রুট পারমিটবিহীন বাস চলাচল বন্ধে অভিযানে নামছে দক্ষিণ সিটি



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ঢাদসিক) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, গণপরিবহনে পূর্ণ শৃঙ্খলার আনয়নে পুনর্বার কঠোর মনোভাব ব্যক্ত করে ঢাদসিক মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, ‘যে ১৬৪৬টি রুট পারমিটবিহীন বাস চিহ্নিত করা হয়েছে, আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে সেগুলোর বিরুদ্ধে আমরা অভিযান পরিচালনা করব’।

রবিবার (২৮ অক্টোবর) ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ঢাদসিক) নগর ভবনের বুড়িগঙ্গা হলে বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটির ১৯তম সভা শেষে সাংবাদিকদেরকে এ তথ্য জানান তিনি। তিনি বলেন, অভিযান হবে কঠোর অভিযান। রুট পারমিটবিহীন যে সকল বাস আমরা পাবো, আমরা সেগুলো জব্দ করবো। শুধু জরিমানা না, আমরা যেখানে রুট পারমিটবিহীন অবৈধ বাস পাবো, সেগুলো আমরা জব্দ করবো এবং সেগুলো ধ্বংস করে দেবো। যাতে করে এই গাড়িগুলো সড়কে আসতে না পারে।

বাস মালিকদের অসহযোগিতা ও নানা বাঁধ-বিপত্তি অতিক্রম করেই বাস রুট রেশনালাইজেশন কার্যক্রম বাস্তবায়নের অঙ্গীকার  ব্যক্ত করে ঢাদসিক মেয়র বলেন, পহেলা ডিসেম্বর ঘাটারচর থেকে কাচপুর রুটে পাইলট প্রকল্পের অংশ হিসেবে বাস রুট রেশনালাইজেশনের মাধ্যমে বাস চালানোর ঘোষণা দিয়েছিলাম। ১ ডিসেম্বর থেকে এই রুটে বাস চালুর যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল, তা ফলপ্রসূ করা যায়নি। ঢাকা শহরে চলাচল করা রুট পারমিটবিহীন বাস জব্দ করা হবে। এছাড়াও যে কোন মূল্যে গণপরিবহনে শৃঙ্খলা আনার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন ।

ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ঢাকা শহরের গণপরিবহনে বিশৃংখলা রয়েছে। সেজন্য আমরা আরো কঠোর হবো। আমরা দেখেছি, রুট পারমিট নেওয়া হয় একটি যাত্রাপথে কিন্তু সেই যাত্রাপথে বাস না চালিয়ে অন্য যাত্রাপথে পরিচালনা করা হয়। রুট পারমিট যে যাত্রা পথে নিয়েছে সে যাত্রা পথেই সেই বাস পরিচালনা করতে হবে। না হলে সেই বাস চলবে না। সুতারাং আমরা এখন অত্যন্ত কঠোর। আমরা ঢাকা শহরের গণপরিবহনে শৃঙ্খলা আনবোই আনবো।

ঢাদসিক মেয়র বলেন, ঢাকা শহরে গণপরিবহনের শৃঙ্খলা আনার জন্য এই কমিটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। আমরা দুই মেয়র দায়িত্ব পাওয়ার পর গত বছরের অক্টোবর থেকে কার্যক্রম শুরু করি। এই করোনা মহামারীর মাঝেও আমরা সভা পরিচালনা করেছি এবং এই কার্যক্রমকে ফলপ্রসূ করার জন্য নিরলসভাবে পরিশ্রম করে চলেছি।

পরীক্ষামূলক এই কার্যক্রমে অংশগ্রহণ উন্মুক্ত করে দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে ঢাদসিক মেয়র বলেন, ‘আমরা এখন বিজ্ঞপ্তি দেবো। বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ১২ ডিসেম্বরের মধ্যে উদ্যোক্তা, অন্যান্য বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে আমরা আবেদন নেবো। সে আবেদনের প্রেক্ষিতে বিআরটিসি'র ৩০টি সহ আমরা নতুন ১০০টি বাস নির্ধারণ করব।’

উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের ইচ্ছার কোন ত্রুটি ছিল না সাধ্যমত চেষ্টা করেছিলাম। পহেলা ডিসেম্বর বাস্তবায়ন করার জন্য কিন্তু তা বিভিন্ন কারণে আমরা পারিনি। ‌এর মধ্যে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে -- বাস মালিকরা। আমাদের যেভাবে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তারা সেই প্রতিশ্রুতি রাখতে পারেন নাই। এই প্রেক্ষিতে বিআরটিসি'র সহযোগিতায় আগামী ২৬ ডিসেম্বর হতে ঘাটারচর থেকে কাঁচপুর পর্যন্ত বাস চলাচল শুরু হবে।’

