একমাসে বরিশালে টিকাগ্রহীতা ১ লাখ ৭২ হাজারের বেশি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বরিশাল
বরিশালে টিকাগ্রহীতা

বরিশালে টিকাগ্রহীতা

  • Font increase
  • Font Decrease

বরিশাল বিভাগের ছয় জেলায় গত একমাসে করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১ লাখ ৭২ হাজার ১১৯ জন। এরমধ্যে বরাদ্দ অনুয়ায়ী বরিশাল জেলায় ভ্যাকসিন নেওয়ার হার বেশি। সবচেয়ে কম ভ্যাকসিন নিয়েছেন ঝালকাঠি জেলার মানুষ।

প্রথমধাপে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, ডাক্তার-নার্স, স্বাস্থ্য বিভাগ সংশ্লিষ্ট, মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিকসহ ১৫ ক্যাটাগরির মানুষের মাঝে করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ প্রদান করা হচ্ছে।

বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য বিভাগ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত মাসের ৭ ফেব্রুয়ারি সারা দেশের ন্যায় বরিশালেও করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেওয়া শুরু হয়। এরপর থেকে চলতি মাসের ৭ মার্চ পর্যন্ত অর্থ্যাৎ গত একমাসে এই বিভাগে ১ লাখ ৭২ হাজার ১১৯ জন মানুষ করোনার ভ্যাকসিন নিয়েছেন।

এরমধ্যে বরিশাল জেলায় ৫৪ হাজার ৭৫৪ জন, ভোলায় ৩২ হাজার ৩৪৯ জন, পটুয়াখালীতে ২৯ হাজার ৩৪২ জন, পিরোজপুরে ২৬ হাজার ৯৭ জন, বরগুনায় ১৬ হাজার ৪১১ জন ও সবচেয়ে কম ঝালকাঠি জেলায় ১৩ হাজার ১৯৬ জন।

আরও জানা গেছে, গত ২৯-৩১ জানুয়ারির মধ্যে বরিশাল বিভাগে কোভিডশিল্ড ভ্যাকসিন এসেছে ৩ লাখ ৪৮ হাজার ১০ ডোজ। এরমধ্যে বরিশালে এক লাখ ৬৮ হাজার ১০ ডোজ, ঝালকাঠিতে ১২ হাজার ডোজ, পিরোজপুরে ৩৬ হাজার ডোজ, পটুয়াখালীতে ৪৮ হাজার ডোজ, বরগুনায় ২৪ হাজার ডোজ ও ভোলায় ৬০ হাজার ডোজ পেয়েছে।

এসব ভ্যাকসিন সরকারি নিয়ম অনুযায়ী আইস লাইনড রেফ্রিজারেটরে (আইএলআর) বা হিমায়িত বাক্সে সংরক্ষণ করা হয়েছে।

করোনার টিকা নেওয়া মিথুন সাহা প্লাবন বার্তা২৪.কম-কে জানান, করোনা ভ্যাকসিন বরিশালে আসা মাত্রই ইচ্ছে করেছি ভ্যাকসিন গ্রহণ করবো। পাশাপাশি পরিবার, সহপাঠী ও সহকর্মীদেরও ভ্যাকসিন নিতে উদ্বুদ্ধ করেছি। ভ্যাকসিন নেওয়ার পর নিজেকে অনেকটাই চিন্তামুক্ত মনে করছেন এই সম্মুখযোদ্ধা সাংবাদিক।

বরিশাল স্বাস্থ্য বিভাগের সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) ডা. শ্যামল কৃষ্ণ মন্ডল বলেন, বরিশালে করোনা ভ্যাকসিন পৌঁছাবার সাথে সাথেই ভ্যাকসিন নিতে সবার আগ্রহ লক্ষ করা গেছে। বরিশাল স্বাস্থ্য বিভাগ সে অনুয়াযী ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। প্রথমধাপে প্রথম ডোজে ১৫ ক্যাটাগরির বেশি মানুষ গ্রহণ করলেও পর্যায়ক্রমে সকলকেই ভ্যাকসিন গ্রহণের আওতায় আনা হবে।

কেননা করোনা ভ্যাকসিন সম্পূর্ণ নিরাপদ ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন। সে অনুযায়ী সরকার ভ্যাকসিন কেন্দ্রের সংখ্যা বাড়িয়ে ইউনিয়ন পর্যায়ে নেওয়ার কথা ভাবছে।

তিনি আরও বলেন, মানুষের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে কেন্দ্রে ভ্যাকসিন গ্রহণকারীদের সুযোগ-সুবিধাও বাড়িয়ে দিয়েছে সরকার। তাই ভ্যাকসিন নিয়ে কোনও ধরনের গুজব না ছড়িয়ে, মিথ্যা ও মনগড়া তথ্য প্রচার না করে সকলকে ভ্যাকসিন নিতে উদ্বুদ্ধ করা উচিত বলে মনে করছেন এই পরিচালক।

উল্লেখ্য, বরিশাল বিভাগে প্রথম করোনা শনাক্ত হয় গত বছরের ৯ এপ্রিল আর ভ্যাকসিন বরিশালে পৌঁছায় চলতি বছরের গত ২৯ জানুয়ারি।