবিত উদ্ধার, ৮ জেলে নিখোঁজ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আজ মঙ্গলবার (৯ আগস্ট)  বিকেলে বয়ার চরের পূর্ব দিকে ১৩ জেলে নিয়ে ইউসুফ মাঝির ট্রলার ডুবে যায়। খবর পেয়ে অন্য ট্রলারের মাঝিরা ৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করে। এখনও ৮ জেলের সন্ধান পাওয়া যায়নি। এছাড়া সকালে ঢালচরের তারুয়া এলাকায় ৫ জেলে নিয়ে অপর একটি ট্রলার ডুবে গেছে। এতে হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি। ট্রলার মাঝি ইউসুফ মাঝি জানিয়েছেন, তার ৮ জেলের ভাগ্যে কি রয়েছে তা এখনো জানা সম্ভব হয়নি। বৈরী আবহাওয়া এবং গভীর অন্ধকারের কারনে তাদের উদ্ধার করা সম্ভব হচ্ছে না। কোস্ট গার্ড কিংবা নৌ পুলিশ এখনও উদ্ধার কাজ শুরু করেনি।

কোস্ট গার্ড দক্ষিণ জোন ভোলার মিডিয়া কর্মকর্তা লেফটানেন্ট কে.এম শাফিউল কিঞ্জল জানান, যে দুটি ট্রলার ডুবছে সে বিষয়ে কোস্টগার্ড অবগত রয়েছে। এর মধ্যে একটি ট্রলারের সবাইকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। অন্য ট্রলারের যারা নিখোঁজ রয়েছে তাদেরকে উদ্ধারের জন্য কোস্টগার্ডের পূর্ব এবং পশ্চিম যোনকে জানানো হয়েছে। তারা উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করবে। এছাড়া কোস্টগার্ড দক্ষিণ জোনের সমুদ্রগামী জাহাজ না থাকায় তারা এখনও উদ্ধার কাজ শুরু করতে পারেনি। তবে আগামীকাল সকালে নিখোঁজ জেলেদের উদ্ধারে  কাজ শুরু করবেন বলেও জানান তিনি।

;

‘আমরা অর্থের ঘাটতিতে এখন কিছুটা অসুবিধায় আছি’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান

  • Font increase
  • Font Decrease

বৈশ্বিক পরিস্থিতির প্রভাব বাংলাদেশের অর্থনীতিতে পড়ছে বলে মন্তব্য করেছন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেছেন, আমরা অর্থের ঘাটতিতে এখন কিছুটা অসুবিধায় আছি। এ সমস্যা আমাদের নয়। অন্য রাষ্ট্রের তৈরি সমস্যা হঠাৎ আমাদের ওপর এসে পড়েছে। 

সোমবার সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলার এফআইভিডিবি হলে স্বেচ্ছাধীন তহবিল থেকে আর্থিক অনুদান বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, আমরা বিদ্যুৎ দিয়েছি ঘরে ঘরে। এখন বিদ্যুৎ একটু কম পেলেও মাসখানেক পরই সব ঠিক হয়ে যাবে। অর্থের ঘাটতিতে পড়ায় এই সময়ে আমরা কিছুটা অসুবিধায় আছি। এই সমস্যা আমাদের তৈরি নয়, অন্য রাষ্ট্রের তৈরি সমস্যা আমাদের ওপর এসে পড়েছে। ধৈর্য্য ধারণ করতে হবে। সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে। 

এম এ মান্নান আরও বলেন, এইবারের বন্যায় গরিবের কষ্ট হয়েছে বেশি। কাঁচা ঘরবাড়ি ভেসে গেছে। সরকার তাদের সহায়তা করছে, আরও করবে।

সরকারকে একটু সময় দেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার সরকার গরিবের সরকার। উপস্থিত লোকজনকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনারা ভোট দিয়েছেন, এ জন্য গরিবের সরকার ক্ষমতায় আছে। আবারও ভোট দেওয়ার সময় আসবে, গরিবের কাজ করে যারা, তাদেরই ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

আর্থিক অনুদান বিতরণ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, শান্তিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আনোয়ারুজ্জামান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রভাষক নুর হোসেন প্রমুখ।

;

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি: বেনাপোল বন্দরে বাণিজ্য-ভ্রমণে বিরূপ প্রভাব



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বেনাপোল (যশোর)
জ্বলানি তেলের দাম বৃদ্ধি: বেনাপোল বন্দরে বাণিজ্য-ভ্রমণে বিরূপ প্রভাব

জ্বলানি তেলের দাম বৃদ্ধি: বেনাপোল বন্দরে বাণিজ্য-ভ্রমণে বিরূপ প্রভাব

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে বেনাপোল বন্দরে বাণিজ্যে পড়েছে বিরূপ প্রভাব। অতিরিক্ত ভাড়ার কারণে বন্দর থেকে কমেছে পণ্য খালাস। বেনাপোল থেকে ঢাকা ট্রাক ভাড়া বেড়েছে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। এতে পণ্যের দামও বাড়তে শুরু করেছে। এদিকে বাস ভাড়া ইচ্ছেমতো আদায় করছে পরিবহন ব্যবসায়ীরা। বাস ভাড়া বাড়ায় যাত্রীর সংখ্যাও কমেছে।

দ্রুত এ পরিস্থিতি কাটিয়ে স্বস্তি ফেরাতে সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে এমন প্রত্যাশা মানুষের। এদিকে পরিবহন ব্যবসায়ীরা বলছেন তেলের মূল্য কমলে আবারও বর্ধিত ভাড়া কমে আসবে।