 ডিএনসিসি মেয়র আরও বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে এই রুটে ১০০টি গাড়ি চলাচল করবে। বিআরটিসি এই রুটের পরীক্ষামূলক কার্যক্রমে ৩০টি বাস দেবে বলে নিশ্চিত করেছে। প্রতিটি বাস দোতলা বিশিষ্ট।’

কক্সবাজার হোটেল-মোটেল মালিক সমিতির নতুন কমিটি



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, v
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কক্সবাজার হোটেল মোটেল গেষ্ট হাউস মালিক সমিতির নতুন কার্যকরী কমিটি গঠিত হয়েছে। কমিটিতে সর্বসম্মতিক্রমে আবুল কাশেম সিকদারকে সভাপতি ও সেলিম নেওয়াজকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় শহরের কলাতলীর একটি হোটেলের সম্মেলন কক্ষে এ উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে ছিলো সমিতির বার্ষিক সাধারণ সভা, কার্যকরী কমিটি ঘোষণা, সম্মাননা প্রদান, কার্যকরী কমিটি ও উপদেষ্টা কমিটি গঠন। পরে ২১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরী কমিটি ও ৫ সদস্য বিশিষ্ট উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়।

উপদেষ্টা কমিটিতে ওমর সুলতানকে প্রধান উপদেষ্টা করে নুরুচ্ছফা, জহিরুল ইসলাম চৌধুরী, মোহাম্মদ দেলোয়ার ও মোহাম্মদ ফারুককে উপদেষ্টা মনোনীত করা হয়।

কার্যকরী কমিটির অন্যান্যরা হলেন, সিনিয়র সহ-সভাপতি সরওয়ার কামাল, সহ-সভাপতি ফোরকান মাহমুদ, সহ-সভাপতি মোহাম্মদ শাহীন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বজল আহমদ, সহ-সাধারণ সম্পাদক এড. মো. ইসহাক, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজুর রহমান লাভলু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জিয়া উদ্দিন জিয়া, অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ মহসিন, পর্যটন উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক মো. মনিরুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক মোহাম্মদ রুবেল, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক নুরুল আবছার, আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক সাইদুল ইসলাম শিবু, নির্বাহী সদস্য যথাক্রমে- হাবিবুর রহমান, শাহজাহান ছিদ্দিকী মার্শাল, মমতাজ আহমদ, আরিফুল ইসলাম আরিফ, আবদুল হক ও আসলাম খান।

অনুষ্ঠানে সঞ্চালনা করেন হোটেল মোটেল গেষ্ট হাউস অফিসার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কলিম উল্লাহ। এর আগে সংগঠনের পক্ষ থেকে আলহাজ্ব ওমর সুলতান ও মরহুম আলহাজ্ব শফিকুর রহমানকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

;

বিষ খাইয়ে কৃষককে হত্যা, দুই স্ত্রীর পাল্টাপাল্টি অভিযোগ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ফরিদপুর
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ফরিদপুরের নগরকান্দায় বিষপানে হিরু মাতুব্বর (৫০) নামে এক কৃষক মারা গেছেন। তবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা, তা নিয়ে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

গত শনিবার (২২ জানুয়ারি) দিবগত রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার ডাংগী ইউনিয়নের রাজকান্দা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

হিরু মাতুব্বরকে জোরপূর্বক বিষ খাইয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ তার ভাই সোহরাব মাতুব্বরের। তবে কে বা কারা হিরু মাতুব্বরকে বিষ খাইয়ে হত্যা করেছে, সে ব্যাপারে হিরুর প্রথম স্ত্রী ও দ্বিতীয় স্ত্রী পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছেন।

একই গ্রামের আবদুল ছাত্তার মাতুব্বরের ছেলে সামন মাতুব্বর বলেন, রাজকান্দা গ্রামের মৃত ওহাব মাতুব্বরের ছেলে হিরু মাতুব্বরকে শনিবার সন্ধ্যায় তার বাড়ির পাশে বাগানে অসুস্থ অবস্থায় দেখতে পাই। এসময় হিরু মাতুব্বরের ছেলে হোসাইন মাতুব্বর সেখানে আসেন।

