বিয়েতে রাজি না হওয়ায় মেয়েকে হত্যার হুমকির অভিযোগ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, মানিকগঞ্জ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ডাকাত সর্দারের ছেলের সঙ্গে বিয়েতে রাজি না হওয়ায় ১৩ বছরের এক কিশোরীকে কেটে নদীতে ভাসিয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্বয়ং বাবার বিরুদ্ধে। এমন চাঞ্চল্যকর ঘটনার খবর পেয়ে শিবালয় থানা পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ের হাত থেকে রক্ষা পান ওই কিশোরী।

সোমবার (০৯ আগস্ট) দুপুরে উপজেলার তেওতা ইউনিয়নের আলোকদিয়া চরের ওই বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দেন প্রশাসন।

এলাকাবাসী ও প্রশাসনের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, শিবালয়ের তেওতা আলোকদিয়া চরের কুখ্যাত ডাকাত সর্দার জুলহাস মোল্লার বিবাহিত ছেলে সোলায়মান (৩২) এর সাথে বিয়ের কথা হয় একই গ্রামের মোদী মোল্লার স্কুলপড়ুয়া মেয়ের সাথে। কিশোরী ওই বিয়েতে অসম্মতি জানায়।

এতে ডাকাত সর্দারের ভয়ে কিশোরীর বাবা তার মেয়েকে বিয়েতে রাজি না হলে কেটে নদীতে ভাসিয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়রা প্রশাসনকে অবহিত করে। পরে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন বাল্যবিয়ে পন্ড করে দেন। সোমবার রাতে ওই বিয়ের আয়োজন ছিলো।

শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফিরোজ কবির জানান, কিশোরীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক বিয়ের আয়োজন করার খবরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ থানার অফিসার-ফোর্স নিয়ে দুপুরে দুর্গম আলোকদিয়া চরে মোদী মোল্লার বাড়িতে যাই। মোদী মোল্লা ও তার কিশোরী কন্যাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন সুলতানা জানান, কিশোরীর ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত কোথাও তাকে বিয়ে দিবে না মর্মে মুচলেকা আদায় করা হয় মোদী মোল্লার নিকট থেকে। এসময় স্থানীয় তেওতা ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বারসহ গণ্যমান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত কয়েক মাস আগে ডাকাত সর্দার জুলহাস তার পুত্রবধূকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করে। পুনরায় ছেলেকে বিয়ের জন্য এ কিশোরীর বাবাকে চাপ প্রয়োগ করেন। ডাকাতের ভয়ে মোদী মোল্লা তার অপ্রাপ্ত মেয়েকে বিয়ে দিতে রাজি হয়ে যায়। পরে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পান ওই কিশোরী।