রাশিয়ার সাথে ইউক্রেনের যুদ্ধের কারণে বিশ্বে তেলের বাজারে অস্তিরতা দেখা দিয়েছে। আমদানি নির্ভর বিভিন্ন দেশে বাড়ে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। পরিস্থিতি সামলাতে গত শুক্রবার দেশে জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে ডিজেল ও কেরোসিনে ৩৪ টাকা। পেট্রোল ৪৪ টাকা ও অকটেন বেড়ে দাঁড়ায় ৪৬ টাকা। দেশে তেলের দাম বৃদ্ধিতে প্রভাব পড়ে পণ্য পরিবহন ও যাত্রী যাতায়াতে। এতে দীর্ঘশ্বাস ফেলছেন নিম্ন আয়ের মানুষ।

খেটে খাওয়া শ্রমিক রহিম জানান, একসাথে এত পরিমানে তেলের মুল্য বৃদ্ধিতে প্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। ছেলে মেয়েদের লেখা, পড়ার খরচ সামনের দিনে কিভাবে খরচ চালাবো?

পণ্য পরিবহনকারী ট্রাক চালক জামাল জানান, বেনাপোল থেকে ঢাকা আসা যাওয়ায় তেল খরচ বেড়েছে ৫ হাজার টাকা। তবে ভাড়া পাচ্ছি না।

ভারতগামী পাসপোর্ট যাত্রী মহাসিন জানান, ইচ্ছেমতো ভাড়া নিচ্ছে পরিবহন ব্যবসায়ীরা। দেখার কেউ নেই।

আমদানিকারক উজ্বল বিশ্বাস জানান, প্রতিদিন বেনাপোল বন্দর থেকে প্রায় ৭শ ট্রাক  দেশের অভ্যন্তরে পণ্য পরিবহন করা হয়। আর পাসপোর্ট ধারী যাত্রী চলাচলে শতাধিক পরিবহন চলে এ রুটে। জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধিতে বিরূপ প্রভাব পড়েছে বাণিজ্যে। বেনাপোল থেকে ঢাকা পণ্য পরিবহনে ৫ হাজার টাকা অতিরিক্ত নিচ্ছেন চালকেরা। তবে সে অনুযায়ী বাজারে দাম পাওয়া যাচ্ছে না। যেহেতু বিশ্ব বাজারে আবারো তেলের দাম কমছে তাই সরকারকেও দাম সহনীয় পর্যায়ে আনান অনুরোধ রাখছি।

বাস চালক আলী জানান, তেলের মূল্য বৃদ্ধিতে নানন সমস্যার সন্মুখিন হতে হচ্ছে। যাত্রীরা অতিরিক্ত ভাড়া দিতে চাইছে না। এক সাথে এত টাকা ভাড়া বাড়ানো উচিত হয়নি সরকারের।

বেনাপোল ট্রাক ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতির সেক্রেটারি আজিম উদ্দীন গাজী জানান, তেলের মূল্য বৃদ্ধিতে পূর্বের চেয়ে ২৫ শতাংশ ট্রাক ভাড়া বেড়েছে। তবে তেলের দাম কমলে আবারো ভাড়া কমে আসবে।

;

বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরা ট্রলার ডুবি, নিখোঁজ ১১ জেলে



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নোয়াখালী
বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরা ট্রলার ডুবি, নিখোঁজ ১১ জেলে

বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরা ট্রলার ডুবি, নিখোঁজ ১১ জেলে

  • Font increase
  • Font Decrease

নোয়াখালী হাতিয়ার বঙ্গোপসাগরে মাছধরা ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটেছে। এতে চার জেলে জীবিত উদ্ধার হলেও নিখোঁজ রয়েছে ১১ জন। মঙ্গলবার দুপুরে জীবিত উদ্ধার হওয়া জেলেরা এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

দূর্ঘটনার কবলে পড়া ট্রলারের মালিক হাতিয়ার জাহাজমারা আমতলি গ্রামের বাসিন্দা লুৎফুল্লাহিল মজিব নিশান জানান, মঙ্গলবার ভোরে ট্রলারটি ঝড়ের কবলে পড়ে পটুয়াখালীর জেলার দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরে ডুবে যায়। পরে পাশে থাকা একটি ট্রলার চার জেলেকে উদ্ধার করে পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার মহিপুর নিয়ে আসে। উদ্ধার হওয়া জেলেরা মঙ্গলবার বিকালে মোবাইলে এই সংবাদ জানান তাকে।

দূর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় সাগর উত্তাল থাকায় ট্রলার ও নিখোঁজ জেলেদের উদ্ধারে চেষ্টা করা যাচ্ছে না বলে জানান তিনি।

নিখোঁজ জেলে  মো: সোহেলের (২২) ভাই মোটরসাইকেল চালক মো: রাসেল জানান, তার ভাইসহ ১৫ জন জেলেকে নিয়ে  ট্রলারটি ঝড়ের কবলে পড়ে উল্টে যায়।  চারজনকে অন্য একটি ট্রলার উদ্ধার করে। তার ভাইসহ ১১ জন জেলে এখনও নিখোঁজ রয়েছে।

হাতিয়ার জাহাজমারা ইউপি চেয়ারম্যান মাসুম বিল্লাহ জানান, দূর্ঘটনার কবলে পড়া ট্রলারটি জাহাজমারা আমতলী ঘাটের। নিখোঁজ ১৩ জেলের মধ্যে ৫ জনের বাড়ী জাহাজমারা আমতলী গ্রামে। অন্য ৮ জনের বাড়ী একই উপজেলার হরনী ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে। সবার বাড়ীতে শোকের মাতাম চলেছে।

হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হোসেন জানান, হাতিয়া উপকূল থেকে ১০০ কিলোমিটার দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরে একটি ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় চারজনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। ১১ জন জেলে নিখোঁজ রয়েছেন।

;