‌‘ওই সময় আহত হিরু মাতুব্বরের কাছে ঘটনা জানতে চাইলে তিনি বলেছিলেন, পাশের শ্রীরামদিয়া গ্রামের ৫-৬ জন লোক তাকে ঘাসমারা ওষুধ (কীটনাশক) জোর করে খাইয়ে বাগানে ফেলে রেখে গেছে। তিনি এসময় কয়েকজনের নামও বললে আমি তা মোবাইলে রেকর্ড করে রাখি। সেই ভিডিও ইতোমধ্যে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।’

হিরু মাতুব্বরের ভাই সোহরাব মাতুব্বর বলেন, হিরুকে বিষ খাওয়ানো হয়েছে, এটা জানতে পেরে আমরা তাকে শ্রীরামদিয়া গ্রামে তার দ্বিতীয় স্ত্রী রানু বেগমের বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে আসি। কারণ হিরু দুইমাস আগে শ্রীরামদিয়া গ্রামের জাফর মাতুব্বরের মেয়ে রানু বেগমকে বিয়ে করে সেই বাড়িতেই থাকতেন।’

স্থানীয়রা জানান, অসুস্থ হিরু মাতুব্বরকে তার দ্বিতীয় স্ত্রী রানু বেগম উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে হিরু মারা যান। হিরু দ্বিতীয় বিয়ে করার পর থেকে প্রথম স্ত্রী ও সন্তানদের সঙ্গে তার বিরোধ চলছিল।

এ নিয়ে হিরুর প্রথম স্ত্রী হায়াতুন্নেছা বলেন, দ্বিতীয় বিয়ে করার পর থেকে সে তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বাড়িতে থাকে। আমাদের কোনো খোঁজ-খবর নিতেন না। সেই বাড়ির লোকজন তাকে বিষ খাইয়ে, আমাদের বাড়ির পাশের বাগানে রেখে যায়। তাই আমরা তাকে তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বাড়িতে রেখে আসি।

হিরু মাতুব্বরের দ্বিতীয় স্ত্রী রানু বেগমকে তার বাড়িতে পাওয়া না গেলেও তার বাবার বাড়ির লোকজনের দাবি, প্রথম স্ত্রী ও তার পরিবারের লোকজন এ মৃত্যুর জন্য দায়ী।

নগরকান্দা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) সুমিনুর রহমান বলেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে তার মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা সম্ভব হবে। হিরু মাতুব্বরের মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী কি না, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তার মৃত্যু রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চলছে।

;

মোংলায় ৫টি হরিণের চামড়াসহ যুবক আটক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, মোংলা (বাগেরহাট)
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

 

বাগেরহাটের মোংলা বন্দরের শিল্প এলাকা থেকে পাঁচটি হরিণের চামড়াসহ আল আমিন (২৫) নামে পাচারচক্রের এক সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) রাত ১০টার দিকে ​দিগরাজ বাজার ​থেকে তাকে আটক করে র‌্যাব-৬ এর একটি দল। আটক আল আমিন খুলনার দাকোপ উপজেলার বানীশান্তা গ্রামের বাসিন্দা।

র‌্যাব-৬-এর কর্মকর্তা পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মাহফুজুল ইসলাম জানান, সুন্দরবন থেকে হরিণ শিকার করে চামড়া চোরাই বাজারে বিক্রির জন্য নিয়ে এসেছিলেন আল আমিন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়।

তিনি বলেন, আটক আল আমিন বন্যপ্রাণী পাচারচক্রের সদস্য। তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে হরিণের পাঁচটি চামড়াসহ মোংলা থানায় হস্তান্তর করা হবে। তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়েরও করা হবে।

;

মগবাজারে বাসচাপায় কিশোর নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর মগবাজার মোড়ে যাত্রীবাহী দুই বাসের চাপায় রাকিব (১৪) নামের এক কিশোর নিহত হওয়ার ঘটনায় আজমেরি বাসের দুই চালককে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব।

গ্রেফতারকৃত দুই চালক হলেন- মো. মনির হোসেন ও মো. ইমরান হোসেন।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) রাতে তাদের রাজধানীর পল্টন ও মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানান র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সহকারী পরিচালক এএসপি আ ন ম ইমরান খান।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে বুধবার দুপুরে বিস্তারিত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জানানো হবে।

এর আগে, বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) বিকাল ৫টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় কিশোর রাকিবকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে চিকিৎসক বিকাল সাড়ে ৫টায় মৃত ঘোষণা করেন।

;