আ.লীগের দরজা খুলে দিলে বিএনপির ঘর শূন্য হয়ে যাবে: নৌপ্রতিমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের দরজা খুলে দিলে, বিএনপির ঘর শূন্য হয়ে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

সোমবার (৩০ আগস্ট) রাজধানীর বিএমএ অডিটরিয়ামে বিআইডব্লিউটিসি ওয়ার্কার্স ইউনিয়ন আয়োজিত শোক দিবসের এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, বিএনপি এখন লাশের রাজনীতি নিয়ে আছে। তারা বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে নাই। প্রধানমন্ত্রী চান না যে, দলের মধ্যে কোন অনুপ্রবেশ ঘটুক। প্রধানমন্ত্রী রাজনৈতিক চরিত্র হনন করতে চান না। প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগের দরজা খুলে দিলে, বিএনপির ঘর শূন্য হয়ে যাবে। মির্জা ফখরুলরা জানে না, তারা ডানে, বামে পেছনে কাউকেই পাবেন না। যদি প্রধানমন্ত্রী ইশারা দেন। কারণ আদর্শহীন, নীতিহীন একটি রাজনৈতিক দল জিয়াউর রহমান গঠন করেছিলেন খুনিদেরকে নিয়ে, অপরাধীদেরকে নিয়ে।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড পৃথিবীর ইতিহাসে পৈশাচিক হত্যাকাণ্ড। পৃথিবীর অনেক রাজনৈতিক নেতা নিহত হলেও, সপরিবারে এভাবে নারী, পুরুষ, গর্ভবতী নারী, শিশু এতো মানুষ এভাবে হত্যা করা হয়নি কোথাও। এ জঘন্য হত্যাকাণ্ডের মাস্টারমাইন্ড ছিল জিয়াউর রহমান। একটি হত্যাকাণ্ড কীভাবে দেশকে অন্ধকারে ঠেলে দিয়েছিল, আমরা দিনের পর দিন, বছরের পর বছর দেখেছি। একটি হত্যাকাণ্ডকে জায়েজ করার জন্য রাষ্ট্রীয় যন্ত্র ব্যবহার করে জিয়াউর রহমান কীভাবে অপপ্রচার চালিয়েছে! কীভাবে কলুষিত করার চেষ্টা করা হয়েছে। কীভাবে নোংরা কল্পকাহিনী সাজিয়ে বঙ্গবন্ধু পরিবারকে খাটো করার চেষ্টা করা হয়েছে। শুধু একটি অপরাধকে, একটি হত্যাকাণ্ডকে জায়েজ করার জন্য জিয়াউর রহমান এই কল্পকাহিনী বানিয়েছিলেন। তার ধারাবাহিকতা এরশাদ ও খালেদা জিয়া একইভাবে পালন করেছেন। আজকের বাস্তবতায় বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশের বন্ধু নয়; বঙ্গবন্ধু বিশ্বের বন্ধু।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুকে লালন করে আজকে দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর ঘাতকরা বার বার দেশ পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েছে বলেই সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণ হয়নি। বঙ্গবন্ধুর সাড়ে তিন বছরের সমালোচনা করা হয়; ১৩৯টি আইন অধ্যাদেশ দিয়ে কীভাবে বাংলাদেশ পরিচালিত হবে, প্রতিটি বিষয়ে ফাউন্ডেশন (ভিত্তি) বঙ্গবন্ধু দিয়ে গেছেন। এই কথাগুলো বলা হয় না।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার মাত্র এক বছরের মাথায় যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশে কীভাবে গোলযোগ করা হয়েছে। সর্বহারা নামে বিদেশি বেনিয়াদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য অস্ত্র হাতে তুলে নেওয়া হয়েছে। সাড়ে তিন বছরের একটি নতুন দেশকে অরাজকতা তৈরি করে ব্যর্থ করে দেওয়ার চেষ্টা হয়েছে। তারপরও এই দেশটিকে দরিদ্রপীড়িত দেশ থেকে স্বল্পোন্নত দেশে নিয়ে গেছেন। স্বাধীনতাবিরোধীরা যখন ব্যর্থ হয়ে গেছে, তখনই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছে।

নৌ পর্যটনে বিআইডব্লিউটিসি’র সম্পৃক্ততা থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই আমরা দুটি ক্রুজ ভেসেলের চুক্তিপত্র করেছি। এ দুটি ভেসেলে সব আন্তর্জাতিক সুবিধা থাকবে। আগামী দুই-তিন বছরের মধ্যেই এ জাহাজ দুটি পেয়ে গেলে বিদেশি পর্যটকরাও এখানে আগ্রহ দেখাবে। নদীমাতৃক বাংলাদেশের কথা চিন্তা করেই বিআইডব্লিউটিসিকে এগিয়ে যেতে হবে।

বিআইডব্লিউটিসি ওয়ার্কার্স ইউনিয়ন (সিবিএ) সভাপতি ও জাতীয় শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি মো. মহসিন ভূইয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতীয় শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নুর কুতুব আলম মান্নান, কার্যকরী সভাপতি মো. আলাউদ্দিন মিয়া, সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট হুমায়ুন কবির, সাহাবুদ্দিন মিয়া, মো. মশিকুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খান সিরাজুল ইসলাম এবং বিআইডব্লিউটিসি ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মুন্সী জুলহাস রহমান।