ওমিক্রন: সাত বাড়িতে লাল পতাকা, স্থলবন্দরে বাড়তি নজরদারি



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ওমিক্রন: সাত বাড়িতে লাল পতাকা, স্থলবন্দরে বাড়তি নজরদারি

ওমিক্রন: সাত বাড়িতে লাল পতাকা, স্থলবন্দরে বাড়তি নজরদারি

  • Font increase
  • Font Decrease

ভয়ংকর ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ার আশংকায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনা কমিটির এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে চলতি সপ্তাহের শুরুতে সাউথ আফ্রিকা থেকে আগত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাত জনের বাড়িতে লাল পতাকা টানানো ও হোমকোয়ারেন্টাইনের রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সোমবার (২৯ নভেম্বর) রাতে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের হলরুমে অনুষ্ঠিত জরুরি সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রাশাসক হায়াত-উদ-দৌলা-খাঁন।

এ সময় বক্তব্য রাখেন- সিভিল সার্জন ডা. মো. একরামুল্লাহ, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার, প্রেসক্লাব সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন জামি। এছাড়াও আখাউড়া স্থলবন্দরে কঠিনভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও যাত্রী পারাপারসহ বাড়তি নজরদারির কথা বলা হয়েছে।

সভা সূত্রে জানা যায়, গত কয়েকদিনে সাউথ আফ্রিকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুরে ১ জন, কসবার ৩ জন, নবীনগরের ১ জন ও সদর উপজেলার ২ জন বাসিন্দা দেশে এসেছে। তাদের ব্যাপারে দ্রুত অনুসন্ধান চালিয়ে বের করে হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতসহ বাড়ির সামনে লাল পতাকা টানিয়ে দিতে হবে। সভায় করোনার টিকা দ্রুত বাড়াতে সিদ্ধান্ত হয়। রেজিস্ট্রেশনকৃত দুই লক্ষ লোককে দ্রুত টিকা নিশ্চিত করার জন্য পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানানো হয়।

সংসদের ১৬তম অধিবেশন আবার বসছে আজ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সংসদের ১৬তম অধিবেশন আবার বসছে আজ

সংসদের ১৬তম অধিবেশন আবার বসছে আজ

  • Font increase
  • Font Decrease

পাঁচ দিন মুলতবির পর সংসদের ১৬তম ও চলতি বছরের প্রথম অধিবেশন আজ রবিবার সকাল ১১টায় আবার বসছে।

গত ১৬ জানুয়ারি এ অধিবেশন শুরু হয়। সংবিধান অনুযায়ী বছরের প্রথম অধিবেশন হিসেবে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সংসদে ভাষণ দেন। ১৭ জানুয়ারি এ ভাষণ সম্পর্কে চিফ হুইপ নূর-ই- আলম চৌধুরী ধন্যবাদ প্রস্তাব উত্থাপন করেন। এ প্রস্তাবটি সমর্থন করেন সরকারি দলের সদস্য সামসুল হক টুকু।

ওই দিন ভাষণ সম্পর্কে ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর আলোচনা শুরু হয়। প্রথম দিন ২ জন প্রতিমন্ত্রীসহ বেশ কয়েকজন সংসদ সদস্য আলোচনায় অংশ নেন। দিনের আলোচনা শেষে স্পিকার ২৩ জানুয়ারি রোববার সকাল ১১টায় পর্যন্ত অধিবেশন মুলতবি করেন। মুলতবির পর আজ যথারীতি অধিবেশন আবার বসছে।

;

পুলিশ অপরাধ দমনে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে



বাসস
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ পুলিশ দেশের অভ্যন্তরীণ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধ দমন এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে।

তিনি বলেন, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমন, মাদক নির্মূল এবং চোরাচালান দমনে পুলিশের ভূমিকা বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল করেছে। এছাড়া জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশ পুলিশের সাহসী সদস্যগণ উল্লেখযোগ্য প্রশংসনীয় অবদান রেখে চলেছে।

প্রধানমন্ত্রী আজ পুলিশ সপ্তাহ ২০২২ উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে এসব কথা বলেন। তিনি এ উপলক্ষে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর সকল সদস্যকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। খবর তথ্য বিবরণীর।

শেখ হাসিনা বলেন, সরকার গঠনের পর বাংলাদেশ পুলিশের জনবল ধাপে ধাপে ব্যাপকহারে বৃদ্ধি করেছে। পেশাগত উৎকর্ষ সাধনে পুলিশের পদোন্নতি ও পদমর্যাদা বৃদ্ধিতে আমাদের সরকার কাজ করে যাচ্ছে। আমরা বাংলাদেশ পুলিশে নতুন পদ সৃষ্টির মাধ্যমে পুলিশ কর্মকর্তাদের পদোন্নতি প্রাপ্তির জটিলতা নিরসনে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। একই সাথে গ্রেড-১ ও গ্রেড-২ পদের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হয়েছে। তাছাড়া শিল্পাঞ্চলের জন্য ২০১০ সালে শিল্প পুলিশ ইউনিট ও পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য ২০১৩ সালে ট্যুরিস্ট পুলিশ ইউনিট গঠন করি।

সরকার থানা, ফাঁড়ি তদন্ত কেন্দ্র, ব্যারাক, আবাসিক ভবন নির্মাণের জন্য জমি বরাদ্দসহ কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা সেবার লক্ষ্যে ১০ তলা বিল্ডিং করে রাজারবাগে পুলিশ হাসপাতাল নির্মাণ করা হয়েছে। সেখানে পুলিশ সদস্যরা চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন। প্রতি বিভাগে একটা করে হাসপাতাল নির্মাণ করা হবে। আকাশ পথে সক্ষমতা অর্জনের মাধ্যমে পুলিশের গতিশীলতা ত্রিমাত্রিক পর্যায়ে উন্নীতকরণের জন্য ইতোমধ্যে রাশিয়া হতে ২টি হেলিকপ্টার ক্রয়ের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। পুলিশ বাহিনীকে একটি আধুনিক, যুগোপযোগী, দক্ষ ও জনবান্ধব বাহিনীতে রূপান্তরিত করার লক্ষ্যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। ফলে পুলিশ সদস্যদের কার্যক্রমে এসেছে গতিশীলতা এবং কর্মচাঞ্চল্য।

শেখ হাসিনা বলেন, জনগণের সেবা করাই পুলিশ বাহিনীর প্রতিটি সদস্যের পবিত্র দায়িত্ব। সেখানে কোন ধরনের অনুরাগ বা বিরাগের সুযোগ নেই। দায়িত্ব অবহেলা বা নৈতিক পদস্থলন অমার্জনীয় অপরাধ। তিনি আশা করেন, বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যগণ মানবিক মূল্যবোধ সমুন্নত রেখে দক্ষতা, পেশাদারিত্ব ও নিরপেক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করবেন এবং জাতির পিতার স্বপ্নের ‘সোনার বাংলাদেশ’ বিনির্মাণে সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স’র সদস্যগণ পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। এর ফলে সূচিত হয়েছিল মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধযুদ্ধ। অকুতোভয় পুলিশ সদস্যদের মধ্যে বেশ কয়েকজন সেদিন দেশমাতৃকার জন্য আত্মাহুতি দিয়েছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পুলিশ বাহিনীর প্রায় ১৪ হাজার বাঙালি পুলিশ সদস্য কর্মস্থল ত্যাগ করে সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। এদের মধ্যে এক হাজার একশত জনেরও বেশি পুলিশ সদস্য শহিদ হন।

সাম্প্রতিক সময়ে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে জনগণের সেবায় ১০৬ জন নির্ভীক পুলিশ সদস্য জীবন উৎসর্গ করেছেন উল্লেখ করে তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধে ও বিভিন্ন সময়ে দেশের জন্য আত্মোৎসর্গকারী পুলিশ সদস্য ও তাদের পরিবারবর্গের প্রতি গভীর সমবেদনা ও শ্রদ্ধা জানান।

প্রধানমন্ত্রী ‘পুলিশ সপ্তাহ ২০২২’র সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

;

সততা ও নিষ্ঠার সাথে জনগণের সেবা নিশ্চিত করুন



বাসস
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ

  • Font increase
  • Font Decrease

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশপ্রেম, সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে জনগণের সেবা প্রদান নিশ্চিত করতে পুলিশ সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

আজ ২৩ জানুয়ারি ‘পুলিশ সপ্তাহ-২০২২’ উপলক্ষে এক বাণীতে তিনি এ আহ্বান জানান। পুলিশ সপ্তাহ ২০২২ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ পুলিশের সকল সদস্যকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ দেশের একটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান। মহান মুক্তিযুদ্ধে এ বাহিনীর রয়েছে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালে ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে স্বাধীনতার ডাক দেন। তাঁর আহ্বানে সাড়া দিয়ে রাজারবাগ পুলিশ লাইনস এ বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যরা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলে। মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ পুলিশের ১২৬২ জন সদস্য জীবন উৎসর্গ করেন।

রাষ্ট্রপতি হামিদ বলেন, শুধু মহান মুক্তিযুদ্ধেই নয়, দেশের প্রয়োজনে ও বিভিন্ন সংকটে জীবন উৎসর্গ করতে কুণ্ঠাবোধ করেননি পুলিশ সদস্যরা। চলমান কভিড-১৯ মহামারিতে দেশ ও জনগণের সেবায় নিয়োজিত ১০৬ জন পুলিশ সদস্য মৃত্যুবরণ করেছেন।

তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধসহ বিভিন্ন সময়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আত্মোৎসর্গকারী পুলিশের বীর সদস্যদের গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।

আবদুল হামিদ বলেন, দেশের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় বাংলাদেশ পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করছে। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশ পুলিশের ভূমিকা দেশে-বিদেশে প্রশংসিত হয়েছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ পুলিশের ভূমিকা বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করছে। বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে অপরাধের ধরন ও কৌশলে ব্যাপক পরিবর্তন ঘটছে। অপরাধীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও বিভিন্ন ধরনের অ্যাপস ব্যবহার করে সাইবার অপরাধ সংঘটন করছে, যা প্রতিরোধ করা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জন্য এক বড়ো চ্যালেঞ্জ। সাইবার অপরাধ মোকাবিলায় পুলিশের তথ্য-প্রযুক্তিগত সক্ষমতা বাড়াতে বর্তমান সরকার ব্যাপক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষে ‘মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার’ স্লোগানে উজ্জ্বীবিত হয়ে বাংলাদেশ পুলিশ বছরব্যাপী নানা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে, যার মাধ্যমে এ বাহিনী আরও জনবান্ধব প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে উঠবে বলে আমি মনে করি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ পুলিশের প্রতিটি সদস্য মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশপ্রেম, সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনের মধ্যদিয়ে জনগণের সেবা প্রদান নিশ্চিত করবে-এ প্রত্যাশা করি।

তিনি পুলিশ সপ্তাহ ২০২২ আয়োজনের সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

;

পুলিশ সপ্তাহ শুরু আজ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
পুলিশ সপ্তাহ শুরু হচ্ছে আজ রবিবার।

পুলিশ সপ্তাহ শুরু হচ্ছে আজ রবিবার।

  • Font increase
  • Font Decrease

পুলিশ সপ্তাহ শুরু হচ্ছে আজ রবিবার। করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যে পুলিশ সপ্তাহ উদযাপনে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর। স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়নে পুলিশ কর্মকর্তাদের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে সদস্যদের কড়া নির্দেশনা দিয়েছেন আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ। শনিবার বিকেলে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে পুলিশ সদর দপ্তরে এক বৈঠকে এ নির্দেশনা দেন তিনি।

পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশপ্রেম, সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে জনগণের সেবা প্রদান নিশ্চিত করতে পুলিশ সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশ পুলিশ দেশের অভ্যন্তরীণ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধ দমন এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ‘দক্ষ পুলিশ, সমৃদ্ধ দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’ স্লোগানে এবার পুলিশ সপ্তাহের প্রথম দিনে আজ সকাল ১০টায় রাজারবাগ পুলিশ লাইনস মাঠে বার্ষিক প্যারেড হবে। এতে ভার্চুয়ালি যুক্ত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় একই স্থানে নৈশভোজ হবে। দ্বিতীয় দিন সোমবার সকাল ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত শিল্ড প্যারেডের ফাইন প্রতিযোগিতা ও বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত পুরস্কার বিতরণ করা হবে। দুপুর ১টায় হবে প্রীতিভোজ। আর সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে পুনর্মিলনী হবে।

আগামী মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। বেলা ৩টা থেকে সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রধান বিচারপতির সম্মেলন ও সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ভার্চুয়ালি ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। পরের দিন বুধবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে আইজিপির সম্মেলন হবে। আর পুলিশ সপ্তাহের শেষ দিন বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীদের সম্মেলন হবে। একই দিন বেলা ৪টা থেকে ৫টা পর্যন্ত মন্ত্রিপরিষদ সচিবের সম্মেলনের মাধ্যমে পুলিশ সপ্তাহ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

প্রতি বছর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পুলিশ কর্মকর্তাদের দরবার হলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার তা বাতিল করা হয়েছে। তবে পুলিশের দাবিদাওয়া প্রধানমন্ত্রীকে লিখিত জানানো হবে। আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে দাবিদাওয়াগুলো তুলে ধরা হবে।

জানা গেছে, পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষে বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) ও রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) দেওয়া হয়। করোনা পরিস্থিতির কারণে গত বছর পুলিশ সপ্তাহ উদযাপন হয়নি। ফলে এবার ২০২০ ও ২০২১ সাল মিলিয়ে পদক পাচ্ছেন ২৩০ কর্মকর্তা। প্রতি বছর প্রধানমন্ত্রী এ পদক পরিয়ে দেন। কিন্তু এবার তার পক্ষে পদক পরিয়ে দেবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

;