খালেদার স্বাস্থ্য নিয়ে চিকিৎসকদের বক্তব্য শেখানো: তথ্যমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে চিকিৎসকরা যে বক্তব্য দিয়েছেন সেগুলো বিএনপির শেখানো বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

সোমবার (২৯ নভেম্বর) সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে টিভি কেবল নেটওয়ার্ক অপারেটর প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মন্ত্রী বলেন, তাদের বক্তব্যে এটি স্পষ্ট যে, চিকিৎসক হিসেবে তারা যতটুকু না বক্তব্য দিয়েছেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে বিএনপির শিখিয়ে দেওয়া বক্তব্যই দিয়েছেন। আর বিবৃতিদাতাদের বেশিরভাগই বিএনপি দলীয় রাজনীতির সাথে যুক্ত।

বিএনপি এখন বেগম জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে রাজনীতিটা তাদের নেতাদের কাছ থেকে ডাক্তারদের মধ্যেও নিয়ে গেছেন বলে প্রমাণিত হয়েছে উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, আমি টেলিভিশনে দেখেছি জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন জেডআরএফের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার একটি বিবৃতি দিয়েছেন। ড্যাবের দফতর সম্পাদক ডা. মো. ফখরুজ্জামান স্বাক্ষরিত আরেকটি বিবৃতি ছিলো। আরেকজন ডাক্তার কালকে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এরা সবাই বিএনপি’র দলীয় ও ঘরোয়া রাজনীতির সাথে যুক্ত।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ডাক্তার সাহেব বলেছেন, শুধুমাত্র যুক্তরাজ্যে চিকিৎসা আছে। আর চিকিৎসা আছে জার্মানি আর যুক্তরাষ্ট্রে, ভারতে তো নাইই, সিঙ্গাপুরে, ব্যাংককেও নাই। বাস্তবতা হলো, এখন ইউরোপ ও আমেরিকার অনেক মানুষ সিঙ্গাপুর ও ব্যাংককে চিকিৎসা করতে আসে। ডাক্তার সাহেব কিভাবে বললেন অন্য কোথাও নাই, শুধুমাত্র তারেক রহমান যেখানে আছে সেই যুক্তরাজ্যেই চিকিৎসা আছে আর আছে পাশের দেশ জার্মানি আর ইউএসএ-তে।

সাংবাদিকরা বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্য ‘দেশে বিশৃঙ্খলা না চাইলে বেগম জিয়াকে বিদেশে যেতে হবে’ এবিষয়ে প্রশ্ন করলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি মহাসচিব যদি একথা বলে থাকেন, তাহলে উনারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পরিকল্পনা করছেন। আমি মনে করি, এজন্য তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা হতে পারে। কারণ তিনি যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার পরিকল্পনা করছেন সেটি নিজেই স্বীকার করেছেন এবং এটি ফৌজদারি অপরাধ। তারা অতীতে অনেক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছে, দেশের মানুষ তাদেরকে আর বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে দেবে না।

মন্ত্রী বলেন, মন্ত্রণালয় ৩০ নভেম্বর যে সময় নির্ধারণ করে দিয়েছিল, সেটির ওপর আদালত স্থগিতাদেশ দিয়েছেন। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে কাজ চলছে, আশা করছি স্থগিতাদেশ উঠে গেলে পুনরায় সময় নির্ধারিত হবে। তবে কেব্‌ল নেটওয়ার্ক ডিজিটাল হওয়া প্রয়োজন, এ লক্ষ্যে সরকার কাজ করছে এবং আমরা এতে বদ্ধপরিকর।

বাংলাদেশে নিম্নবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত, মধ্যবিত্ত, উচ্চ মধ্যবিত্ত, উচ্চবিত্ত গ্রাহক সবাই যাতে প্রয়োজন ও সামর্থ্য অনুযায়ী এককালীন বা কিস্তিতে সেট টপ বক্স কিনতে পারেন এবং একই সঙ্গে দেশে এটি উৎপাদন করা যায় কি না, সেটিও আলোচনা হয়েছে উল্লেখ করেন তথ্যমন্ত্রী।

কেবল অপারেটরদের সঙ্গে বৈঠক শেষে এ বিষয়ে সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, কেব্‌ল অপারেটরা প্রস্তুতি নিয়েছেন। ঢাকা-চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন শহরসহ অন্যান্য শহরগুলোতেও তাঁরা ডিজিটাল হেড স্থাপন করেছেন। এর পাশাপশি প্রত্যেক গ্রাহকের কাছে সেট টপ বক্স থাকলে কেব্‌ল অপারেটিং সিস্টেম ডিজিটালাইজ হবে। এতে গ্রাহক ভালোভাবে টেলিভিশন দেখতে পারবেন এবং একই সঙ্গে সরকার প্রতিবছর ১৫ থেকে ১৮ শ কোটি টাকা যে রাজস্ব হারাচ্ছে, সেটিও আদায় হবে আবার এখন কেব্‌ল অপারেটরা ফিড অপারেটরের কাছ থেকে পাওনা সঠিকভাবে পান না, সেটিরও অবসান হবে।

