'এনআইডি স্থানান্তর ইসির কফিনে শেষ পেরেক'



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছেন, সম্প্রতি জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) অনুবিভাগ জনবলসহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে স্থানান্তরের জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ যে নির্দেশ জারি করেছে, তা হচ্ছে নির্বাচন কমিশনের কফিনে সর্বশেষ পেরেক।

বুধবার (২ জুন) নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ে ‘জাতীয় পরিচয়পত্র স্থানান্তর সম্পর্কে আমার বক্তব্য’ শীর্ষক লিখিত বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

এ সময় তিনি আরও বলেন, কী উদ্দেশ্যে এই আত্মঘাতী ও অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে তা আমার বোধগম্য নয়। এটি সংবিধানের ১১৯ ধারার পরিপন্থী। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন সচিবালয় ও মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। আমি তাদের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করছি।

তিনি বলেন, মন্ত্রিপরিষদের যুগ্মসচিব স্বাক্ষরিত ২৪ মে ২০২১ তারিখের পত্রে এনআইডি হস্তান্তরের প্রক্রিয়ায় নির্বাচন কমিশন এর বদলে সরকার শব্দটি প্রতিস্থাপনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অন্যদিকে এনআইডির বিদ্যমান অবকাঠামো ও জনবল সুরক্ষা সেবা বিভাগে হস্তান্তর করার ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানকে এ ধরনের নির্দেশ প্রদান কতটা যৌক্তিক তা বিবেচ্য। ভোটার তালিকা ও জাতীয় পরিচয়পত্র অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িত।

মাহবুব তালুকদার বলেন, এর ফলে নির্ভুল ভোটার তালিকা প্রণয়ন ও জাতীয় পরিচয়পত্রের ডাটাবেজনির্ভর ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণে জটিলতার সৃষ্টি হবে। এছাড়া এতে নির্বাচন ব্যবস্থা ও কাঙ্ক্ষিত গণতন্ত্র ভুলুণ্ঠিত হবে। এটি করা হলে সংবিধানের ১১৯ ধারা অনুযায়ী নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব পালন সম্ভব হবে না বলে মনে করি। নির্বাচন কমিশনের কাছ থেকে এনআইডি স্থানান্তরের নির্দেশ কমিশনের অঙ্গচ্ছেদের নামান্তর।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে কমিশনকে না জানানো নির্বাচন কমিশনের প্রতি অবজ্ঞা প্রকাশের সামিল। নির্বাচন কমিশনের ইতিহাসে এ যাবৎকালে এমন ঘোরতর দুর্দিন আর আসেনি। সংবিধানের ১০৮ (৪) ধারায় বলা হয়েছে- ‘নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে স্বাধীন থাকিবেন এবং কেবল এই সংবিধান ও আইনের অধীন হইবেন’। এটি কমিশনের জন্য রক্ষাকবচ হলেও নির্বাচন কমিশনের স্বাধীনতা এখন কোথায়? আমি আশঙ্কা করি জাতীয় পরিচয়পত্র অনুবিভাগ অন্যত্র স্থানান্তর সামগ্রিক নির্বাচনী ব্যবস্থাপনার অন্তিমযাত্রার আয়োজন।

ফ্লোরিয়াডে এক্সপো-তে বাংলাদেশ দিবস উদযাপন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ফ্লোরিয়াডে এক্সপো-তে বাংলাদেশ দিবস উদযাপন

ফ্লোরিয়াডে এক্সপো-তে বাংলাদেশ দিবস উদযাপন

  • Font increase
  • Font Decrease

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক রোববার (০৩ জুলাই) নেদারল্যান্ডসের ফ্লোরিয়াডে এক্সপো-তে বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতায় দিনব্যাপী বাংলাদেশ দিবস উদযাপন করেন।

