বসুন্ধরার মালিকানাধীন সংবাদমাধ্যমের চার সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বাংলাদেশ প্রতিদিন ও নিউজ টোয়েন্টি ফোরের সম্পাদক নঈম নিজাম, কালের কণ্ঠের সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, ইংরেজি দৈনিক ডেইলি সানের সম্পাদক ইনামুল হক চৌধুরী

বাংলাদেশ প্রতিদিন ও নিউজ টোয়েন্টি ফোরের সম্পাদক নঈম নিজাম, কালের কণ্ঠের সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, ইংরেজি দৈনিক ডেইলি সানের সম্পাদক ইনামুল হক চৌধুরী

  • Font increase
  • Font Decrease

উদ্দেশ্যমূলকভাবে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশনের অভিযোগে বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকানাধীন চার সংবাদমাধ্যমের সম্পাদকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে ৫০০ কোটি টাকার মানহানি মামলা করেছেন জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী।

চট্টগ্রাম-১১ পটিয়া আসনের এই সংসদ সদস্য বুধবার (১৮ আগস্ট) সকালে পটিয়া যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।  

সামসুল হক চৌধুরীর পরিবারের বিরুদ্ধে বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকানাধীন মিডিয়া দৈনিক কালের কণ্ঠ, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ডেইলি সান, বাংলানিউজ২৪ এবং টিভি চ্যানেল নিউজ ২৪ এর অব্যাহতভাবে মিথ্যা, ভিত্তিহীন, কাল্পনিক এবং মালিকের নির্দেশে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করায় এ মামলা দায়ের করা হয় বলে জানা গেছে।

মামলার আসামিরা হলেন, বাংলাদেশ প্রতিদিন ও নিউজ টোয়েন্টি ফোরের সম্পাদক নঈম নিজাম, কালের কণ্ঠের সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, ইংরেজি দৈনিক ডেইলি সানের সম্পাদক ইনামুল হক চৌধুরী, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সাংবাদিক সাইদুর রহমান রিমন, রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, মোহাম্মদ সেলিম, কালের কণ্ঠের এস এম রানা এবং বাংলানিউজের সম্পাদক। এছাড়াও মামলায় বিবাদী করা হয় বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও এমডিকে।

হুইপের পক্ষে এ মামলা রুজু করেন পটিয়া আইনজীবী সমিতির সভাপতি সিনিয়র অ্যাডভোকেট দীপক কুমার শীল

মামলার আর্জিতে বলা হয়, বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান ও তার পুত্র সায়েম সোবহান আনভীরের ব্যক্তিগত আক্রোশে ও শত্রুতামূলকভাবে বাদী ও জাতীয় সংসদের হুইপ সামসুল হক চৌধুরীর ছেলে নাজমুল করিম চৌধুরী শারুনের বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করে আসছে।

বসুন্ধরা গ্রুপের পত্রিকা, অনলাইন ও টিভিতে ১০০ টির অধিক মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর সামাজিক রাজনৈতিক সম্মানহানী করেন যাতে উনার শারীরিক মানসিক এবং আর্থিক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। একাধারে মিথ্যা মানহানীকর সংবাদ প্রকাশের বিরুদ্ধে তিনি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে ক্ষতিপূরণ মামলা দায়ের করেন বলে জানান।

শারুন চৌধুরী তার ফেসবুকে জানান, সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা করতে তাদের বিবেক বাধা দিচ্ছে কারণ তারা মালিকের নির্দেশের বাইরে কিছুই করতে পারে না কিন্তু এরকম সংঘবদ্ধ মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া ছাড়া তাদের আর কোনো উপায় নেই। প্রেস কাউন্সিলেও তিনি অভিযোগ দায়ের করবেন।

মিডিয়া মালিকের ইচ্ছা ও ব্যক্তিগত শত্রুতার উদ্দেশ্যে সংবাদপত্রের ব্যবহার বন্ধ হওয়া উচিত বলে জানান তিনি।