‘রাজধানীতে আর অপরিকল্পিত নগরায়ন করতে দেওয়া হবে না’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম

মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীতে আর কোথাও কোনো অপরিকল্পিত নগরায়ন নয়। এক ইঞ্চি জায়গাতেও অপরিকল্পিতভাবে কিছু করতে দেওয়া হবে না। অবৈধভাবে সিটি করপোরেশনের জায়গায় গড়ে উঠা সব স্থাপনা ভেঙে ফেলা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, রাজউককে চিঠি দেওয়া হয়েছে, নগরে যাদের অংশীদারত্ব রয়েছে সবাইকে জানানো হয়েছে। আমরা রাজউকের কাছে জানতে চেয়েছি কারা কারা কোন নকশায় বিল্ডিং বানানোর কথা বলে এখন কীভাবে বানিয়েছে তা জানানোর জন্য।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) রাজধানী পান্থপথের প্লায়ার্স টাওয়ারে আয়োজিত '১৫তম কার্যনির্বাহী পরিষদের অভিষেক ও জ্যেষ্ঠ পরিকল্পনাবিদের সংবর্ধনা' অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মেয়র আতিক বলেন, রাজধানীর বছিলায় খাল দখল করে বহুতল ভবন গড়ে উঠেছে। এটা কী কেউ দেখেনি? যতবড় শক্তিই অবৈধ দখলের পেছনে থাকুক না কেনো, তাদের কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না ৷

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নের যে মহাযজ্ঞ শুরু করেছেন সব কিছু করা হচ্ছে পরিকল্পিতভাবে। ২০৪১ সালের বাংলাদেশ, এমন কী ২১০০ সালের বাংলাদেশ কেমন হবে তার রূপরেখাও তিনি প্রণয়ন করে দিয়েছেন।

মেয়র অবৈধ দখলদারদের উদ্দেশ্যে বলেন, সিটি করপোরেশন অবৈধ দখলের জন্য কাউকে বৈধ নোটিশ দেবে না।

তিনি হাউজিং ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, পাসকৃত নকশার বাইরে কোনো কাজ করার চেষ্টা করবেন না। ১/২ কাঠা জায়গা কাউকে বরাদ্দ দেবেন না। এই জায়গা আমাদের দিন, আমরা সাজিয়ে দেব। এতে ওই এলাকার পরিবেশ সুন্দর হবে।

তিনি আরও বলেন, অপরিকল্পনা আর অবস্থাপনার কারণেই কিন্তু শহর নোংরা হচ্ছে, যেখানে সেখানে ময়লা ফেলা হচ্ছে। এ ব্যাপারে সবাইকে সচেতন হতে হবে বলে তিনি জানান।

এ সময় মেয়র আতিকুল ইসলাম সুস্থ সচল আধুনিক ঢাকা নির্মাণের জন্য সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

;

‘সাংস্কৃতিক বিপ্লবের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম

  • Font increase
  • Font Decrease

সাংস্কৃতিক বিপ্লবের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।
‌‌
শনিবার (২২ জানুয়ারি) রাতে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ মিলনায়তনে বাংলাদেশ বিনোদন সাংবাদিক সমিতি আয়োজিত বাবিসাস অ্যাওয়ার্ড ২০১৯, ২০২০ ও ২০২১ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ বিনোদন সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আবুল হোসেন মজুমদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে সংসদ সদস্য গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার, সংসদ সদস্য মমতাজ বেগম, নাগরিক ঢাকার সভাপতি এম নাঈম হোসেন, বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন বাংলার সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট তাশিক আহমেদ উপস্থিত ছিলেন। স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক দুলাল খান।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী বলেন, যে জাতির নিজস্ব সংস্কৃতি থাকে না, কৃষ্টি থাকে না, যে জাতি ইতিহাস, ঐতিহ্য ধারণ করে না সে জাতি অস্তিত্বহীন হয়ে যায়। এ জন্য আমাদের বাঙালিত্বকে টিকিয়ে রাখতে হবে। বাঙালির অত্যন্ত সমৃদ্ধ ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি রয়েছে। যদিও তথাকথিত আকাশ সংস্কৃতি আমাদের অনেক জায়গা বিপন্ন করে দিচ্ছে। সে জায়গা আমাদের শিল্পীদের অভিনয়, গানসহ অন্যান্য নৈপুণ্য দিয়ে ফিরিয়ে আনতে হবে। সাংস্কৃতিক অঙ্গনের গুণীজনদের সম্মানিত করা, সমৃদ্ধ করা আমাদের দায়িত্ব।

