রংপুরে খোলাবাজারে চাল বিক্রি শুরু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
রংপুরে খোলাবাজারে চাল বিক্রি শুরু

রংপুরে খোলাবাজারে চাল বিক্রি শুরু

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাকালীন সংকট মোকাবিলায় রংপুরে খোলাবাজারে বিশেষ ওএমএসের চাল বিক্রি শুরু হয়েছে। অসহায়, দুস্থ, নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য বিশেষ এই কার্যক্রম শুরু করেছে সরকার। প্রতিদিন এক হাজার ৫০০ ভোক্তা ৩০ টাকা দরে ৫ কেজি করে চাল ও ১৮ টাকা দরে আটা কিনতে পারবেন।

রোববার (২৫ জুলাই) দুপুরে নগরীর রবার্টসনগঞ্জ স্কুল মাঠে জেলা খাদ্য বিভাগের আয়োজনে বিশেষ ওএমএস’র কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন রংপুর বিভাগীয় কমিশনার আবদুল ওয়াহাব ভুঞা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিভাগীয় কমিশনার বলেন, বর্তমান সংকট মোকাবিলায় খোলাবাজারে চাল ও আটা বিক্রির জন্য ওএমএস কার্যক্রম শুরু করেছে। যাতে করে খেটে খাওয়া মানুষ অল্প দামে এই চাল-আটা কিনতে পারেন। করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার বিভিন্নভাবে অসহায় মানুষদের সাহায়্য করে আসছে। আগামীতেও এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

সরকারের এই বিশেষ কার্যক্রমে কোন ধরনের অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ বরদাস্ত করা হবে না জানিয়ে কমিশনার আবদুল ওয়াহাব ভূঞা বলেন, আমরা চাই সচ্ছতার সাথে এই কার্যক্রম চলুক। বিভাগের প্রতিটি জেলা ও পৌরসভা এলাকায় ওএমএস’র চাল-আটা বিক্রি করা হবে। এ জন্য সরকারের কাছে পর্যাপ্ত খাদ্য মজুদ রয়েছে। ডিলাররা যদি এই চাল নিয়ে দুর্নীতির চেষ্টা করেন, তা হলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল আলীম মাহমুদ, রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান, রংপুর আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুস সালাম ও রংপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন মিঞা প্রমুখ।

রংপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুল কাদের জানান, সিটি করপোরেশন এলাকায় প্রতিদিন তিনটি ট্রাকে সাত হাজার পাঁচশত কেজি চাল ও এক হাজার পাঁচশত কেজি আটা বিক্রি করা হবে। এছাড়া হারাগাছ, বদরগঞ্জ ও পীরগঞ্জ পৌরসভা এলাকায় ওএমএস’র চাল ও আটা বিক্রি করা হবে। আগামী ৭ আগস্ট পর্যন্ত এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।