এসময় নেদারল্যান্ডসে বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত মু. রিয়াজ হামিদুল্লাহ, আলমের শহরের মেয়র, ফ্লেভোল্যান্ড প্রদেশের ডেপুটি কিংস-কমিশনার, ফ্লোরিয়াডে কমিশনার জেনারেল এবং ফ্লোরিয়াডে এক্সপো ২০২২- এর সিইও উপস্থিত ছিলেন। কৃষি মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ দূতাবাসের অন্যান্য কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলনের সাথে জাতীয় সংগীত বাজানো হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ফ্লোরিয়াডে এক্সপো’র সিইও, ডাচ কমিশনার জেনারেল, বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত এবং কৃষিমন্ত্রী বাংলাদেশ দিবস উপলক্ষে বক্তব্য দেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, গত এক দশকে বাংলাদেশ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনসহ কৃষি পণ্য উৎপাদনে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে। বাংলাদেশে ডাচ উদ্ভাবনী কৃষি প্রযুক্তি ও প্রযুক্তি নির্ভর ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানকে বিনিয়োগে আকৃষ্ট করতে তিনি বিশেষভাবে জোর দেন।

বাংলাদেশের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে ডাচদের মাঝে তুলে ধরার জন্য নেদারল্যান্ডসে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের সমন্বয়ে উন্মুক্ত প্রাঙ্গণে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠাণ পরিবেশন করা হয়।

কৃষিমন্ত্রী পরে বাংলাদেশ ও ডাচ, জার্মান প্যাভিলিয়ন পরিদর্শন করেন এবং আগত দর্শনার্থীদের সাথে মতবিনিময় করেন। এ সময় বাংলাদেশি আমকে ইউরোপের বাজারে পরিচিত করতে আগত দর্শনার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে সুমিষ্ট পাকা আম পরিবেশন করা হয়, যা বিপুল সাড়া ফেলে।

বাংলাদেশ প্যাভিলিয়ন পরিদর্শন শেষে মন্ত্রী বাংলাদেশ দূতাবাস আয়োজিত এক বিজনেস-নেটওয়ার্কিং প্যানেলে যোগ দেন। এতে ৪০ জনের অধিক ডাচ ও বাংলাদেশি ব্যবসায়ী যোগ দেন। তারা কৃষিমন্ত্রীর সাথে বাংলাদেশে কৃষিখাতে বিনিয়োগ সহযোগিতা ও উদ্ভাবনী ডাচ কৃষি প্রযুক্তি সংযোজনের বিষয়ে উন্মুক্ত আলোচনা হয়।

প্রতি দশ বছর পর পর নেদারল্যান্ডসে ৬ মাসব্যাপী আয়োজিত ফ্লোরিয়াডে এক্সপোতে বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রত্যক্ষ তত্বাবধানে এবারই প্রথম বাংলাদেশ অংশগ্রহণ করেছে যা আগামী ৯ অক্টোবর শেষ হবে।

;

বিমানের দুই বোয়িংয়ের ফের সংঘর্ষ, ডানা ক্ষতিগ্রস্ত



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের দুই উড়োজাহাজের মধ্যে ফের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উড়োজাহাজের ডানা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

রোববার (০৩ জুলাই) রাতে বিমানের বোয়িং ৭৮৭ ড্রিমলাইন ও বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজের সঙ্গে এ সংঘর্ষ ঘটে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বিমানের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) তাহেরা খন্দকার বলেন, বিমানের প্রকৌশল বিভাগের একটি দল ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন।

বিমানকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিমানের সুপরিসর বোয়িং ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজটি সিঙ্গাপুর থেকে এসে সন্ধ্যায় শাহজালালে অবতরণ করে। রাত ৯টা ২০ মিনিটে উড়োজাহাজটি নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণের জন্য হ্যাঙ্গারে নিয়ে যাওয়ার সময় এই ঘটনা ঘটে। সেখানে আগে থেকে রাখা বোয়িং ৭৩৭ এর বাম পাশের ডানায় সঙ্গে ড্রিমলাইনারের ডান পাশের ডানা আঘাত করে।

এর আগে, গত ১০ এপ্রিল বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারে বিমানের একটি বোয়িংয়ের আরেকটি বোয়িংয়ের সঙ্গে ধাক্কা লাগলে দুটো উড়োজাহাজই কিছু দিনের জন্য বসে যায়। সে ঘটনায় গত ১১ মে বিমানের মুখ্য (প্রিন্সিপাল) প্রকৌশলীসহ পাঁচজনকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়।

;

রাজশাহীতে আবারও ছড়াচ্ছে করোনা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
রাজশাহীতে আবারও ছড়াচ্ছে করোনা

রাজশাহীতে আবারও ছড়াচ্ছে করোনা

  • Font increase
  • Font Decrease

 

