নাটোরের ৮ পৌরসভায় বুধবার থেকে এক সপ্তাহের লকডাউন



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নাটোর
লকডাউন

লকডাউন

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি রোধে নাটোরের ৮ পৌরসভায় এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। এর মধ্যে নাটোর ও সিংড়া পৌরসভায় গত ৯ জুন থেকে ২২ জুন পর্যন্ত দুইদফা লকডাউন চলমান রয়েছে। বাকি পৌরসভাগুলো হলো- নলডাঙ্গা, বাগাতিপাড়া, গুরুদাসপুর,গোপালপুর, বনপাড়া ও বড়াইগ্রাম পৌরসভা।

মঙ্গলবার (২২ জুন) রাত ১০টায় রাজশাহী বিভাগের জেলা প্রশাসকদের সাথে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের ভার্চুয়াল মতবিনিময় সভা শেষে এই সিদ্ধান্ত জানান নবাগত জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ।

জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ বলেন, পূর্বাপর বিধি নিষেধ বহাল রেখে দুই পৌরসভার চলমান লকডাউন এক সপ্তাহ বর্ধিত করার সাথে এবার বাকি ৬টি পৌরসভাকেও লকডাউনের আওতায় আনা হয়েছে। উপজেলার আওতাভুক্ত এলাকাগুলো আপাতত লকডাউন করা হচ্ছে না। তবে পরিস্থিতির অবনতিজনিত প্রেক্ষাপটে যে কোন সিদ্ধান্ত আসতে পারে।

এর আগে দুপুরে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় পৌরসভা উপজেলা পর্যায়ে লকডাউন দিতে কমিটির অধিকাংশ সদস্য মতামত দেন। জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদের সভাপতিত্বে সভায় অংশ নিয়ে করোনা প্রতিরোধ সংক্রান্ত বিভিন্ন নির্দেশনা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, নাটোর-৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল কুদ্দুস, নাটোর-২ আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) উপ-পরিচালক ইকবাল হোসেন, নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরী, সিংড়া পৌরসভার মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজান প্রমুখ।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, নাটোরে করোনার ভয়াবহ সংক্রমণ রোধ করতে হলে মাস্ক পরার কোন বিকল্প নেই।ভ্যাকসিন গ্রহণের আগে ও পরে সকলকে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। নিজেকে, পরিবার ও দেশকে বাঁচাতে প্রয়োজনে আইনের কঠোর প্রয়োগ করে হলেও মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।