রমেকে শিক্ষার্থীর ওপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে শিক্ষার্থীরা

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে শিক্ষার্থীরা

  • Font increase
  • Font Decrease

অসুস্থ মাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে নিয়ে গিয়ে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) শিক্ষার্থী রেজওয়ানুল করিম রিয়াদ ও তার ছোট ভাই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রাশেদ করিমের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে শিক্ষার্থীরা।

শনিবার (১২ জুন) বিকাল ৪টায় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের আয়োজনে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বক্তব্য দেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের শিক্ষক উমর ফারুক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক মাহামুদুল হক, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তুষার কিবরিয়া, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ফয়সাল ইসলাম ফাইন, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক মারুফ ভূইয়া, সাবেক সহ- সম্পাদক মামুনুর রশিদ মামুন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি পোমেল বড়ুয়া, বেরোবি স্টুডেন্ট রাইটস ফোরামের সভাপতি মিলন মাহমুদ, দূর্যোগ ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের ছাত্র মোস্তফা কামাল ও রংপুর সাধারণ শিক্ষার্থী কল্যাণ পরিষদের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক নাভিহান আকন্দ প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যেকোনো সেবা নিতে গেলেই নির্ধারিত ফির অতিরিক্ত টাকা দিতে বাধ্য হতে হয় রোগী ও তাদের স্বজনদের। আর সেই অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার প্রতিবাদ করায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ওপর নগ্ন হামলা করেছে হাসপাতালের স্টাফ ও দালালরা। হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে আগামীতে কঠোর কর্মসূচি দেওয়ার ঘোষণা দেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

প্রসঙ্গত, রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে অসুস্থ মায়ের চিকিৎসা করাতে গিয়ে মারধরের শিকার হন রেজওয়ানুল করিম রিয়াদ ও রাশেদ করিম নামে দুই বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী।

শুক্রবার (১১ জুন) রাত সাড়ে ৭টার দিকে রমেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে স্টাফদের দাবিকৃত অতিরিক্ত টাকা না দেওয়ায় মারধরের এ ঘটনা ঘটে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রেজওয়ানুল করিম রিয়াদ তার ছোট ভাইসহ অসুস্থ মাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এমার্জেন্সি ওয়ার্ডে ভর্তির জন্য নিয়ে যান ৷ এসময় ওয়ার্ডের দায়িত্বরতরা নির্ধারিত ফি ৩০ টাকার স্থলে ১০০ টাকা দাবি করেন। অতিরিক্ত টাকার মেমো চাইলে তারা (স্টাফ) মেমো দিতে অস্বীকৃতি জানায়। কেন অতিরিক্ত টাকা চাওয়া হচ্ছে এর প্রতিবাদ করার সঙ্গে সঙ্গেই প্রায় ১৫/১৬ জন মিলে তাকে বেধড়ক মারপিট করেন।

ঘটনার সময় তার ছোট ভাই রাশেদ করিম ছবি তোলার চেষ্টা করলে তাকেও মারধর করেন স্টাফরা। এসময় তাদের মোবাইল নিয়ে রেখে দেন তারা। কিছুক্ষণ পরে মোবাইল ফেরত দিলেও এ ব্যাপারে বাড়াবাড়ি করলে তাদের দুই ভাইকে গুম করে ফেলার হুমকি দেন স্টাফরা। এ ঘটনার প্রতিবাদে ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাসহ সাধারণ মানুষ।