রাজশাহীতে আবার করোনার সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। সবশেষ শনিবার রাজশাহীতে ৭২টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সংক্রমণের হার ২০ দশমিক ৮৩ শতাংশ। গত এক সপ্তাহ ধরেই রাজশাহীতে করোনা রোগী শনাক্ত হচ্ছে।

এরমধ্যে গত বৃহস্পতিবার নমুনা পরীক্ষায় এ জেলায় সংক্রমণের হার উঠে যায় ২৯ শতাংশে। এতে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে চিকিৎসা সংশ্লিষ্টদের মাঝে। তবে সাধারণ মানুষের মাঝে সচেতনতা তেমন দেখা যাচ্ছে না। এখনও মাস্ক ছাড়াই চলাচল করছেন মানুষ। মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের আরটি-পিসিআর ল্যাবের তথ্য অনুযায়ী, গত বৃহস্পতিবার রাজশাহীর ৬৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ১৮ জনের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট হয়েছে। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় সংক্রমণের হার ২৮ দশমিক ৫৭ শতাংশ। আর শুক্রবার জেলার ৭২টি নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ হয়েছে ১৫টি। সংক্রমণের হার ২০ দশমিক ৮৩ শতাংশ। শনিবার ৭২টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছেন ১৫ জন। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় এ দিন সংক্রমণের হার ২০ দশমিক ৮৩ শতাংশ।

করোনার ডেলটা ধরনের সংক্রমণের সময় রাজশাহীতে প্রচুর মানুষ আক্রান্ত হন। অমিক্রন ধরনের সময়ও একই অবস্থা দেখা যায়। এরপর ধীরে ধীরে সংক্রমণের হার শূন্যে নেমে আসে। তাই বন্ধ করে দেওয়া হয় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিট। বন্ধ হয় করোনা রোগীদের জন্য নির্ধারিত নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রও (আইসিইউ)। কিন্তু জুনের প্রথম থেকেই দু’একজন করে আবার রোগী শনাক্ত হতে শুরু করেছে। এক সপ্তাহ ধরে বাড়ছে রোগী।

কিন্তু মানুষের মাঝে সচেতনতার কিছুই দেখা যাচ্ছে না। শহর ঘুরে দেখা গেছে, হাতে গোনা দু’একজন মানুষ ছাড়া কেউই এখন আর মাস্ক পরছেন না। সাধারণ মানুষ তো বটেই, সরকারি কর্মকর্তাদেরও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে দেখা যাচ্ছে মাস্ক ছাড়াই। ঘন ঘন হাত ধোয়া কিংবা হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারের অভ্যাসও ভুলে গেছেন বেশিরভাগ মানুষ।

রামেক হাসপাতালের আইসিইউ-এর ইনচার্জ ডা. আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, ‘কয়দিন হলো আমার মোবাইলটা বেশি বাজতে শুরু করেছে। মানে হচ্ছে আবার শুরু হয়ে গেছে। এবার কোথায় গিয়ে থামবে কে জানে! সরকারিভাবে কী পদক্ষেপ নিলো সেটা না ভেবে নিজের এবং প্রিয়জনের জীবন বাঁচানোর জন্য এখনই সবার সাবধান হয়ে যাওয়া উচিত।’

তিনি বলেন, ‘কয়দিন আগেই ভারতে সংক্রমণের হার ছিল ৪৫ শতাংশ। এটা ছিল আমাদের জন্য অশনি সংকতে। তাই যাঁরা এখনও তিন ডোজ টিকা গ্রহণ করেননি, তাদের দেরি করার কোন সুযোগ নেই। মাস্ক পরতে হবে। হাত ধোয়ার অভ্যাসটা আবার গড়ে তুলতে হবে। অবিলম্বে সকল প্রকার জনসমাগম পরিহার করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে।’

রাজশাহীর সিভিল সার্জন ডা. আবু সাইদ মো. ফারুক বলেন, ‘করোনা আবার বাড়ছে। এখনও আমরা টিকাদানে জোর দিচ্ছি। যারা টিকা নেননি, তারা যেন দ্রুত তিন ডোজই নেন আমরা সে আহ্বান জানাচ্ছি। রোগী বেড়ে গেলে হাসপাতালও আবার প্রস্তুত হবে। তবে মানুষকেও সচেতন হতে হবে।’

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী বলেন, ‘মানুষের মাঝে সচেতনতা কম। যারা টিকা নিয়েছেন এবং শারীরীকভাবে সুস্থ তারা এবার আক্রান্ত হলেও খুব একটা সমস্যা হবে না। তারা বাসায় থেকেই চিকিৎসা নিলেই হবে। কিন্তু আগে থেকেই যারা জটিল রোগে আক্রান্ত তাদের সমস্যা হবে। এখনও পর্যন্ত হাসপাতালে রোগী আসেনি। তবে যদি আসেও তার জন্য আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি। প্রথমে তিনটি ওয়ার্ডে রোগী রাখার চিন্তাভাবনা আছে। তখন ওয়ার্ডগুলোর রোগীদের অন্যখানে সরানো হবে।’

;

চট্টগ্রামের পেনিনসুলাতে চলছে 'গ্র‍্যান্ড ঈদ এক্সিবিশন-২২'



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
চট্টগ্রামের পেনিনসুলাতে চলছে 'গ্র‍্যান্ড ঈদ এক্সিবিশন-২২'

চট্টগ্রামের পেনিনসুলাতে চলছে 'গ্র‍্যান্ড ঈদ এক্সিবিশন-২২'

  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদুল ফিতরের রেশ কাটতে না কাটতেই কিছুদিন পরেই আসছে ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত ঈদুল আযহা। ঈদে কুরবানির পশুর পাশাপাশি আমাদের চাই নতুন জামা-কাপড় ও ঘর সাজানোর বিভিন্ন সরঞ্জামাদি। কিন্ত বাহিরে উচ্চমাত্রার গরম ও খরতাপে ঈদের কেনাকাটা অনেকটা দুর্বিষহ মনে হচ্ছে অনেকের কাছেই। যানজট এবং ভিড়ের মধ্যে শপিং মলে গাদাগাদি করে শপিং করা বেশ কষ্টকর। স্বস্তিদায়ক কেনাকাটার সুযোগ করে দেওয়ার লক্ষ্যেই 'উদ্যোক্তা চট্টগ্রাম' আয়োজন করেছে 'গ্র‍্যান্ড ঈদ এক্সিবিশন ২০২২'

রোববার (৩ জুলাই) বিকেলে শহরের পেনিনসুলা হোটেলের ডালিয়া হলে উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে শুরু হয়েছে এই পণ্য প্রদর্শনী। সবার জন্য বিনামূল্যে প্রবেশ ও উন্মুক্ত থাকবে এই প্রদর্শনী। ২ দিনব্যাপী এই জমকালো প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এর মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.রেজাউল করিম চৌধুরী।

অনুষ্ঠানটি উদ্বোধন করেন করোনা প্রতিরোধক বুথের উদ্ভাবক ও বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় উপ অর্থ বিষয়ক সম্পাদক  হেলাল আকবর চৌধুরী বাবর।

প্রদর্শনীতে থাকছে পোশাক, গহনা, ঘর সাজানোর আনুষাঙ্গিক এবং লাইফস্টাইল ব্র‍্যান্ড সহ বিভিন্ন পণ্যের সমাহার। ৪০+ প্রিমিয়াম ব্র‍্যান্ড নিয়ে আয়োজন করা হয়েছে এই প্রদর্শনী।

এই আয়োজনের উল্লেখযোগ্য দিক হলো, অংশগ্রহণকারী উদ্যোক্তার মধ্যে বেশিরভাগই নারী উদ্যোক্তা। উদ্যোক্তাদের  সম্পূর্ণ বিনামূল্যে উক্ত প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ এবং সারা বছরের জন্য গ্রাহক তৈরির সুযোগ করে দিয়েছে 'উদ্যোক্তা চট্টগ্রাম' আয়োজিত এই প্রদর্শনী।

এই প্রদর্শনীর সহযোগী হিসেবে আছে ' উইমেন্স কনসেপ্ট, ইভেন্ট পার্টনার 'লামোর ইভেন্ট প্ল্যানার', ফুড পার্টনার ' দ্যা গ্রাব-বক্স', মিডিয়া পার্টনার 'সি-প্লাস টিভি' এবং নিউজ পার্টনার হিসেবে আছে 'দৈনিক আজাদী '।

;