মন্ত্রী বলেন, যিনি বাঙালির নিজস্ব সংস্কৃতির সাথে আকৃষ্ট থাকেন না তার স্বকীয়তা বিপন্ন হয়। বাংলাদেশি নাটক-চলচ্চিত্র অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করছে বিশ্ব পরিমণ্ডলে। তবে একথাও সত্য হঠাৎ করে ব্যবসার নামে, দ্রুততার সাথে জনপ্রিয়তার নামে কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত শিষ্টাচারবর্জিত সৃষ্টিও দেখা যায়। যদিও এগুলোর আয়ুস্কাল স্বল্পসময়ের। বাঙালিত্বকে টিকিয়ে রাখার জন্য বিশেষ করে হিন্দু, মুসলিম,বৌদ্ধ, খ্রিস্টানের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও ঐক্যের বাংলাদেশ টিকিয়ে রাখতে গেলে সংস্কৃতি বিকাশের, সংস্কৃতির বিপ্লবের কোন বিকল্প নেই। যখনই সংস্কৃতি মুখ থুবড়ে পড়ে তখনই উগ্রতা, জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। তাই দৃশ্যমান শক্তি প্রয়োগ না করে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে এই উগ্রবাদ-জঙ্গিবাদ প্রতিহত করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চলচ্চিত্রসহ সংস্কৃতির নানা ক্ষেত্রে ব্যাপক পৃষ্ঠপোষকতা প্রদান করছেন। যতদিন মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ থাকবে, যতদিন শেখ হাসিনা দেশে প্রধানমন্ত্রী থাকবেন, ততদিন সংস্কৃতি চর্চার জন্য রাষ্ট্রের সকল পৃষ্ঠপোষকতা থাকবে-যোগ করেন মন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে আজীবন সম্মাননা প্রদান করা হয় চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক ও কাহিনীকার ছটকু আহমেদ এবং নাট্যব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদকে। এছাড়া সংগীতে অনন্য অবদানের জন্য সংগীতশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করা হয়

;

পর্নো ভিডিও সরবরাহের অভিযোগে গ্রেফতার ৩



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নারায়ণগঞ্জ
পর্নো ভিডিও সরবরাহের অভিযোগে গ্রেফতার ৩

পর্নো ভিডিও সরবরাহের অভিযোগে গ্রেফতার ৩

  • Font increase
  • Font Decrease

নারায়ণঞ্জের রূপগঞ্জে পর্নো ভিডিও সরবরাহের অভিযোগে তিন ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১১।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) রাতে উপজেলার রূপসী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে তিনটি করে সিপিইউ, কী বোর্ড, মাউস ও ছয়টি কার্ড রিডার জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হল- সোনারগাঁ থানার চেঙ্গাইন এলাকার মৃত মতিউর রহমানের ছেলে আরিফ মিয়া (৩২), ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলার নবীনগর থানার বাড়ীখোলা এলাকার মোবারক হোসেনের ছেলে বাবু মিয়া (২২) এবং সোনারগাঁ থানার খিদিরপুর এলাকার মৃত নওয়াব আলীর ছেলে ওবায়দুল্লাহ ওরফে ওবায়দুল (৩১)।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) বিকেলে র‌্যাব-১১ এর মিডিয়া অফিসার এএসপি রিজওয়ান সাঈদ জিকু এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান, গ্রেফতারকৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় তারা রূপসী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় কম্পিউটার ও মোবাইল সার্ভিসিং দোকান পরিচালনার আড়ালে পর্নোগ্রাফি ভিডিও সরবারহ করে আসছিল। অর্থের বিনিময়ে শিক্ষার্থীসহ উঠতি বয়সী তরুণদের মোবাইল, ল্যাপটপ ও কম্পিউটারে পর্নোগ্রাফি ভিডিও বিক্রি করতো।

গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে রূপগঞ্জ থানায় পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

;

বাড়ি ফেরার পথে ট্রেনে কাটা পড়ে শ্যালক-দুলাভাইয়ের মৃত্যু



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, টাঙ্গাইল
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার হাতিয়া এলাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে মোটরসাইকেল আরোহী শ্যালক-দুলাভাই নিহত হয়েছেন।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) রাত ৮টার দিকে উপজেলার হাতিয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ঘারিন্দা রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সহকারী উপ-পরিদর্শক আব্দুস সবুর দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন- কালিহাতীর পৌর এলাকার সাতুটিয়া গ্রামের মৃত মঈন উদ্দিনের ছেলে মোতালেব হোসেন (৪৫) ও একই এলাকার মৃত হারুনুর রশিদের ছেলে মাসুম (৩০) । সম্পর্কে মামাতো শালা-দুলাভাই।

নিহতদের আত্মীয় আব্দুল জলিল জানান, মোতালেব হোসেন ও মাসুম সম্পর্কে মামাতো শালা দুলাভাই। উপজেলার হাতিয়াতে মাসুমের আপন বোনের বিয়ের দাওয়াত খাওয়া শেষ করে বাড়ি ফেরার পথে ট্রেনে কাটা পড়ে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়েছে।

ঘারিন্দা রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সহকারী উপ-পরিদর্শক আব্দুস সবুর জানান, বিয়ের দাওয়াত খেয়ে বাড়ি ফেরার পথে ট্রেনে কাটা পড়ে ২ ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। মরদেহ স্বজনেরা নিয়ে গেছেন।

;