বেনাপোলে কিডনি নিতে পিস্তল ঠেকিয়ে ভারতে নেওয়ার চেষ্টা!



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, (বেনাপোল) যশোর
অভিযুক্ত আনিসুর

অভিযুক্ত আনিসুর

  • Font increase
  • Font Decrease

যশোরের বেনাপোল চেকপোস্ট থেকে আনিসুর রহমান নামে কিডনি পাচার চক্রের এক সদস্যকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এ সময় ভুক্তভোগী পাসপোর্টধারী যাত্রী ইউনুচকেও উদ্ধার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) বিকালে বেনাপোলে প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল থেকে অভিযুক্তকে আটক করা হয়।

ভুক্তভোগী পাসপোর্ট যাত্রী ইউনুচ সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলার ঢুকুরিয়া বেড়া গ্রামের ইদ্রিস আলী মন্ডলের ছেলে ( পাসপোর্ট নং ই এম ০৭৪৮৫৮৫)। এবং পাচারকারী আনিসুর রহমানের বাড়ি গাজিপুর জেলায়।

ইউনুচ আলী গণমাধ্যম কর্মীদেরকে জানান, আনিসুর রহমান ভারতে ভাল কাজ দেওয়ার কথা বলে তাকে ঢাকায় নিয়ে আসেন। পরে একটি আবাসিক বাড়িতে নিয়ে তাকে জানান ভারতে যাওয়ার পর একজনকে তার একটি কিডনি দিতে হবে। এতে অমত জানালে আনিসুর ক্ষেপে যান। এক পর্যায়ে তার মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে মুখ বন্ধ রাখতে সতর্ক করেন। পরে বিমানে করে ঢাকা থেকে বেনাপোল নিয়ে আসেন। বেনাপোল ইমিগ্রেশনের প্যাসেঞ্জার টার্মিনালে নিয়ে পাসপোর্ট লেখাতে দেয়। এ সময় জীবন বাঁচাতে দৌড়ে সীমান্তরক্ষী বিজিবির কাছে আশ্রয় নিয়ে ঘটনা খুলে বলি। পরে বিজিবি আনিসুরকে আটক করে তাকে (ইউনুচ) উদ্ধার করে।

এদিকে অভিযুক্ত আনিসুর রহমান বলেন, ইউনুচের সাথে এক কোম্পানির লোকের কিডনি দেওয়ার চুক্তি হয়। সে মোতাবেক ইউনুচকে ভারতে পাঠানোর জন্য সে বেনাপোল নিয়ে আসে। তবে কোন কোম্পানি তার নাম ঠিকানা বলেনি আনিসুর।

ভুক্তভোগী ইউনুচের কাছ থেকে আনিসুরের দেওয়া রুনা নামে এক নারীর পাসপোর্ট উদ্ধার করা হয়েছে। আনিসুর ইউনুচকে পাসপোর্টটি  দিয়েছিল কলকাতায় পৌঁছে দিতে।

উদ্ধারকৃত পাসপোর্টের সত্বাধিকারী রুনা বেগম ফোনে জানান, তিনি দরিদ্র মানুষ। ফেসবুকে বাংলাদেশ কিডনি ডোনার সংস্থা নামে একটি বিজ্ঞাপন দেখে আনিসুরের সাথে যোগাযোগ করেন। পরে তার নিকট থেকে পাসপোর্টটি জমা নিয়েছিলেন।

বেনাপোল চেকপোস্ট বিজিবি ক্যাম্পের সুবেদার আশরাফ আলী বলেন, যাত্রী ও অভিযুক্ত তাদের হেফাজতে আছে। দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা করে অপরাধের ধরণ অনুযায়ী আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অভিযুক্ত ও ভুক্তভোগী বিজিবি ক্যাম্পেই ছিলো।