‘করোনা প্রতিরোধে টিকা দিতে হবে, স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে’

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, Covid-19 virus variants সময়ের সাথে সাথে দ্রুত রূপ পরিবর্তন করছে। বাংলাদেশের মত ঘনবসতির দেশে নতুন variant  দ্রুত ছড়াতে পারে। তাই Covid-19 New Treament Protocol ব্যবস্থাপনা প্রতিপালন অত্যন্ত জরুরি। এ ব্যাপারে সবাইকে আতংকিত না হয়ে সজাগ ও সচেতন থাকতে হবে। টিকা নেওয়ার পাশাপাশি কঠোরভাবে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে। সামাজিক অনুষ্ঠানসহ যে কোন ধরণের জমায়েত পরিহার করতে হবে, রমজান মাসে শপিং খুব সাবধানে করতে হবে।

করোনা  মোকাবিলায় সরকারি ও বেসরকারি যৌথ উদ্যোগের উপর গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন, কোভিড-১৯ শনাক্তকরণের জন্য ১৪ টি (বেসরকারি হাসপাতাল) ডায়াগনস্টিকসকে RT-PCR পরীক্ষা করার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ গুলো সরকার নির্ধারিত মান বজায় রেখে RT-PCR পরীক্ষা করে যাচ্ছে। দেশের সরকারি ও বেসরকারি ল্যাবে করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এর সাথে সাথে কোভিড-১৯ নমুনা সংগ্রহের জন্য ৬ টি প্রতিষ্ঠানকে ঢাকা শহরের সুবিধাজনক এলাকায় সাব-সেন্টার স্থাপন করে কোভিড পরীক্ষা করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রী বুধবার (৩১ মার্চ) সন্ধ্যায় বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ এসোসিয়েশন (বিপিএমসিএ) আয়োজিত এক ভার্চুয়াল মত-বিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

সংগঠনের সভাপতি এম এ মুবিনখানের সভাপতিত্বে  সভায় বিপিএমসিএর উপদেষ্টা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

এতে বক্তব্য রাখেন আনোয়ার খান মর্ডান মেডিকেল কলেজের চেয়ারম্যান ও বিপিএমসিএ’রসাধারণ সম্পাদক ড. আনোয়ার হোসেন খান এমপি, পপুলার মেডিকেল কলেজের চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান, জাপান ইস্ট-ওয়েস্ট মেডিকেল কলেজের চেয়ারম্যান ডা. মো. মোয়াজ্জেম হোসেন, গ্রিন লাইফ মেডিকেল কলেজের এমডি  ডা. মো. মাঈনুল আহসান, ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজের চেয়ারম্যান প্রীতি চক্রবর্তী প্রমুখ।

সভায় জানানো হয়, বিপিএমসিএ’র সদস্যভুক্ত প্রতিষ্ঠানসমূহ Covid-19 Pandemic  মোকাবেলাকালে নিজেদের সক্ষমতা বহু গুণ বৃদ্ধি করেছে। Covid-19 Dedicated হাসপাতালে ২,৫০০ এর অধিক ডাক্তার, ৩০০০ এর অধিক নার্স, ৩০০ এর অধিকসংখ্যক  ICU, ৩৫০ এর অধিক সংখ্যক HDU ৪০০ এর অধিক Ventilators এবং ২৫০ এর অধিক সংখ্যক High Flow Nasal Canula (HFNC) স্থাপনকরে কোভিড আক্রান্ত রোগীদের দিনরাত চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে। হাসপাতালে পৃথকভাবে Covid-19 Ward, Isolation Centre, HDU, ICU কাজ করছে।

সকল মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল ২৪ ঘণ্টা চিকিৎসা সেবা অব্যাহত রেখে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী ছাড়াও অন্যান্য বিভাগের রোগীদের নিয়মিত চিকিৎসা সেবা প্রদানের ব্যবস্থা করেছে। 

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস